adv
৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সবাইকে ছাড়িয়ে গেলেন লিটন

LITON DAS-1ক্রীড়া প্রতিবেদক : দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে চট্টগ্রামে চলমান টেস্ট ম্যাচটি নিয়ে বাংলাদেশ এরই মধ্যে মোট ৯২টি ম্যাচ খেলেছে। এর মধ্যে উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলেছেন ৫ ক্রিকেটার। যাদের মধ্যে সর্বশেষ সংযোজন হলেন লিটন কুমার দাস। বৃহস্পতিবার অনন্য এক কীর্তিই সঙ্গী হলো এই তরুণ ক্রিকেটারের। আগের ৪ উইকেটরক্ষক কাম ব্যাটসম্যানদের কেউই টেস্ট আঙিনায় পা রাখার পর নিজের দ্বিতীয় ইনিংসেই হাফ সেঞ্চুরির দেখা পাননি। তবে চট্টগ্রামের মাটিতে সেই কাজটিই করে দেখালেন লিটন।
বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম টেস্টের তৃতীয় দিনের দ্বিতীয় সেশনের প্রথম ঘন্টায় লিটন টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চুরির দেখা পান। যেখানে মেহরাব হোসেন অপির লেগেছে ৫ম ইনিংস, মুশফিকুর রহিমের ৬ষ্ঠ, খালেদ মাসুদ পাইলটের ৪১তম ইনিংস। ১০২ বলে ৭ চারে ৫০ রানের ইনিংস খেলেছেন লিটন। অফ সাইডে শক্তিশালী এই ক্রিকেটার এদিন দারুণ কিছু স্ট্রোক খেলেছেন। অবশ্য হ্যারমারের বলে ব্যাট-প্যাড হলে উইকেট কিপার ডি কুক দুর্দান্ত একটি ক্যাচ ধরে সাঝঘরের পথ দেখান লিটনকে।
বাংলাদেশের টেস্ট ক্রিকেটের শুরুর দিকে উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান হিসেবে ছিলেন মোহাম্মদ সেলিম। তিনি অবশ্য মাত্র ২টি টেস্ট ম্যাচে মাঠে নেমেছেন। টেস্ট ক্রিকেটে উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান হিসেবে বাংলাদেশের সর্বশেষ সংযোজন দিনাজপুরের ছেলে লিটন কুমার দাস। যদিও মেহরবার হোসেন অপি উইকেট কিপার না হয়েও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্টে বিশেষজ্ঞ কিপার হিসেবে মাঠে নামেন। ওই টেস্টে দলের নিয়মিত উইকেট কিপার খালেদ মাসুদ পাইলট ইনজুরিতে পড়ায় কিপিংয়ের দায়িত্ব পালন করতে হয় অপিকে।
তাদের সবাইকে পেছনে ফেলে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের নতুন মাইলফলক স্পর্শ করলেন লিটন কুমার। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় টেস্টে এসে হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন তিনি। বাংলাদেশের বাকি ৪ উইকেট কিপার ব্যাটসম্যানদের মধ্যে যা এর আগে আর কেউ পারেনি।
প্রথম টেস্ট হাফসেঞ্চুরি পেতে মুশফিক লেগেছিল ৬ষ্ঠ ইনিংস। ২০০৭ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কলম্বো টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৮০ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। ওটাই টেস্ট ক্রিকেটে মুশফিকের প্রথম হাফসেঞ্চুরি। ৪০ ইনিংস পর প্রথম হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন খালেদ মাসুদ পাইলট। ২০০৩ সালে ঢাকায় ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৫১ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। ৫ম ইনিংসে উইকেটকিপার হিসেবে খেলতে নেমে ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন মেহরাব হোসেন অপি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওই ম্যাচে মেহরাব হোসেন অপি খেলেছিলেন ৭১ রানের ইনিংস। এ ছাড়া মোহাম্মদ সেলিম ২টি টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে মাঠে নামলে কোনো হাফসেঞ্চুরির দেখা পাননি। তার সর্বোচ্চ রান দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ২৬।
ভারতের বিপক্ষে চলতি বছর জুন মাসেই সাদা পোষাকে মাঠে নেমেছিলেন লিটন কুমার দাস। তবে ওই টেস্টে মাত্র এক ইনিংস ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। সেবার ৪৪ রান করে সাজঘরে ফিরতে হয়েছিল তাকে। সেই হিসেবে বৃহস্পতিবার টেস্টে নিজের দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাটিং করার সুযোগ পেয়েছেন লিটন। আর তাতেই তুলে নিয়েছেন টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চুরি।
 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া