adv
২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নেইমারে জাদুতে বার্সার আরেকটি জয়

Barcelona+02স্পোর্টস ডেস্ক : গোল করেই চলছেন নেইমার, আর তার সঙ্গে তাল মেলাচ্ছেন লুইস সুয়ারেস। চোটে পড়া লিওনেল মেসিকে ছাড়াই তাই দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে বার্সেলোনা। স্পেনের শীর্ষ এই দলের গত কয়েকটি ম্যাচের ফল এমনই। এই দুই তারকা ফরোয়ার্ডের গোলে লা লিগায় এবার ভিয়ারিয়ালকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে লুইস এনরিকের দল।

গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর দ্বিতীয়ার্ধের ১৫তম মিনিটে বার্সেলোনাকে এগিয়ে দেওয়ার পর শেষের দিকে মৌসুমের অন্যতম সেরা গোলটি করেন নেইমার। মাঝে পেনাল্টি থেকে ব্যবধানন দ্বিগুণ করেছিলেন সুয়ারেস।

নিজেদের মাঠে রোববার ম্যাচের ২০তম মিনিটে প্রথম সত্যিকারের সুযোগটি পেয়েছিল বার্সেলোনা। সুয়ারেসের ক্রস ডিফেন্ডাররা পুরোপুরি বিপদমুক্ত করতে না পারায় বল পেয়ে যান দানি আলভেস। তার জোরালো শট জোনাথান দস সান্তোসের গায়ে লাগে।
৩৭তম মিনিটে আচমকা শটে সুযোগ নিতে চেয়েছিলেন ভিয়ারিয়ালের স্ট্রাইকার রবের্তো সলদাদো। ২৫ গজ দূর থেকে নেওয়া তার শট অল্পের জন্য ল্েয থাকেনি।

বার্সেলোনার রণের ভুলে ৪৪তম মিনিটে দারুণ একটি সুযোগ পেয়ে যায় ভিয়ারিয়াল। ছুটে আসা কাওদিও ব্রাভোর মাথার ওপর দিয়ে বল পাঠিয়ে দিলেই চলতো সামু কাস্তিয়েহোর। তবে চিলির গোলরকের দৃঢ়তায় গোল হজম করা থেকে বেঁচে যায় স্বাগতিকরা। 

বিরতির পরই ফ্রি-কিকের দাবিতে রেফারিকে চাপ দিয়ে হলুদ কার্ড দেখেন নেইমার আর সুয়ারেস। ৭৪ হাজার ১০৯ দর্শকে ভরা কাম্প নউয়ের চারদিকে তখন বিদ্রুপ ধ্বনি।

পরের মিনিটেই অবশ্য এগিয়ে যেতে পারত স্বাগতিকরা। নেইমারের দারুণ ক্রসে মুনির এল হাদ্দাদি মাথা লাগাতে না পারলেও বল পেয়ে যান আলভেস। ব্রাজিলের এই ডিফেন্ডারের ভলি কর্নারের বিনিময়ে কোনোমতে রা করেন গোলরক।

খেলার আয়ু যখন ঘণ্টা ছুঁই ছুঁই, কাম্প নউয়ের গ্যালারি যখন একটু অস্থির, তখনই শুরু নেইমারের জাদু। ৬০তম মিনিটে দারুণ এক গোলে দর্শকদের সুর পাল্টে দেন ব্রাজিলের এই তারকা ফরোয়ার্ড।

আগের ম্যাচে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বাতে বরিসভকে হারাতে নেইমার দুই আর সুয়ারেস এক গোল করলেও কোচ এনরিকে আলাদা করে প্রশংসা করেছিলেন সের্হিও বুসকেতসের। পরের ম্যাচেই প্রতিদান দিলেন এই মিডফিল্ডার। প্রতিপরে এক খেলোয়াড়ের পাস ধরে ডি-বক্সে দারুণভাবে বল বাড়ান তিনি। বাঁ পায়ের শটে গোলরককে পরাস্ত করতে মোটেও বেগ পেতে হয়নি নিজের সেরা ফর্মে থাকা নেইমারের।
১০ মিনিট পরই পেনাল্টি থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সুয়ারেস। ডি-বক্সে মুনিরকে শুয়ে পড়ে ট্যাকল করে হলুদ কার্ড দেখেন হুয়ামে কস্তা, রেফারি বাজান পেনাল্টির বাঁশিও।

৭৮তম মিনিটে সুয়ারেসের আচমকা শট শুয়ে পড়ে ঠেকান গোলরক। তিন মিনিট পর নেইমারের নিচু ক্রস থেকে বল পেয়েও ল্যভ্রষ্ট শট নেন অনেকটা ফাঁকায় দাঁড়ানো সের্হিও রবের্তো।

তবে নেইমার চমকের তখনও আরও বাকি। ৮৫তম মিনিটে সুয়ারেসের সঙ্গে বল দেওয়া নেওয়া করে করলেন অবিশ্বাস্য এক গোল। মাঝমাঠে বল পেয়ে নেইমার তা দিয়েছিলেন আক্রমণের সঙ্গীকে। সুয়ারেস বাঁ দিকে এগিয়ে ক্রস বাড়ালেন ডি-বক্সে। পেট দিয়ে বল থামিয়ে ডান পায়ে ফিক করে ওপরে একটু তুলে এক ডিফেন্ডারকে ফাঁকি দিয়ে ৩৬০ ডিগ্রি ঘুরে ওই পায়ের ভলিতেই নেইমার করলেন দর্শনীয় এক গোল।

এ মৌসুমে লা লিগায় ব্রাজিল তারকার গোল হলো সর্বোচ্চ ১১টি।

যোগ করা সময়ে ডি-বক্সের ভেতর থেকে ল্যভ্রষ্ট শট না নিলে উরুগুয়ের ফরোয়ার্ড সুয়ারেসও হতে পারতেন নেইমারের মতো জোড়া গোলের মালিক। তাতে অবশ্য স্টেডিয়ামে উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়া দর্শকদের কিছু যায় আসে না। লিগের পরের ম্যাচটি সবচেয়ে বড় প্রতিপ রিয়ার মাদ্রিদের সান্তিয়াগো বার্নাবেউয়ে। সেই ম্যাচের আগে দলের এই অদম্য রূপ দেখে শিরোপা ধরে রাখার আশা ভালোমতোই করতে পারে সমর্থকরা।

এই জয়ে টিকে থাকল লিগে এ মৌসুমে নিজেদের মাটিতে বার্সেলোনার শতভাগ জয়ের রেকর্ডও।

১১ ম্যাচে বার্সেলোনার পয়েন্ট ২৭। পরের ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদ না জিতলে এ রাউন্ড শেষে শীর্ষে থেকে যাবে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরাই।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2015
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া