adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মুশফিকের ১৫তম হাফসেঞ্চুরি

CRICKET-BAN-RSAক্রীড়া প্রতিবেদক : গত বছর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঢাকা টেস্টে সর্বশেষ হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন বাংলাদেশ দলের সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। পরের ইনিংসে অবশ্য ২৩ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। এরপর থেকেই মুশফিকের রান খরা। শেষ অব্দি বৃহস্পতিবার এই শনির দশা থেকে মুক্তি মিলেছে বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়কের। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঢাকা টেস্টে হাফসেঞ্চুরি করেছেন মুশফিক। ফলে ১১ ইনিংস পর আরেকটি টেস্ট হাফসেঞ্চুরির সঙ্গী হয়েছে তার। টেস্ট ক্যারিয়ারে এটি মুশফিকের ১৫তম হাফসেঞ্চুরি।
দক্ষিণ আফ্রিকার স্পিনার জেপি ডুমিনির বলটি লং অনে ঠেলে দিয়ে মুশফিক তার ক্যারিয়ারের দীর্ঘতম হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন। ৭৯ বল খেলে ৭টি বাউন্ডারিতে হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন তিনি। গত বছর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে চট্টগ্রামে ও খুলনায় আরও দু’টি টেস্টের ৪টি ইনিংসে তার ব্যাট হাসেনি। যার ধারাবাহিকতা বজায় থাকে চলতি বছর খেলা টেস্টগুলোতেও। চলতি বছর পাকিস্তানের সঙ্গে ২টি, ভারতের সঙ্গে একটি এবং দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একটি টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ। কিন্তু কোনো ইনিংসের সেঞ্চুরি দূরে থাক, হাফসেঞ্চুরিরও দেখা পাননি তিনি।
চলতি টেস্ট ছাড়া এই বছরে খেলা মুশফিকের ইনিংসগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ স্কোর ৩২, পাকিস্তানের বিপক্ষে খুলনা টেস্টের প্রথম ইনিংসে।
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হাফসেঞ্চুরি পাওয়ার পর মুশফিক খেলেছেন আরও ৭টি টেস্টে ১১টি ইনিংস। ওই ইনিংসগুলোতে তার নেই কোনো হাফসেঞ্চুরি। এই ইনিংসগুলো দেখলেই বর্তমান ফর্মের চিত্র ফুটে উঠবে। ২৩*, ১১, ০, ১৫, ৪৬, ৩২, ০, ১২, ০, ২, ২৮। মোট রান ১৬৯!
এমন ঘটনা মুশফিকের ক্যারিয়ারে আরও একবার ঘটেছিল। ২০০৭ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কলম্বো টেস্টে প্রথম হাফসেঞ্চুরির (৮০ রানের) দেখা পেয়েছিলেন তিনি। এরপর টানা দশ ইনিংসে আর কোনো হাফসেঞ্চুরি ছিল না মুশফিকুর রহিমের। ওই দশ ইনিংসের মুশফিকের স্কোর লাইনগুলো হল ১১*, ১, ৭, ৬, ৮, ০, ৭, ২, ১৫, ৪। মোট রান ৬১।
 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া