adv
২৫শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ধর্ষককে সাথে নিয়ে ধর্ষিতা ছাত্রীর উপর মাতবরদের মাতবরী

rape_87161ডেস্ক রিপোর্ট : এখন কী হবে মেয়েটির জীবনে? ধর্ষিতা হওয়ার পর ধর্ষক আর গ্রামের মাতবররা উল্টো নির্যাতন চালায় ধর্ষিতার উপর। ঘটনাটি রংপুরের গংগাচড়ার। বিচারের নামে ধর্ষণের শিকার দশম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ ওঠেছে ধর্ষকের পরিবার ও এলাকার মাতবরদের বিরুদ্ধে। 
গুরুতর আহত অবস্থায় ওই ছাত্রীকে শুক্রবার সকালে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনী ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। পরে তার অবস্থার অবনিত হলে সেখান থেকে দুপুরে হাসপাতালের ওসিসি (ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার) তে স্থানান্তর করা হয়।
জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকালে বিয়ের দাবিতে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ওই ছাত্রী ধর্ষক শরিফুলের বাড়িতে অবস্থান করলে তাকে মারাত্মক শারীরিক নির্যাতন করা হয়। এমনকি তার গর্ভ নষ্ট করারও চেষ্টা করা হয়। 
ধর্ষিতার মা বিলকিস বেগম জানান, গংগাচড়ার পশ্চিত কচুয়া কুমারপাড়া গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে শরিফুল ইসলাম ৫ মাস আগে আমার মেয়েকে ধর্ষণ করে। কিন্তু আমার মেয়ে লোকলজ্জার ভয়ে বিষয়টি গোপন রাখে। এমনকি আমাকেও বিষয়টি জানায়নি। আমরা বুঝতেও পারিনি। কয়েকদিন আগে আমাদেরকে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি জানায় সে। 
বিলকিস বেগম জানান, আমরা আমাদের মেয়েকে শাসন করলে সে আত্মহত্যা করবে বলে হুমকি দেয়। পরে গোপনে সে শরিফুলকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। শরিফুল তাতে রাজি হয়নি। কারণে সে বিবাহিত।
তিনি আরও বলেন, বৃহস্পতিবার সকালে সবার অজান্তে আমার মেয়ে বিয়ের দাবিতে শরিফুলের বাড়িতে অবস্থান করে। সেখানে শরিফুলের লোকজন আমার মেয়েকে বেদম মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।
এরপর সে দুপুরে আবারও তাদের বাড়ি যায়। এর পর তারা তাকে মারপিট করে এবং গর্ভ নষ্ট করার চেষ্টা করে।
এসময় স্থানীয় গ্রাম পুলিশ আব্দুস সালামসহ আরও ১০/১২ জন গ্রাম পুলিশ ও স্থানীয় মহত মাতবররা মিলে একটি শালিসি বৈঠক করে। তারা বিচার করে আমার মেয়েকে ভীষণ মারপিট করে নানা খারাপ অপবাদ দেয়। এতে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে এবং চিৎকার করতে থাকে। পরে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্ধার করে আমাদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। 

এরপর মাতবররা কাউন্সিল (ইউনিয়ন অফিস) অফিসে আমার মেয়েকে নিয়ে বিচার করতে চাইলে আমি বলি, ওই বিচার আমি মানি না। পরে পুলিশ এসে আমার বাড়িতে ওকে ( (ধর্ষিতা মেয়েকে) রেখে রায়। সারারাত সে চিতকার করতে থাকে হাউমাউ করে কাঁদতে থাকে। শুক্রবার সকালে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে এখন তার ওসিসি ওয়ার্ডে চিকিতসা চলছে। 

ওসিসি ওয়ার্ডে ধর্ষিতা ওই মেয়েটির চিকিতসার দায়িত্বে থাকা সিনিয়র নার্স রাধা রানি সরকার ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মেয়েটি অবিবাহিত। বয়স প্রায় ১৫ হবে। সে এখন ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। তার পেটে এবং পুরো শরীরে মারাত্মক আঘাত আছে। আমরা তাকে নিবিড় পরিচর্যায় রাখছি। 

গংগাচড়া থানার ওসি আব্দুল মান্নান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তারা এখন চিকিতসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আছে। চিকিতসার কারণে তারা থানায় অভিযোগ করতে পারেনি। আগামীকাল (শনিবার) তারা আসবে। পরে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া