adv
২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পৌরসভা নির্বাচন ৩০ ডিসেম্বর

EC-newsডেস্ক রিপোর্ট : ২৩৬টি পৌরসভার নির্বাচন আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। সোমবার কমিশন বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে মঙ্গলবার তফসিল ঘোষণা করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন নির্বাচন কমিশনার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
দিন নির্ধারণের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ শাহ নেওয়াজ বলেন, ‘বৈঠকের মাঝপথে আমি চলে এসেছি। তবে এই রকম কিছু (৩০ নভেম্বর) একটা হওয়ার কথা।’
নির্বাচন কমিশন সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘নির্বাচনের বিষয়ে এখন কিছু বলা যাবে না। মঙ্গলবার তফসিল ঘোষণা করা হবে। তখনই সব জানতে পারবেন।’
নির্বাচন একধাপে হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘একধাপে করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।’
পৌরসভা নির্বাচনে শুধুমাত্র মেয়রদের দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করার বিধান রেখে ‘স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) (সংশোধন) বিল-২০১৫’ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে।
দশম সংসদের অষ্টম অধিবেশনে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনের প্রস্তাবিত বিলটি কণ্ঠভোটে পাস হয়।
এর আগে বিলটির ওপর জনমত যাচাই ও বাছাই কমিটিতে পাঠানোর প্রস্তাব উত্থাপন করা হলেও তা নাকচ হয়ে যায়। এ সংক্রান্ত প্রস্তাব উত্থাপন করেন বিরোধী দল জাতীয় পার্টির নূরুল ইসলাম ওমর, ফখরুল ইমাম, সেলিম উদ্দিন, আব্দুল মতিন, পীর ফজলুর রহমান ও নূরুল ইসলাম মিলন এবং স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ডা. রুস্তম আলী ফরাজী ও হাজী মো. সেলিম।
পাস হওয়া বিল অনুযায়ী পৌরসভার মেয়র প্রার্থীরা নিজ নিজ দলীয় প্রতীক বরাদ্দ পাবেন। আর কাউন্সিলর প্রার্থীদের আগের মতোই প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে।
বিলটি পাসের আগে মেয়র পদে দলীয় প্রতীকের পাশাপাশি কাউন্সিলর পদেও দলীয় প্রতীক বরাদ্দ দেওয়ার বিধান অন্তর্ভুক্ত করতে সংশোধনী প্রস্তাব জমা দেন সরকারের শরীক দল ওয়ার্কার্স পার্টির সংসদ সদস্যরা। পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, এ্যাডভোটেক মুস্তফা লুৎফুল্লাহ ও টিপু সুলতান পৃথকভাবে এই সংশোধনী প্রস্তাব উত্থাপন করলে তা কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়। তবে সরকারি দলের সদস্যদের উত্থাপিত কয়েকটি সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।
বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সংবলিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ সরাসরি ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে। প্রতিটি নির্বাচনই উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। এ সব নির্বাচন নির্দলীয়ভাবে হলেও বাস্তবে প্রতিটি দলই প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে দলীয় ব্যক্তিকে প্রার্থী হিসেবে সমর্থন দিয়ে থাকে। এই প্রেক্ষাপটে দীর্ঘদিন থেকে জনগণ ও জনপ্রতিনিধিরা রাজনৈতিক পরিচয়ে স্থানীয় সরকার নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। জনগণের প্রত্যাশাকে গুরুত্ব দিয়ে এবং জনপ্রতিনিধিদের রাজনৈতিক অঙ্গীকার পালনের সুযোগ দিতে এই বিল আনা হয়েছে।
উল্লেখ্য, সংসদে পাস হওয়া বিলটি রাষ্ট্রপতি অনুমোদন করলে তা আইনে পরিণত হবে। এরপর গত ২ নভেম্বর পৌর আইন সংশোধন করে রাষ্ট্রপতির জারি করা অধ্যাদেশ বাতিল হয়ে যাবে।
গত ১৫ নভেম্বর জাতীয় সংসদে বহুল আলোচিত এই বিলটি উত্থাপনের পর তা অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়। গত বুধবার বিলটি পাসের সুপারিশ করে সংসদে প্রতিবেদন জমা দেয় সংসদীয় কমিটি। দ্য রিপোর্ট

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2015
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া