adv
২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অতীত ভেবে সেদিন অঝোরে কেঁদেছিলেন তামিম ইকবালের মা

tamimঅমিতাভ রেজা চৌধুরী : বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাণের মজাটাই বোধ হয় এ রকম, জীবনে বিভিন্ন অভিজ্ঞতা খুব অল্প সময়ের মাঝে হয়। আমার তেমনি অভিজ্ঞতা খেলোয়াড়দের সঙ্গে শুটিং করা। আমার প্রথম সৌভাগ্য হয়েছিল পেসার হান্টের টিভিসি করা, যাতে ওই সময়ের হাবিবুল বাশার, পাইলট, রফিক আর মাশরাফি ছিলেন মডেল। এরপর আকরাম খানসহ আরও অনেকের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা হয়েছে। খেলোয়াড়দের সঙ্গে শুটিংয়ে মজার থেকে দুশ্চিন্তা থাকে বেশি। কারণ মানসিকভাবে শুটিং করার মনোভাব তাঁদের থাকে না। তাঁদের জায়গা খেলার মাঠ, শুটিং ফ্লোর তাঁদের সব সময় অচেনা লাগে। তা বোঝা যায় একই শট তিনবার দিতে গেলেই তাঁরা অস্থির হয়ে যান। মাঠে ছয়টা ভিন্ন বল খেলে তাঁরা অভ্যস্ত, তাই একই শট বারবার দিতে বিরক্ত লাগা স্বাভাবিক। আমরা তাঁদের দিয়ে এমন কিছু করতে চাই না, যা তাঁরা পারবেন না।

তামিম ইকবালের সঙ্গে আমার অনেক কাজ হয়েছে। ফ্রেশের টিভিসি বিজ্ঞাপন করার জন্য আমাকে আমন্ত্রণ জানায় বিজ্ঞাপনী সংস্থা অ্যাডকম। ফ্রেশ মিল্ক পাউডারের টিভিসির চিত্রনাট্য পড়েই আমার ভালো লেগেছিল। আমি প্রথম একজন খেলোয়াড়কে অন্যভাবে দেখতে পেয়েছি। গল্পের মূল শক্তি তামিম ইকবালের মা নুসরাত ইকবাল।

মায়ের ইমেজ তো চিরায়ত। কিন্তু তামিম ইকবালের মা যেন অন্য মানুষ। আমাদের যেসব মা ভুল সময়ে সহযাত্রী স্বামীকে হারিয়ে লড়াই করে সন্তান লালন করেন, তামিম ইকবালের মা তেমনি একজন। তামিম ইকবালের বাবা ইকবাল খান ছিলেন নামী ফুটবলার। ক্রিকেটও ভালো খেলতেন। তাঁর স্বপ্ন ছিল তাঁর ছেলেরাও একদিন নামী ক্রিকেটার হবে।

স্বামীর স্বপ্নপূরণে এতটুকু কমতি রাখেননি তামিমের মা। ছেলেদের কাছে তিনিই বড় অনুপ্রেরণা। কী অসাধারণ জীবনীশক্তি দিয়ে তিনি তাঁর সন্তানদের বিকশিত করেছেন, তা তামিম আর নাফিস ইকবালকে দেখলে বোঝা যায়। ফ্রেশ আর অ্যাডকম সেই সুযোগ না দিলে আমার কখনো এই অসাধারণ মহীয়সী নারীকে দেখা হতো না।

শুটিংয়ের ফাঁকে কথা হতো তামিমের সঙ্গে। তামিম বলেছেন, ‘আমি খেলি আমার মায়ের জন্য।’
‘ফ্রেশ মিল্ক পাউডার’ টিভিসির গল্পের সঙ্গে তামিম আর তাঁর মায়ের বাস্তব জীবনের অনেক মিল রয়েছে।
মায়ের সঙ্গে আরও যে বিষয় যুক্ত, তা হলো মাটি। তামিমের জন্ম আর বেড়ে ওঠা চট্টগ্রামে। চিত্রনাট্য পেয়েই ফ্রেশের বিপণনপ্রধান আমাদের বড় ভাই আসিফ ইকবালকে বলেছিলাম, ‘ভাইয়া, শুটিং চট্টগ্রামে করতে হবে।’ সেই সুযোগও হলো। তামিম ইকবালের কাছ থেকে শৈশবের গল্প শুনে ইমেজে তাঁকে উপস্থাপনের চেষ্টা করলাম পতেঙ্গার সমুদ্রপাড়ে আর চট্টগ্রাম বন্দরের একাংশে, যেন মাটির গন্ধ কিছুটা হলেও ইমেজে পাওয়া যায়। তামিমের চেহারার মতো একজন খুদে মডেল খুঁজে বের করা হয়, যার সঙ্গে কিছুটা হলেও তামিমের সাদৃশ্য পাওয়া যায়। আমার চিত্রগ্রাহক খুব সুন্দর করেই ক্যামেরায় তামিমের ছোটবেলা ফুটিয়ে এনেছেন।

বিজ্ঞাপনচিত্রে মায়ের সঙ্গে তামিম ইকবাল। ছবি: সংগৃহীততামিম ইকবাল আর তাঁর মায়ের অংশ শুটিং করা হয় ঢাকার সেটে। মায়ের সঙ্গে দৃশ্য একটাই। এই ছবিতে কিন্তু তামিম ইকবালের মা নিজেই অভিনয় করেছেন। জীবনে কিছু দৃশ্য আছে, যা শুটিং করতে গিয়ে মনে হয়, সিনেমার সব মিথ্যা যেন সত্যি হয়ে যায়, যেন সব ফিকশন একাকার হয়ে মিশে যায় জীবনের বাস্তবতায়, মিথ্যা কান্না আর বুকের ভেতরের কষ্ট যেন আলাদা হয়ে যায়। মায়ের সঙ্গে তামিম ইকবালের দৃশ্যটা যেন ঠিক তেমন। আমার প্রয়োজন ছিল এমন একটি দৃশ্য, যেখানে গর্বিত মা তাঁর সন্তানকে জড়িয়ে ধরেন। যে দৃশ্য আমরা দেখি গোর্কির মাতে বা জাহানারা ইমামের একাত্তরের দিনগুলিতে। এই মা সেই রকম একজন, যে তাঁর সন্তানকে প্রস্তুত করেন মাটি রক্ষা করার জন্য, খেলার মাঠে লড়াই করে গর্বিত করে তোলে বাংলাদেশের মানুষকে।

কিন্তু এমন একটি দৃশ্য কীভাবে হবে? যিনি কোনো দিন অভিনয় করেননি, কঠিন ছিল হয়তো, কিন্তু ভুলে গিয়েছিলাম, জীবন তো আরও কঠিন। তামিম ইকবালের মা যে কঠিন সময় পার করে তাঁর সন্তানদের বড় করেছেন, তার জন্য সেই মুহূর্তটা মনে করাই যথেষ্ট ছিল। তাই আমি যখন তাঁকে সেই সময়টার কথা মনে করিয়ে দিচ্ছি, তিনি অঝোরে কাঁদতে শুরু করলেন। মিথ্যা ইমেজে তাঁর চোখের পানিটা যেন সত্যি হয়ে গেল।
সেদিন ঢাকার কোক স্টুডিওতে শুটিংয়ে আমাদের ইউনিটের সবার চোখ ভিজিয়ে দিয়েছিলেন চিরায়ত একজন মা। হয়তো তাই তামিম বলেছিলেন, ‘অমিতাভ ভাই, আম্মাকে আর কাঁদতে দিয়েন না। শেষ করেন। এই শট আর নিয়েন না।’
কোনো সন্তান তার মায়ের চোখের পানি দেখতে চায় না। কারণ তামিম কোনো সুপার হিরো না, একজন সন্তান। একজন মানুষ।
লেখক: বিজ্ঞাপনচিত্র ও চলচ্চিত্র নির্মাতা।
-প্রথমঅলো

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া