adv
৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শুধু দলে নয়, সরকারেরও বোঝা মায়া-কামরুল

MAYAডেস্ক রিপোর্ট : ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দলটি কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া। অন্যজন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট কামরুল ইসলাম। এরা দুজনই সরকারের পূর্ণমন্ত্রী।
সরকারের জন্য বড় ধরনের বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে এই দুই মন্ত্রী। শুধু সরকারেই নয়, দলেও এরা এখন বোঝা। আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগরের প্রবীণ নেতারা নগর কমিটিতে এদের আর চান না। কর্মীরাও এদেরকে আর নেতা মানতে নারাজ। সরকারের ভেতরেও বিতর্কিত এ দুই মন্ত্রীকে নিয়ে চলছে ক্ষোভ। বিশেষ করে আওয়ামী লীগ প্রধান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এদের কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ বলে জানা গেছে। বলা যায়, এদের নিয়ে সরকার বিব্রত।

অন্যদিকে প্রধান বিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপি মন্ত্রিসভা থেকে এদের বহিস্কারের দাবি জানিয়েছে। বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে মন্ত্রিসভা থেকে বিতর্কিতদের সরিয়ে দিলে সরকারের ভাবমর্যাদা কমবে না বরং বাড়বে।

সরকারের খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নিয়োজিত এডভোকেট কামরুল ইসলাম ব্রাজিল ও ফান্স থেকে পচা গম আমদানি করে খবরের শিরোনাম হয়ে চলেছেন। দেশের প্রায় সকল গণমাধ্যম ব্রাজিল থেকে আমদানিকৃত পচা গমের দৃশ্যমান ছবিসহ সংবাদ প্রকাশ করে চলছে। আর মন্ত্রী এ নিয়ে কোনো ধরনের অনুশোচনা বা দোষ স্বীকার না করে উল্টো পচা গমের পক্ষে সাফাই গেয়ে চলেছেন। ‘কেলেঙ্কারির সঙ্গে তিনি জড়িত নন’ এমনটাই প্রমাণ করার চেষ্টা করছেন। পচা গম কেনো উচ্চমূল্যে আনা হলো এ প্রশ্নের সন্তোষজনক কোনো উত্তর দিতে পারছেন না তিনি। এ নিয়ে খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।   
খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম শুধু পচা গমেই জড়াননি, দলের ভেতরেও তার বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় বইছে। সদ্য সমাপ্ত বিতর্কিত সিটি নির্বাচনের সময় দলের কেন্দ্রীয় হাইকমাণ্ডের বিপরীতে চলেছেন তিনি। দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করে নিজের পছন্দের প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে বক্তৃতা করেছেন। বিশেষ করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা সমর্থিত প্রার্থী সাঈদ খোকনকে সমর্থন না দিতে মহানগর আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা করেন মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ও এডভোকেট কামরুল ইসলাম। সভায় ডিএসসিসিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হাজি সেলিমের পক্ষে কাজ করার সিদ্ধান্তও নেন তারা। ওই বৈঠকে নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজি সেলিমও উপস্থিত ছিলেন। অবশ্য ওই বৈঠকের কিছুক্ষণ পরে নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজের নেতৃত্বে বেশ কিছু নেতাকর্মী সাঈদ খোকনকে নিয়ে বৈঠক করেন। এতে দলীয় কার্যালয়ে অনেকটা উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ও কামরুল ইসলামের ততপরতার জন্য সিটি নির্বাচনের সময় আওয়ামী লীগ ও সরকারকে বেশ বিব্রতই হতে হয়। শেষ পর্যন্ত মায়া ও কামরুল ইসলামের সমর্থিত প্রার্থীকে ঠেকাতে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনাকেই শক্ত পদক্ষেপ নিতে হয়েছে। ওই সময় আওয়ামী লীগের পক্ষে থেকে দল সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার নির্দেশনা থাকলেও আলোচিত এ দুই মন্ত্রীর একান্ত অনুরাসীদের মাঠে খুবই একটা দেখা যায়নি। আর এ কারণে ওই সময় দলে খুবই সমালোচনার মুখে পড়েন মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ও এডভোকেট কামরুল ইসলাম। তাছাড়া অতিকথনের ফলে দলের শীর্ষ নেতা থেকে শুরু করে কর্মীরাও বিব্রত হন কামরুলকে নিয়ে। আইনপ্রতিমন্ত্রী থাকাকালে এডভোকেট কামরুল ইসলাম বিভিন্ন সভা-সেমিনারে বক্তব্য দিতে গিয়ে অনেক সময়ই তালগোল হারিয়ে ফেলেছেন। সব শেষে পচা গমের পক্ষে সাফাই গাইতে গিয়ে লেজে গোবরে অবস্থায় পড়েছেন তিনি।

অন্যদিকে নিজের মেয়ের জামাই র‌্যাবের সাবেক কর্মকর্তা তারেক সাঈদ কাউন্সিলর নজরুল ইসলামসহ চাঞ্চল্যকর আট খুনের মামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার হওয়ার পর বেশ বেকায়দা পড়েন মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া। বিশিষ্টজনরা ওইসময় তারেক সাঈদকে সিরিয়াল কিলার বলেও আখ্যায়িত করেন। তখন কিছু দিন তিনি দেশেরই বাইরেও থেকেছেন। বেশিরভাগ সময়ে গণমাধ্যমকে এড়িয়ে চলেছেন।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একটি দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মায়াকে খালাস করে হাইকোর্টের দেয়া রায় বাতিল করে নতুন করে আপিল শুনানির আদেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ গত ১৪ জুন। এই আদেশের পর সবমহল থেকেই মায়ার মন্ত্রীত্ব ও সংসদ সদস্য পদে থাকা না থাকা নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। ২০০৭ সালের ১৩ জুন সম্পদের তথ্য গোপন ও অবৈধভাবে সম্পদের মালিক হওয়ার অভিযোগে মায়ার বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক।

২০০৮ সালের ১৪ ফেব্র“য়ারি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত মায়াকে ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেন। একইসঙ্গে তাকে পাঁচ কোটি টাকা জরিমানাও করা হয়। মায়া এই রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে যান। ২০১০ সালের ২৭ অক্টোবর হাইকোর্ট বেঞ্চ তাকে খালাস দেয়, যা বাতিল হয়ে যায় আপিল বিভাগের আদেশে। এরআগে তার ছেলে দিপু ১৯৯৬-০১ টার্মের আওয়ামী লীগ সরকারের শাসনামলে টেন্ডারবাজী, চাঁদাবাজী এবং উত্তরায় জমিদখল করে তাতে মার্কেট তৈরি করে ভাড়া দেয়াসহ নানা অপকর্মের অভিযোগ ওঠে। ওই সময়ও সরকারকে বেকায়দায় পড়তে হয়েছিল।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া