adv
২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বেপরোয়া জীবন ছিলো এসআই মাসুদের

si_masud1452513552ডেস্ক রিপোর্ট :বাংলাদেশ ব্যাংকের জনসংযোগ বিভাগের সহকারী পরিচালক গোলাম রাব্বিকে নির্মমভাবে নির্যাতনের ঘটনায় মোহাম্মদপুর থানার উপপরিদর্শ ক (এসআই) মাসুদ শিকদারকে কেবল প্রত্যাহার নয়, তাকে পুলিশ বাহিনী থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের দাবি জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ।তারা মনে করছেন, পুলিশ বাহিনীতে এ ধরনের অসাধু কর্মকর্তা থাকলে পুলিশের ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষুণ্ণ হবে। তাই পুলিশের ভাবমূর্তি সমুন্নত রাখতে অবিলম্বে এসআই মাসুদকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত এবং গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন অনেকেই।
 
সোমবার রাজধানীতে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলে এসব মন্তব্য ও অভিমত পাওয়া গেছে।
 
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের ছাত্র আরিফ হোসেন বলেন, ‘পুলিশের এ ধরনের আচরণ কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। রাতের বেলায় পুলিশ যা ইচ্ছে তাই করে যাচ্ছে। দেখার কেউ নেই। অভিযোগ দিয়েও কোনো লাভ হয় না। তাই অনেকে ভয়ে অভিযোগই করেন না।’
একই বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেক শিক্ষার্থী স্বপ্না রানী বলেন, ‘পুলিশের অনেক কর্মকর্তাই আছেন, যারা ভালো কাজ করেন। ধামরাই থানার ওসির কথা বলেন তিনি। কীভাবে এলাকায় জনগণ ও পুলিশের মধ্যে সখ্য বজায় রেখে কাজ করে চলেছেন। দুই-একজন খারাপ পুলিশ সদস্যের জন্য সবাই দোষী হয়।’ এরকম তাদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তিনি।
 
এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান বলেন, ‘সাধারণ মানুষ রাতের ঢাকায় কী পরিমাণ হয়রানির শিকার হন, তার প্রমাণ গোলাম রাব্বি। এর আগে মিরপুর থানায় এসআই জাহিদের হাতে নির্যাতনে ঝুট ব্যবসায়ী মাহবুবুর রহমান সুজন নিহত হন। তারপর শেরেবাংলা নগর থানায় এক সিএনজি অটোরিকশা চালকের পায়ে পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করা হয়। এসব ঘটনার বিচার না হওয়ায় দিন দিন পুলিশের সদস্যরা এরকম কাজ করেই যাচ্ছেন। এসব ঘটনার সঙ্গে জড়িত কেউকে চাকরি থেকে বরখাস্ত কিংবা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা গেলে, ভবিষ্যতে এ ধরনের কাজ করতে অনেকে ভয় পেত।’
 
মোহাম্মদপুর থানার আরেক এসআই নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘এসআই মাসুদ শিকদার আগাগোড়াই একটা অসাধু লোক। মোহাম্মদপুর থানায় আসার পর থেকেই টাকার পাগল হয়ে যান। মানুষকে ধরে গাড়িতে করে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরিয়ে টাকা আদায় করতেন। কাউকে সহজে পরোয়া করতেন না। জুনিয়র পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে সবসময় খারাপ আচরণ করতেন।’
 
ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, ‘টাকা কামাইয়ের জন্য তিনি সবসময় রাতের বেলা ডিউটি নিতেন। সারাদিন ঘুমাতেন। সন্ধ্যা বেলায় থানায় আসতেন। তখন মনে হতো, ফুলেফেঁপে একটা প্রকাণ্ড আকারে কি যেন থানায় প্রবেশ করলো। থানায় অন্যান্য কর্মকর্তার সঙ্গে টাকা কামাইয়ের গল্প শেয়ার করতেন। তার সঙ্গে রাতে যারা ডিউটি পালন করেছেন, ওই সব পুলিশ ও আনসার সদস্যরাও টাকার ভাগ পেতেন। তবে তারা ভাগে খুবই সামান্য পেতেন।’
 
মোহাম্মদপুর থানা পুলিশের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কনস্টেবল জানান, এসআই মাসুদ শিকদার নিজেকে পুলিশের একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে মনে করতেন। তার কিছু হবে না বলে অপকর্মের পর মাঝে মধ্যেই দম্ভোক্তি করতেন। গোলাম রাব্বিকে নির্যাতনের ঘটনার পরও একইভাবে দম্ভোক্তি করে বলেন, আমি আমার জায়গাতে ঠিক আছি। কেউ আমাকে কিছু করতে পারবে না।
 
ওই কনস্টেবল আরো জানান, ‘এসআই মাসুদের বাড়ি ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলায়। এক বছর আগে তিনি মোহাম্মদপুর থানায় যোগদান করেন। কনস্টেবল হিসেবে পুলিশে যোগদান করা মাসুদ ডিপার্টমেন্টালি প্রমোশন পেয়ে এসআই হন। এর আগে ধানমণ্ডি ও কলাবাগান থানায়ও তিনি এসআই হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সেখানেও এসআই মাসুদ শিকদার এরকমই বেপরোয়াভাবে মানুষের কাছ থেকে টাকা আদায় করতেন।’
 
মোহাম্মদপুর থানার পাশে একজন পানাসিগারেট বিক্রেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘এসআই মাসুদ শিকদার তার দোকানে সিগারেটের বিল দিতেন প্রতি মাসে পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকা। কোনো কোনো মাসে এর চেয়েও বেশি। এতোবেশি সিগারেটের টাকা কোথা থেকে আসে- এ কথায় মাসুদ বলতেন, আরে ব্যাটা টাকার চিন্তা তোর করতে হইবো না। টাকা ঢাকার লোকজন পকেটে দিয়ে যায়।
 
প্রসঙ্গত, গত ৯ জানুয়ারি শনিবার রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর আসাদগেট এলাকা থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী পরিচালক পদে কর্মরত গোলাম রাব্বিকে আটক করে ইয়াবা ব্যবসায়ী-সেবনকারী বানানোর ভয় দেখিয়ে পাঁচ লাখ টাকা আদায়ের চেষ্টা করেন এসআই মাসুদ শিকদারসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য। এরপর তাকে রাত তিনটা পর্যন্ত তাকে নিয়ে মোহাম্মদপুরের বিভিন্ন রাস্তা ঘুরে বেড়ান। এমনকি তাকে বেড়িবাঁধে নিয়ে ক্রসফায়ারে হত্যার হুমকিও দেন। রোববার সকালে এ বিষয়ে মোহাম্মদপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন রাব্বি। এরপর সারাদেশে এ খবর ছড়িয়ে পড়লে আলোচিত হয় বিষয়টি। এরপর সোমবার সকালে এসআই মাসুদকে প্রত্যাহার করা হয়।
 
মাসুদকে প্রত্যাহারের বিষয়ে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার জানান, বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তা গোলাম রাব্বিকে নির্যাতনের অভিযোগে এসআই মাসুদকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। অপরাধ প্রমাণ হলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
 
এসআই মাসুদকে নিয়ে যখন সাংবাদিক ও পুলিশের মধ্যে ব্যাপক তোলপাড় হচ্ছে, ঠিক সে সময়ে ডিএমপির গণমাধ্যম শাখাকে নিষ্ক্রিয় ভূমিকা পালন করতে দেখা গেছে। এর আগে এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটলে গণমাধ্যম শাখা তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতেন সাংবাদিকদের। কিন্তু এ ঘটনার বেলায় তেমন কোনো সহযোগিতা পাওয়া যায়নি। জানতে চাইলেই বলা হয়েছে, এ বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।
 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া