adv
২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পুরনো আইনের ইস্যু নিয়ে প্রধান বিচারপতি-অর্থমন্ত্রী মতপার্থক্য

MUHITডেস্ক রিপোর্ট : পুরনো আইনে আয়কর, কাস্টমস চলছে বলে ব্যবসায়ীদের করা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তবে ব্যবসায়ীদের এ অভিযোগের প্রতি একমত প্রকাশ করেছেন প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা।
১৯৬৯ সালের কাস্টমস আইনের সংশোধন নিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত মঙ্গলবারের এক সেমিনারে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার সঙ্গে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের বক্তব্যে এ মতপার্থক্য দেখা দেয়। রাজধানীর একটি হোটেলে এ দিন সন্ধ্যায় ‘রাজস্ব মামলা ব্যবস্থাপনা ও বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির (এডিআর) কার্যকারিতা’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা। বিশেষ অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, সাবেক আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ, এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও এফবিসিসিআই সভাপতি মাতলুব আহমাদ।

সেমিনারে প্রশ্নোত্তর পর্বে বিজিএমইএ’র পরিচালক মনির হোসেন বলেন, ‘কাস্টমস আইন ১৯৬৯ সালে প্রণয়ন করা হয়েছে। অথচ গার্মেন্টস ব্যবসা এর অনেক বছর পরে শুরু হয়েছে। এই পুরনো আইনে এডিআরের মাধ্যমে রাজস্ব মামলা নিষ্পত্তি করা কি সম্ভব?’

এর জবাবে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘কথাটি মোটেও সত্যি নয়। কাস্টমস আইনটি ১৯৬৯ সালের হতে পারে। কিন্তু প্রতিবছর বাজেটে অর্থবিলের মাধ্যমে আইনের সংশোধন করা হয়। আমরা পুরনো আইন দ্বারা পরিচালিত নই।’
এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এটা আপনারা জানেন না। ভালো করে শিখে নিবেন।’

পরবর্তী সময়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা বলেন, ‘আমি প্রশ্নকর্তার সাথে শতভাগ একমত। আমরা এখনও মরিচা ধরা আইনগুলোকে ঘঁষামাজা করে কোনো মতে চলছি। এটা এমনভাবে ঘঁষামাজা করা হচ্ছে যাতে মৌলিকত্ব থাকছে না। এগুলোকে আবার নতুনভাবে করতে হবে। এ জন্য আইন কমিশনকে শক্তিশালী করতে হবে।’
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ‘এডিআর থেকে যাতে দুর্নীতির উদ্ভব না হয়। দেশে নতুন যাই হোক না কেন তার ভেতরে দুর্নীতি করার প্রবণতা থাকে। এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘বিশেষ ব্যবসায়ীদের কাজ সরকারের টাকা আটকে রাখা।’ উদাহরণ হিসেবে তিনি মোবাইল অপারেটরদের একটি মামলার কথা বলেন। যাতে ৭২০ কোটি টাকা রাজস্ব আটকে ছিল।

তিনি আরও বলেন, ‘১৯৮৮ সালে অতিরিক্ত এটর্নি জেনারেলের দায়িত্ব পালন করেছি। ওই সময় এনবিআরের দুই অফিসার রাজস্ব মামলা নিষ্পত্তি করতে বারবার তাগাদা দিতো। ফলে ওই সময় রাজস্ব মামলার পরিমাণ কম ছিল। গত ৭ বছর যাবৎ এটর্নি জেনারেল হিসেবে কর্মরত থাকলেও রাজস্ব মামলা নিষ্পত্তিতে এনবিআর থেকে কেউ তাগাদা দেয়নি।’

রাজস্ব মামলা নিষ্পত্তিতে এনবিআরের নিয়োগ দেওয়া রিটেইনারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘মামলা নিষ্পত্তিতে এনবিআর তিনজন রিটেইনার নিয়োগ দিয়েছে। অথচ তাদের একজনকেও রাষ্ট্রপরে আইনজীবীদের অফিসে দেখা যায়নি।’ স্বচ্ছতার ভিত্তিতে রাষ্ট্রপরে আইনজীবীদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে রিটেইনার নিয়োগ দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

এর পরিপ্রেেিত অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এসব রিটেইনারকে বিদায় করা উচিত। এমন লোক নিয়োগ দিতে হবে যারা প্রতিদিন রাষ্ট্রপরে আইনজীবীদের সাথে দেখা করে মামলা খোঁজখবর নিবে।’ এ ছাড়া হাইকোর্টে রাজস্ব মামলা সংক্রান্ত আলাদা সেল অথবা এনবিআরের প্রতিনিধিদের আদালতে উপস্থিত থাকারও নির্দেশনা দেন তিনি।

সাবেক আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ বলেন, ‘আইন করে রাজস্ব মামলা এডিআরে পাঠাতে পারলে ৭০ শতাংশ মামলা কমে আসবে। এডিআর কার্যকরী করতে পারলে মামলা চাপ কমবে। রাজস্ব আদায় বাড়বে।’

এফবিসিসিআই সভাপতি মাতলুব আহমাদ বলেন, ‘ব্যাংকের ৫৭ হাজার কোটি টাকা ঋণ, রাজস্ব মামলার ৩০ হাজার কোটি টাকা ব্যবসায়ীদের কাঁধে ক্যান্সারের মতো বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ দুই ক্যান্সার দূর করতে না পারলে ব্যবসায়ীরা দেশকে উন্নত দেশের কাতারে সামিল করতে পারবেন না।’
তিনি বলেন, ‘এডিআরে সহায়তাকারী হিসেবে আয়কর বিভাগের কর্মকর্তাকেই রাখা হচ্ছে। যাদের কোনো এক কর্মকর্তাই আয়কর ফাইল এসেসমেন্ট করে দাবি উত্থাপন করছেন।’ তাই এডিআরে উভয়পরে সহায়তাকারী রাখার বিধান রেখে আইন প্রণয়নের দাবি জানান তিনি।
আইন সহজ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘১০ জন লোক লাগে রিটার্ন পূরণ করতে। নিজের ট্যাক্স নিজে দিতে পারি না।’

সেমিনারে জানানো হয়, বর্তমানে ২৪ হাজার ৫৭২টি রাজস্ব মামলার বিপরীতে ৩০ হাজার ৯৪৬ কোটি টাকা আটকে রয়েছে। এগুলোর মধ্যে শুল্ক খাতে ১৭ হাজার ৪৭০ মামলার বিপরীতে ৪ হাজার ৮২৫ কোটি টাকা, আয়কর খাতে ৩ হাজার ২২৬ মামলার বিপরীতে ৮ হাজার ১৮২ কোটি টাকা এবং ভ্যাটে ৩ হাজার ২২৬ মামলার বিপরীতে ১৭ হাজার ৯৩৮ কোটি টাকা আটকে রয়েছে। শুরু থেকে এ পর্যন্ত ৫১৮টি মামলা এডিআরের মাধ্যমে সমাধান করা হয়েছে। এ থেকে আদায় করা হয়েছে ১১৯ কোটি ৯৪ লাখ টাকা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2015
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া