adv
৪ঠা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কাকা সুনীলসহ ৬ জনের ফাঁসি

hemalডেস্ক রিপোর্ট : পারিবারিক সম্পত্তি দখল করতে ২০১১ সালের ৮ই মে বান্দরবানে বেড়াতে গেলে অপহরণ করা হয় হিমেল সুপন দাশকে। এসএসসি পরীক্ষায় যে ছেলেটি জিপিএ-৫ পেয়েছিল। দীর্ঘ সাড়ে ৪ বছর পর সেই ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গতকাল বুধবার ৬ জনের ফাঁসির রায় দিয়েছেন আদালত। চট্টগ্রাম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক সেলিম মিয়া এই রায় ঘোষণা করেন। সুপনের বাবাকেও একই কায়দায় সম্পত্তির জন্য হত্যা করা হয়েছিল বলে সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছিলেন তার মা পাপিয়া সেন। মৃত্যুদণ্ড পাওয়া ৬ আসামির মধ্যে ৪ জন বর্তমানে গ্রেপ্তার আছে। তারা হলো- মাহমুদুল ইসলাম, তার ভাই নজরুল ইসলাম ওরফে লাল মিয়া, সুনীল দাশ ও মিজানুর রহমান চৌধুরী। পলাতক দুই জনের মধ্যে রয়েছে হোসেন ওরফে সাগর ও মো. সেলিম।
বাদী পক্ষের আইনজীবী বিবেকানন্দ চৌধুরী বলেন, এই রায়ে আমরা খুশি। আশা করবো আদালত যত দ্রুত সম্ভব আসামিদের ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করবে।
পারিবারিক সূত্র জানায়, গত ২৯শে ফেব্রুয়ারি এই মামলার রায় ঘোষণা হওয়ার কথা থাকলেও তা করা হয়নি। রায়ের সময় পেছানোর পর গতকাল সকালে আদালত তা ঘোষণা করেন। সকাল থেকেই রায় ঘোষণার আগে আদালত প্রাঙ্গণে দেখা যায় মামলার বাদী হিমেলের মা শিক্ষিকা পাপিয়া সেনকে।
তিনি বলেন, আমার বুকের ধন যারা কেড়ে নিয়েছে তাদের উপযুক্ত শাস্তি হয়েছে। আদালতের প্রতি আমার আস্থা রয়েছে। মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিদের মধ্যে কিশোর হিমেলের দূর সম্পর্কের চাচা হয় সুনীল দাশ।
আদালত সূত্র জানায়, ২০১১ সালের ৮ই মে এসএসসি পরীক্ষার ফল ঘোষণার চারদিন আগে নিখোঁজ হয় চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র হিমেল। পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে মাহমুদুল ইসলাম ও তার ছোট ভাই নজরুল ইসলামের সঙ্গে বান্দরবানে বেড়াতে গিয়ে অপহৃত হয় সে।
ওই বছরের ১৩ই মে হিমেলের মা পাপিয়া সেন বাদী হয়ে ডবলমুরিং থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পরে তা মামলা হিসেবে দেখানো হয়। ১৪ই মে বান্দরবানের দুর্গম নাগাঝিরি পাহাড় থেকে নগরীর ডবলমুরিং থানা পুলিশ হিমেলের লাশ উদ্ধার করে।
ওই মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া দুই আসামি মাহমুদুল ইসলাম ও তার বড় ভাই নজরুল ইসলাম আদালতে জবানবন্দিতে জানান, হিমেলের চাচা সুনীল দাশের পরিকল্পনায় তাকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়েছে। সম্পত্তির লোভে সুনীল দাশ এ হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করেছিল।
৩০শে সেপ্টেম্বর ৬ জনকে আসামি করে এ মামলায় অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। ২০১২ সালের ২৭শে আগস্ট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৭, ৮/৩০ ও ৩০২, ২০১ ধারায় অভিযোগ গঠন করা হয়। অভিযোগপত্রে ১৫ জনকে সাক্ষী করা হয়।
নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালের পিপি জানান, মামলাটি রায় ঘোষণার জন্য প্রস্তুত না হওয়ায় তা স্থগিত করা হয়েছিল আগে। পরে আদালত ৯ই মার্চ রায় ঘোষণার সময় নির্ধারণ করেছেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া