adv
২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর ‘মৃত্যু চাওয়ায় জাবি শিক্ষকের কারাদণ্ড

Ruhul-Aminডেস্ক রিপোর্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফেসবুকে কটূক্তির অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক মোহাম্মদ রুহল আমীন খন্দকারের ৩ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রাষ্ট্রদ্রোহের মামলায় বুধবার বিকেলে ঢাকার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হক শ্যামল এ রায় ঘোষণা করেন।
রায়ে পলাতক এই দণ্ডিতের ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং জরিমানার টাকা অনাদায়ে আরো ৬ মাসের কারাদণ্ডের নির্দেশও দিয়েছেন আদালত। মামলাটির বিচালকালে আদালত চার্জশিটের ১১ সাক্ষীর মধ্যে ১১ জনেরই সাক্ষ্যগ্রহণ করেন।
মামলার অভিযোগে বলা হয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ইনস্টিটিউট অফ ইনফরমেশন টেকনোলজি বিভাগের প্রভাষক মোহাম্মাদ রুহল আমীন খন্দকার ২০১১ সালের ১৩ আগাস্ট ফেসবুকে স্ট্যাটাসে লেখেন যে, ‘পরীক্ষা ছাড়া ড্রাইভিং লাইসেন্স দেয়ার ফল, সবাই মরে শেখ হাসিনা মরে না কেন?’ উক্ত স্ট্যাটাস দেয়ার পরদিন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ায় তা ব্যাপকভাবে প্রচার পায়।
উক্ত ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে তৎকালীন প্রোভিসিকে সভাপতি করে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। উক্ত তদন্ত কমিটি তদন্তের পর প্রভাষক রুহল আমীন খন্দকারের বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ করে।
অন্যদিকে সরকার প্রধান শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আসামি মোহাম্মদ রুহল আমীন খন্দকারের উক্ত স্ট্যাটাস রাষ্ট্রদ্রোহিতার সামিল বলে ২০১১ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার অনুমতি প্রদান করেন।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতির ভিত্তিতে ওই বছর ২ অক্টোবর ঢাকার চিপ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি দায়ের করেন সহকারী পুলিশ সুপার মনোয়ার হোসেন। মামলাটির তদন্তের পর ২০১২ সালের ২৯ জানুয়ারি পুলিশ সুপার (এসপি) আব্দুস সালাম আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া