adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মেসি ম্যাজিকে শীর্ষে ফিরল বার্সা

messi-17v1.thumbnail_98009 স্পোর্টস ডেস্ক :স্প্যানিশ লা লিগায় গ্রানাডার বিপক্ষে মেসি ম্যাজিকে ৪-০ গোলে উড়ে গেছে গ্রানাডা। তিন গোল করে দলকে টেবিলের শীর্ষে ফিরিয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকা। অন্যটি নেইমারের।নিজেদের মাঠে ফরওয়ার্ড লাইনে নেইমার-সুয়ারেজ আর সেন্টারে মেসিকে রেখে শুরু থেকে মুর্হূমুহু আক্রমণ গড়ে তোলে এনরিকের ছেলেরা। ৮ মিনিটের মাথায়ই এগিয়ে যায় তারা। বাঁ দিকের আউটসাইড মিডফিল্ডার তুরানকে দারুণ একটি বুদ্ধিদীপ্ত পাস দেন সুয়ারেজ। তুরানও কম যান না। মেসিকে বল সাজিয়ে দিতে এতটুকু ভুল হয়নি তার। দুই সতীর্থের এমন ‘উপহার’ মেসিও হেলায় হারাননি। দলকে এগিয়ে দেন।

এই ম্যাচ শেষে ১৮ ম্যাচে বার্সার পয়েন্ট ৪২। সমানসংখ্যক ম্যাচ খেলে দ্বিতীয় স্থানে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। তাদের পয়েন্ট ৪১।

শনিবার রাতের দ্বিতীয় গোলটি নেইমার-সুয়ারেজ-মেসির চোখজুড়ানো আক্রমণের ফসল। ১৪তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে ডান দিকে বক্সের খানিকটা সামনে সুয়ারেজকে বল দেন নেইমার। লাফিয়ে ওঠা বলে পা লাগিয়ে মেসির দিকে ঠেলে দেন সুয়ারেজ। তিনজনের অবস্থান এই সময় ত্রিভুজ আকৃতির। দুই দিকে নেইমার-সুয়ারেজ। বক্সের ভেতর উপরে মেসি। বল ধরেই দ্বিতীয় গোল করেন আর্জেন্টাইন তারকা।

২৭তম মিনিটে সহজ একটি গোলের সুযোগ নষ্ট করেন সুয়ারেজ। বক্সের ঠিক বাইরে বসে নেইমারের সঙ্গে ওয়ান-টু-ওয়ান খেলে ঢুকে পড়েন উরুগুয়ের তারকা। আগুয়ান গোলরক্ষককে বিটও করেন। কিন্তু ফাঁকা গোলে বল ঠেলতে যেয়ে বাইরে মারেন!

৩১তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ হাতছাড়া করেন মেসি। কাউন্টার অ্যাটাক থেকে ভিদাল বক্সের ভেতর তাকে বল দেন। মেসি দ্বিতীয় পোস্টে বল প্লেস করতে পারলেই হতো। কিন্তু গোলরক্ষকের হাতে মারেন।

প্রথমার্ধের শুরুতে গ্রানাডা এতটুকু সমীহ করেনি বার্সাকে। তারাও ৪-৩-৩ পজিশনে খেলা শুরু করে। কিন্তু বেশিক্ষণ এই ফর্মেশন ধরে রাখতে পারেনি দলটি। নেইমার-সুয়ারেজ-মেসি স্রোতের বেগে আক্রমণ গড়তে থাকে। বাধ্য হয়ে রক্ষণে শক্তি বাড়াতে হয় কোচ স্যানডোভালকে। কিন্তু ততক্ষণে দুই গোল হজম! প্রথমার্ধে গোল হতে পারত আরো বেশি। নেইমার-সুয়ারেজ-মেসির ‘সহজ ভুলে’ মান বাঁচিয়ে টানেলে ফেরে দলটি। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে কিন্তু বার্সার আক্রমণের স্রোতে কিছুটা ভাটা পড়ে। স্যানডোভাল এসময় অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার কিরহিনকে উঠিয়ে স্প্যানিশ ডিফেন্ডার মাইনজকে নামান। গ্রানাডা মাঝমাঠের উপরে বার্সার তিন মিডফিল্ডারকে (তুরান, রাকিটিচ, রবের্তো) মার্ক করে খেলতে থাকে। চকিতে কয়েকটি বল কেড়ে নিয়ে আক্রমণেও যায়। কিন্তু ফিনিশিং হয়নি।

এর মাঝে ৫৮ মিনিটের সময় ‘ক্ষণিকের ভুলে’ ফের পিছিয়ে পড়ে অতিথিরা। বছরের প্রথম হ্যাট্রিক পেয়ে যান মেসি। বক্সের ঠিক বাঁ দিক থেকে নেইমার যখন বলে যান, তখন তাকে আটকানোর চেষ্টা করেননি গ্রানাডার ডিফেন্ডাররা। নেইমার প্রথম পোস্টে বল রাখেন। গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে বল লাগে বারে। বক্সের ঠিক মাঝে পজিশন নেয়া সুযোগ-সন্ধানী মেসির ফিরতি বল জালে পাঠাতে এতটুকু ভুল হয়নি। তিন গোলে পিছিয়ে পড়ে ম্যাচে ফেরার আশা বাদ দেয় গ্রানাডা। অথচ দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে তাদের ম্যাচে ফেরার চেষ্টা ছিল চোখে পড়ার মতো। ব্যবধান বেড়ে যাওয়ায় মাঝমাঠের ব্লকিং বাদ দিয়ে শতভাগ ডিফেন্সিভ পজিশন নেয় স্যানডোভালের ছেলেরা।

এগিয়ে থাকার স্বস্তিতে এনরিকে সাইডবেঞ্চ ঝালিয়ে নেন। তুরানকে উঠিয়ে আদ্রিয়ানোকে নামান।

গোল হজমের সংখ্যা কমানোর প্রাণপণ চেষ্টা করেও পারেনি গ্রানাডা। নির্ধারিত সময়ের মিনিট সাতেক আগে মেসি-সুয়ারেজের ‘উপহার’ দেয়া বল জালে পাঠান নেইমার। মেসি ডান দিক থেকে ড্রিবলিংয়ে কাট করে ভেতরে ঢোকেন। এসময় বিভ্রান্তিকরভাবে পজিশন পরিবর্তন করে (ডামি) বল ধরেন সুয়ারেজ। সময় নষ্ট না করে বল দিয়ে দেন নেইমারকে। দৃষ্টিনন্দন চিপে ৪-০ করেন ব্রাজিলের পোস্টারবয়। বাকি সময়টুকু কোনোমতে পার করে ক্যাম্প ন্যু ছাড়ে অতিথিরা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া