adv
২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লংগার ভার্সনের বিসিএল ১২ জানুয়ারী থেকে মাঠে গড়ানোর ঘোষনা

BCL logo20140106212942জহির ভূইয়া ঃ ক্রিকেট বোর্ড নতুন বছরে বিসিএল দিয়ে ঘরোয়া মৌসুম শুরু করতে যাচ্ছে। এ ঘোষনা দিতেই আজ মিরপুর স্টেডিয়ামের সংবাদ সম্মেলন রুমে আয়োজন করা হয় আনুষ্ঠানিক ঘোষনা পর্ব। তাতে উপস্থিত ছিলেন ক্রিকেট বোর্ডের টুর্নামেন্ট কমিটির প্রধান আকরাম খান ও সিইও নিজাম উদ্দিন সুজন।
১২ জানুয়ারি থেকে বিসিএলের চতুর্থ রাউন্ড মাঠে গড়াবে। গত আসরটি একদিনের ম্যাচ করা হলেও এবার লংগার ভার্সনের টুর্নামেন্ট শুরু করছি-ঘোষনা দিলেন আকরাম খান। টুর্নামেন্ট শেষ হতে ৪০-৪৫ দিন লাগবে বলে জানালেন। বলেন,“আগের বিরতি ছিল দুদিন। এবার তিনদিন করা হয়েছে। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপের জন্যে বগুড়া ও রাজশাহীতে খেলা হবে।” 
ইষ্ট জোন কি নিজেদের মত করে টিম সাজাচ্ছে? জবাবে আকরাম খান বলেন,“আমাকে অযথাই এখানে জড়ানো হচ্ছে। আমার এখানে ব্যক্তিগত কোনো স্বার্থ নেই। কারণ আমি তো ইসলামী ব্যাংকে চাকুরি করি না। ঘটনা হয়েছে, এ দলটি কিন্তু নির্বাচকরা করেছে। লিটন দাসের কথাই যদি বলি গতবার কোনো দল না পাওয়ার কারণে নির্বাচকরা তাকে ইসলামী ব্যাংকে খেলতে দিয়েছিল। এবার যখন ওর পারফরম্যান্স ভালো হয়েছে ফ্রাঞ্চাইজির কিছু খেলোয়াড় জাতীয় দলে চলে যাওয়াতে এ ধরণে ঘটনা ঘটছে। এগুলো হতে থাকলে সিস্টেম ভুল হয়ে যাবে। বোর্ড কিন্তু একটি পলিসি করেছিল, কোনো ফ্রাঞ্চাইজিং কিংবা জাতীয় লিগে কোনো বিভাগ যদি কোনো ক্রিকেটারকে ছেড়ে দেয়, তাহলে ওই ক্রিকেটার অন্য কোনো দলে খেলার সুযোগ পাবে।
গতবার যারা খেলেছে তারাই কিন্তু এবার একই দলে খেলছে। ফ্রাঞ্চইজি এর আগের বার ছেড়ে দিয়েছে বলেই কিন্তু ওরা অন্য দলে খেলেছে। তখন সমঝোতার মধ্যেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। এখন দেখা যাচ্ছে খুলনা ও রাজশাহীতে প্রচুর ক্রিকেটার আছে। অন্যদলগুলোর সঙ্গে ওদের ব্যালেন্স করে দেওয়ার জন্যেই কিন্তু ওদের দল ঠিক করে দিয়েছে। আমরা এভাবেই যাচ্ছি। আগে যেটা ছিল ওটাই স্টান্ডার্ড ছিল। লিটন দাসকে কিন্তু কিছুদিন আগেও চাওয়া হয়নি। কিন্তু এখন ওকে চাওয়া হচ্ছে। দুই বছর আগেও ওকে কেউ চায়নি। এরকম জাতীয় লিগেও হয়েছে। ঢাকার কিছু খেলোয়াড় সুযোগ পাচ্ছিল না বলে ওদের বরিশালে দেওয়া হয়েছে। এ জন্যে বোর্ড পলিসিতে চলে এসেছে যে জাতীয় লিগে যেই ডিভিশনে খেলবে সেখানেই রিপ্রেসেন্ট করবে।”
এখনো টাইটেল স্পনসর হয়নি। চেস্টা চলছে। বলে জানালেন আকরাম খান। তিনি বলেন,“এখন একটা প্রতিভাবান ক্রিকেটারকে যদি কোনো দল না নেয় তাহলে তার ভবিষ্যত কি। সে তো কোনো দলে খেলার সুযোগ পাবে না। এজন্য নির্বাচকরা দল ঠিক করে দিচ্ছে। আর দলে জায়গা না পেলে আরেক দলে দিয়ে দিচ্ছে। মুশফিক যেখানে থাকে সেখানে আরেকজন কিপার থাকা কিন্তু অনর্থক। তাকে তাই অন্য দলে দিয়ে দেন নির্বাচকরা। ক্রিকেটের স্বার্থেই কিন্তু এটা করা। আর বিসিএলে যেই ৮০টি ক্রিকেটার আছে তারা প্রত্যেকেই কিন্তু ভালো।”
ওয়ালটন প্রসঙ্গে আকরাম খান জানান,“ওয়ালটন চিঠি দিয়েছে। আপনি ২০ জন ক্রিকেটাররের মধ্যে সর্বোচ্চ ১৫ ক্রিকেটারকেই নিতে পারবেন। বাকি পাঁচ ক্রিকেটারের কি হবে। আমরা বিসিএল করছি কি জন্যে। টপ ৮০ ক্রিকেটার যারা আছে তারা যেন পারফর্ম করে বাংলাদেশ দলে আসতে পারে। সুযোগটি তারা পায়। দায়িত্ব তো আমাদেরও আছে যে ভালো ক্রিকেটারকে সুযোগ দেওয়া।  একটা দলে তিনটি ভালো উইকেটকিপার থাকে কিংবা স্পিনার থাকে সেখান থেকে অন্য দলে এক-দুইজনকে দিতেই হবে। তা না হলে তো ওদের পারফরম্যান্স কাউন্ট করতে পারবেন না। আপনি ক্রিকেটের স্বার্থেই এটা মানতে হবে। ফ্রাঞ্চাইজিরা কিন্তু এতে সম্মত হয়েছে।”
ম্যাচ ফি ৪০০০০
ম্যান অব দ্যা ম্যাচ ২৫০০০০
ডিএ ২০০০
চ্যাম্পিয়ন ২৫ লাখ
রানার্সআপ ১৫ লাখ
ম্যান অব দ্যা টুর্নামেন্ট ১ লাখ
উইনিং বোনাস ১ লাখ

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া