adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাষ্ট্র এফ-১৬ বিমান দিচ্ছে পাকিস্তানকে

2015_10_22_14_07_48_28g2m5AkRhDMShL34xGDnn66bAVb2G_originalআন্তর্জাতিক ডেস্ক : পাকিস্তানের কাছে আটটি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান বিক্রি করার প্রস্তুতি নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। বৃহস্পতিবার শীর্ষস্থানীয় মার্কিন দৈনিক ‘নিউ ইয়র্ক টাইমস’য়ের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে পাক সংবাদ মাধ্যমগুলো। এমন এক দিনে এ খবর প্রকাশিত হল যখন হোয়াইট হাউসে  প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। চারদিনের যুক্তরাষ্ট্র সফরে মঙ্গলবার ওয়াশিংটন পৌঁছেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী।

দিন কয়েক আগে ইসলামাবাদের কাছে ওই জঙ্গিবিমান বিক্রির প্রস্তাবটি মার্কিন কংগ্রেসকে অবহিত করেছে ওবামা প্রশাসন। তবে পধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের যুক্তরাষ্ট্র সফরের সময়ই হোয়াইট হাউস এ সংক্রান্ত ঘোষণা দেবে কিনা সে বিষয়টি নিশ্চিত করেনি নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকাটি। পাকিস্তানের কাছে ফ্রান্স ও চীনে নির্মিত ৭০টির বেশি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান রয়েছে।

তবে পত্রিকাটি বলছে, মার্কিন কংগ্রেস জঙ্গিবিমান বিক্রির বিষয়টি অনুমোদন না দিলে এই সংক্রান্ত চুক্তি স্থগিত হয়ে যেতে পারে। কেননা চলতি বছরের গোড়ার দিকে পাকিস্তানের কাছে কয়েকটি রণতরী বিক্রির বিষয় নিয়ে মার্কিন পররাষ্ট দপ্তর ও কংগ্রেসের মধ্যে টানাপোড়েন লক্ষ্য করা গিয়েছিল।

গত এপ্রিল মাসে পাকিস্তান সরকারের অনুরোধে দেশটির কাছে কয়েক শ কোটি ডলারের সামরিক সরঞ্জামাদি সরবরাহের বিষয়টি অনুমোদন করেছিল মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর। মার্কিন পররাষ্ট্র নীতি নির্ধারকরা বরাবরই পাকিস্তানকে সে দেশের স্বার্থের জন্য গুরুত্বপূর্ণ মনে করে থাকে।

এর আগে গত মে মাসে পাকিস্তানকে ১৪টি কমবেট বিমান, ৫৯টি প্রশিক্ষণ বিমান এবং ৩৭৪টি সাঁজোয়া যান সরবরাহ করেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

তবে নিউইয়র্ক টাইমস বলছে, এবার মার্কিন কংগ্রেস ইসলামাবাদের কাছে এফ-১৬ বিক্রির প্রস্তাবে রাজি হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। কেননা তাদের আশঙ্কা, পাকিস্তান  এসব যুদ্ধবিমান সন্ত্রাসবাদ বিরোধী অভিযানের চাইতে প্রতিবেশী ভারতের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতেই বেশি উদগ্রিব।

ন্যাটোভুক্ত জোটের বাইরে এ অঞ্চলের যে দেশগুলোকে যুক্তরাষ্ট্র সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে পাকিস্তান তাদের অন্যতম। ২০১১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে আল কায়দা হামলা এবং আফগানিস্তানে মার্কিন অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে মার্কিন প্রশাসনের  কাছে দেশটির গুরুত্ব আরো বেড়েছে।

প্রেসিডেন্ট ওবামা সম্প্রতি আফগানিস্তানে মার্কিন বাহিনীর উপস্থিতি তার প্রতিশ্রুতির চাইতেও প্রলম্বিত হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন। তবে হোয়াইট হাউস এখন তালেবানদের আলোচনার টেবিলে ফিরিয়ে আনতেই বেশি আগ্রহী। এ ক্ষেত্রে তাদের ইসলামাবাদের ওপর নির্ভর করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। কেননা তালেবান জঙ্গি গোষ্ঠীটির ওপর পাকিস্তানের ব্যপক প্রভাব রয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের চার দিনের যুক্তরাষ্ট সফরে তালেবানদের আলোচনায় রাজি করার  বিষয়টির প্রতিই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে মার্কিন প্রশাসন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া