adv
৯ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘রাজনৈতিক সংকটের কারণ সরকারকে উপলব্ধি করতে হবে’

Khaleda_0নিজস্ব প্রতিবেদক : তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে সরকার ‘রাজনৈতিক সংকটের সূচনা’ করেছে- দাবি করে সময় থাকতে তা উত্তরণের উপায় বের করার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।
 
সংকট ক্রমেই গভীর থেকে গভীরতর হয়ে পড়ছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘অবাধ-
নিরপেক্ষ ও সকল দলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিলের পর থেকেই, দেশে রাজনৈতিক সংকটের সূচনা। সরকারকে উপলব্ধি করতে হবে বর্তমান রাজনৈতিক সংকটের কারণ। এ সংকট উত্তরণে সরকারকে সময় থাকতেই এর উপায় বের করতে হবে।’
 
বৃহস্পতিবার রাতে দলের মুখপাত্র আসাদুজ্জামান রিপন স্বারিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ কথা বলেন।
 
খালেদা জিয়া বলেন, ‘আমাদের দল মনে করে একটি
নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অনতিবিলম্বে একটি নির্বাচনের আয়োজন এখন জরুরি। আমরা আশা করবো- সরকার শুভবুদ্ধির পরিচয় দিয়ে, দেশের এই ক্রান্তিকালে সংকট উত্তরণে গণতন্ত্র বিকাশের ক্ষেত্রকে সংকোচন না করে, কর্তৃত্ববাদী মনোভাব থেকে সরে এসে, একটি জাতীয় সংলাপের সূচনার পরিবেশ উন্মুক্ত করবেন দেশ ও জাতির স্বার্থেই।’
 
বিএনপি নেত্রী বলেন, ‘জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেওয়া, গণমাধ্যমকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দেওয়া, সকল পর্যায়ে বিচার ব্যবস্থায় স্বাধীন বিবেচনাবোধে কাজ করতে উৎসাহিত করা, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে বাধা না দেওয়া, নির্বাচন কমিশনকে নিরপে ব্যক্তিদের সমন্বয়ে পুনর্গঠন, গ্রেফতার হওয়া রাজবন্দিদের মুক্তি দেওয়া এবং মিথ্যা মামলা তুলে নিয়ে রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক চরিত্রকে ফিরিয়ে দিতে হবে।’
 
দেশ আজ গভীর সংকটে নিপতিত মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এখানে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা নেই। ঘরে বাইরে এখন কেউই নিরাপদ বোধ করছেন না। চারদিকে আতংক, উৎকণ্ঠা ও উদ্বেগ গোটা জাতিকে গ্রাস করেছে, যেন সামনে ঘোর অন্ধকার!’
 
সরকার অবনতিশীল আইন পরিস্থিতির উন্নতিতে উপযুক্ত পদপে না নিয়ে, উল্টো বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের ধরপাকড়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে- বলে অভিযোগ করেন বিএনপি চেয়ারপারসন।
 
দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের কারাগারে বন্দি রাখা সরকারের দূরভিসন্ধি রয়েছে- মন্তব্য করে বিএনপি প্রধান বলেন, ‘যখন সারাদেশে তৃণমূল পর্যায় থেকে কাউন্সিল করে দলকে পুনর্গঠনের উদ্যোগ নিয়েছি, তার পরপরই সারাদেশে দলের নেতা-কর্মীদের বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার করা হচ্ছে। সরকারের এ ধরনের দমন-নিপীড়ন  থেকে দলের বয়োজ্যেষ্ঠ নেতারাও বাদ পড়ছেন না।’
 
সরকার হিংসাশ্রয়ী রাজনীতির চর্চা করে দেশের সকল বিরুদ্ধমতকে দমনে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলেও অভিযোগ করেন প্রাক্তন এই প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘শুধু বিএনপিই নয়, নাগরিক সমাজ, অন্যান্য প্রতিষ্ঠান-ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থার বিরুদ্ধেও সরকার
ক্ষুুব্ধ। এমন কি সরকারি রোষানলের বাইরে গণমাধ্যমও নয়।’
 
বিএনপি কোনো ধরনের উগ্রপন্থাকে সমর্থন করে না জানিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, ‘বিএনপি একটি গণতন্ত্র পন্থার দল। সকল ধরনের সহিংসতার বিরুদ্ধেও আমাদের অবস্থান অত্যন্ত স্পষ্ট। কিন্তু সরকার দেশে-বিদেশে বিএনপির মতো একটি রাজনৈতিক দলকে সন্ত্রাসী চরিত্রের কালিমা লেপনের যে অপপ্রয়াস চালাচ্ছে, তা দেশে-বিদেশে গ্রহণযোগ্যতা পায়নি এবং পাবেও না। বরং সরকারের ফ্যাসিবাদী রূপই আরো বেশি করে স্পষ্ট হয়ে উঠছে।’
 
দেশ ক্রমাগত গভীর সংকটের দিকে এগোচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য আমরা জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছি, সর্বদলীয় বৈঠকের কথাও বলেছি। জাতীয় সংকট মোকাবেলায় জরুরিভাবে জাতীয় সংলাপের আহ্বান জানিয়েছি আন্তরিকভাবে, কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে হলেও সত্য যে, সরকার আমাদের সে দাবির প্রতি এখন পর্যন্ত কর্ণপাত করেনি।’
 
বিএনপি চেয়ারপারসন দলের শীর্ষ নেতা থেকে শুরু করে সব পর্যায়ের নেতা-কর্মীর মুক্তি এবং তাদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2015
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া