adv
৯ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ব্লগার নিলয় খুন: প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুর ভাতিজা গ্রেফতার

nmm_92326ডেস্ক রিপোর্ট : ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় ওরফে নিলয় হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে দুজনকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন, সাদ আল নাহিন ও মাসুদ রানা। এদের মধ্যে নাহিন শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুর ভাতিজা বলে জানা গেছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার মুনতাসিরুল ইসলাম এই দুজনকে গ্রেপ্তারের খবর বৃহস্পতিবার রাতে নিশ্চিত করেন।

প্রতিমন্ত্রীর ভাতিজা সাদ আল নাহিনকে উত্তরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএর মেধাবী শিার্থী। কয়েকদিন আগে পুলিশ তাকে তুলে নিয়েছিল বলে তার পরিবারের প থেকে অভিযোগ দিয়ে আসছিলেন। আর  মাসুদ রানা নামে অপরজনকে রাজধানীর মিরপুর কালশী এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ কর্মকর্তা মুনতাসিরুল ইসলাম আরো বলেন, গ্রেফতারকৃত দুজনই আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সক্রিয় সদস্য। আর সম্প্রতি নিলয়ের বাড়িতে চার জন যুবক হামলা চালিয়েছিল বলে তার স্ত্রী ও শ্যালিকা গোয়েন্দা পুলিশের কাছে জানিয়েছিলেন।

গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে ওই হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িতদের ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে বলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তাগণ আশা ব্যক্ত করেছেন। আর গ্রেফতারকৃতদের ব্যপারে তাদের কাছে বেশ কিছু তথ্য রয়েছে, তা জিজ্ঞাসাবাদ করে  যাচাই-বাছাই করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মো. নুরুন্নবী সাংবাদিকদের জানিয়েছেন,এক ব্লগারকে হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে মাসুদ রানার বিরুদ্ধে। এর আগে নাহিন ব্লগার আসিফ মহীউদ্দীন হত্যাচেষ্টার মামলায় গ্রেফতার হয়ে কারাগারে থেকে জামিনে ছাড়া পান।

২০১৩ সালে উত্তরায় আসিফের উপর হামলা হয়েছিল। এর কিছুদিন পর গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলনের মধ্যে মিরপুরের কালশীতে খুন হন ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার। এরপর গত ফেব্রুয়ারি থেকে হত্যাকাণ্ডের শিকার হন অভিজিত রায়, ওয়াশিকুর রহমান বাবু ও অনন্ত বিজয় দাশ। সর্বশেষ গত ৭ অগাস্ট নিজের বাড়িতে খুন হন ব্লগার নিলয়।

ব্লগার খুনের ঘটনায় নিষিদ্ধ গোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিম জড়িত বলে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা দাবি করে আসছিলেন। সংগঠনটির প্রধান মুফতি জসীম উদ্দিন রাহমানী ব্লগার রাজীব হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত।

নিলয় হত্যাকাণ্ডে পর কয়েকদিন আগে পুলিশ পরিচয়ে উত্তরার বাসা থেকে নাহিনকে তুলে নেওয়া হয় বলে তার বাবা নজরুল হক জানিয়েছিলেন। তিনি কিশোরগঞ্জের একটি স্কুলের শিক। তিনি কিশোরগঞ্জের তাড়াইলের দাহিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয়ে একটি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের কথা বলে আমার ছেলেকে নিয়ে যায়। এরপর আমরা আর তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারিনি। নাহিনকে তুলে নেওয়ার খবর বড় ভাই জাতীয় পার্টির নেতা মুজিবুল হক চুন্নুকে জানিয়েছিলেন নজরুল।

নজরুল হক বলেন, আগের একটি মামলায় নাহিনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। জামিন পাওয়ার পর ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা একাধিকবার তার সঙ্গে যোগাযোগ করে বিভিন্ন ধরনের তথ্য চাইতেন। নাহিন তাকে সাধ্যমতো সাহায্যও করত।

গোয়েন্দা পুলিশের এক সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে উত্তরায় ব্লগার আসিফ মহীউদ্দীনের উপর হামলার পর নাহিন গ্রেফতার হয়েছিলেন। এক বছরের বেশি সময় কারাবাসের পর তিনি জামিনে ছাড়া পান।

আসিফ মহীউদ্দীন হত্যাচেষ্টা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক নিবারণ চন্দ্র বর্মন সাংবাদিকদের বলেন, “নাহিন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সক্রিয় সদস্য বলে আদালতে ১৬৪ধারায় জবানবন্দি দিয়ে তারা কয়েকজনে ব্লগার আসিফ মহীউদ্দীনকে হত্যা করতে চেয়েছিলেন বলে স্বীকার করেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া