adv
২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২২ ঘণ্টায় ১১০ জনের শয্যাসঙ্গিনী!

megan-220160121052135আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইংল্যান্ডের এক নারী ২২ ঘণ্টায় ১১০ জনের শয্যাসঙ্গিনী হয়েছেন। ১৪ বছর বয়সে মেগান স্টিফেন (ছদ্ম নাম) পাচারের শিকার হয়ে গ্রিসের পতিতালয়ে আশ্রয় পান। সেখানেই তার জীবনে এ দুঃখজনক ঘটনা ঘটে।

১৪ বছর বয়সে মায়ের সঙ্গে ইংল্যান্ডে থেকে গ্রিসে বেড়াতে যান মেগান। সেখানে আলবেনিয়ান যুবক জ্যাকের সঙ্গে মেগানের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। জ্যাক একটি বারে কাজ করতো। মেগান জ্যাকের বারে আসতো। জ্যাকের সঙ্গে মেগানের মেলামেশা তার মা ভালো চোখে দেখতেন না। তবু তিনি বাধা দিতে পারতেন না, কারণ ওই বারের মালিকের সঙ্গে মেগানের মায়েরও প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিলো। ধীরে ধীরে জ্যাকের সঙ্গে মেগানের সম্পর্কের গভীরতা বাড়ে।

এক সময় মেগানের মা থাইরয়েড ক্যান্সারে আক্রান্ত হন। মায়ের চিকিৎসার জন্য প্রচুর অর্থের প্রয়োজন ছিলো। সে কথা জ্যাক জানতো। একদিন জ্যাক তাকে এথেন্সের একটি ফ্ল্যাটে নিয়ে যায়। সেখানে মেগানকে খোলা বুকের বারে নাচের প্রস্তাব দেয় জ্যাক। মায়ের দিকে তাকিয়ে বারে নাচতে রাজি হয়ে যান মেগান। সেখান থেকে উপার্জিত সব টাকা মায়ের চিকিৎসায় খরচ করা হবে বলে বোঝায় জ্যাক। যখন তার মা বাড়ি ফিরে যায় তখন মেগান ভালোবাসার টানে জ্যাকের সঙ্গে থেকে যায়।

মেগানের মা চলে যাওয়ার দুসপ্তাহ পর জ্যাক তাকে একটি বার্গার বারে নিয়ে যায়। সেখানে লিয়ন নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়ে জ্যাক বলে, ইনি তোমার নতুন বস। সেকানে প্রথমে জ্যাকের সঙ্গে লিয়ন গ্রিক ভাষায় কথা বলে। তারপর লিয়ন জ্যাকের হাতে একটি চেক দেয়। মেগানের সঙ্গে লিয়ন ইংরেজিতে কথা বলে। তাকে জিজ্ঞাসা করে, ‘তুমি কি জান, তুমি কি করতে যাচ্ছ? তুমি জান না।’ তখন মেগান জ্যাকের দিকে তাকায়। জ্যাক বলে, ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি।’

এরপর জ্যাক তাকে একটি অফিস ভবনে নিয়ে গিয়ে তাকে উপরের তলায় যেতে বলে। সেখানে গিয়ে মেগান একজন আইনজীবীর অফিস দেখতে পান। আইনজীবী দরজা বন্ধ করে দিয়ে তাকে একটি বদ্ধ কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে একটি বিছানা ছিলো। পাশেই একটি ত্রিপায়ার উপর ভিডিও ক্যামেরা রাখা ছিলো।

মেগান বলেন, ‘আমি খুবই ভয় পাই, আমার মনে হয় সে আমাকে হয়তো হত্যা করতে চলেছে। আমি তাকে বোঝানোর চেষ্টা করি। আমি প্রতিবাদ করার চেষ্টা করি। কিন্তু ওই আইনজীবী আমাকে জড়িয়ে ধরে। আমার স্কার্ট ও প্যান্ট খুলে ফেলে। তারপর আমাকে জোর করে ধর্ষণ করে। সে আমাকে বার বার ধর্ষণ করে।’  

মেগান বলেন, ‘আমি আশা করেছিলাম জ্যাক কষ্ট পাবে এ ঘটনা শোনার পর। কিন্তু জ্যাক বলে, নতুন সংসার শুরু করার জন্য টাকা প্রয়োজন।’

মেগান তার মাকে ধর্ষণের ঘটনা মাকে জানানোর কথা বললে, জ্যাক ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। মেগানকে মোটরসাইকেলে চড়িয়ে শহরের বাইরে নিয়ে যায়। তারপর তাকে চুলের মুঠি ধরে আছাড় মারে। প্রচণ্ড নির্যাতন করে।

এরপর জ্যাক মেগানকে পতিতাবৃত্তিতে নামতে বাধ্য করে। শুরু হয় তার জীবনের করুণ কাহিনী। তখন মেগান সবেমাত্র জ্যাকের সঙ্গে সঙ্গম করতে শুরু করেছিলো। সে অবস্থায় মেগানকে দিনে ৮ থেকে ১০ জনের বিছানায় যেতে হতো। তাকে ভিন্ন হোটেলে পাঠাতে শুরু করে জ্যাক। এমনকি রাস্তায়ও পতিতাবৃত্তি করতে বাধ্য হতো মেগান। এক সময় তাকে প্রতিদিন প্রায় ৫০ জনের বিছানায় যেতে হতো।

মেগান তার তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা স্মরণ করে বলেন, ‘একদিন ২২ ঘণ্টায় ১১০ জনের বিছানায় যেতে হয়েছিলো। এভাবে কাজ করার ফলে আমি অসুস্থ হয়ে পড়ি। একদিন বুঝতে পারি আমি গর্ভবতী হয়ে পড়েছি। এ কথা জ্যাককে জানালে জ্যাক আমার পেটে জোরে লাথি মারে। এতে আমার গর্ভপাত হয়ে যায়।’

এথেন্সে ছয় মাস ও ইতালিতে ছোট একটি ট্রিপ দেওয়ার পর জ্যাক তাকে ইলেক নামের এক ব্যক্তির কাছে রেখে আলবেনিয়ায় নিজের বাড়িতে চলে যায়। শর্ত ছিলো ইলেক মেগানের আয়ের অর্ধেক টাকা জ্যাককে পাঠাবে আর অর্ধেক তাকে দেবে।

ইলেকের অধীনে কাজ করার সময় মেগান প্রতি পাঁচ মিনিটে এক জন করে খদ্দেরকে সময় দিতো। তার অধীনেই মেগান ২২ ঘণ্টায় ১১০জনের বিছানায় যায়। সেখানে মেগান সিফিলিস রোগে আক্রান্ত হয়। কারণ, অতিরিক্ত টাকার জন্য তাকে কনডম ছাড়া যৌনমিলন করতে বাধ্য করা হতো।

ছয় বছর ভয়ঙ্কর জীবন কাটানোর পর ২০০৯ সালে সেখান থেকে পালান মেগান। পালানোর পর তিনি আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। কিন্তু মায়ের প্রতি দায়িত্ববোধের কারণে আত্মহত্যাও করতে পারেননি। এরপর তিন মাস ধরে হাসপাতালে চিকিৎসা নেন মেগান। তখন মাকে ফোন করে তার জীবনের অন্ধকার সময়ের কথা জানিয়ে দেন। তবে ওই সময়গুলোতে তিনি খুব খারাপ সময় পার করলেও, মাকে বলতেন ভালোই আছেন- একটি ক্যাফেতে কাজ করছেন।

মেগানের বয়স যখন চার বছর, তখন তার মা-বাবা আলাদা হয়ে যান। তারা দুজনেই মদ্যপ ছিলেন। মা-বাবার বিচ্ছেদের কারণেই মেগানের জীবনে চরম দুর্ভোগ নেমে আসে।

লন্ডনে মায়ের সঙ্গে মিলিত হওয়ার পর, মেগান স্বাভাবিক জীবনযাপন শুরু করে। তিনি তার জীবন সঙ্গীও খুঁজে পেয়েছেন। তিনি এখন মা হওয়ার স্বপ্নে বিভোর। গর্ভবতী হওয়ার পর তার সঙ্গী তাকে খুবই যত্ন নিচ্ছেন। মেগান আশা করছে, স্বাভাবিকভাবেই তিনি বাচ্চার জন্ম দেবেন।

মেগান জানান, সামাজিক মাধ্যমে জ্যাক তার সঙ্গে আবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করছে। তবে নিরাপত্তার স্বার্থে মেগান তার ঠিকানা গোপন রেখেছেন। আর ভয়ে কোনো আইনি ঝামেলায় যাননি। 

মেগানের ধারণা, যা ঘটেছে, সবকিছু তার নিজের ভুলেই ঘটেছে। কারণ তিনি জ্যাকের প্রতি বাস্তবে ও মানসিকভাবে নির্ভরশীল হয়ে পড়েছিলেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া