adv
৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কক্সবাজার হবে উন্নয়নের প্রাণকেন্দ্র

ty3zi8fuনিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘কক্সবাজার হবে উন্নয়নের বিশাল ক্ষেত্র। কক্সবাজারকে উপলক্ষ্য করে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা। কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীতে করার মধ্য দিয়ে এর সূচনা হলো।’

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কক্সবাজার বিমানবন্দর সম্প্রসারণ কাজের উদ্বোধনকালে তিনি একথা বলেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পশ্চিমা মহাদেশে ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের উন্নয়ন ‘হাব’ হবে কক্সবাজার। তাই কক্সবাজারের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা এগিয়ে যাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কক্সবাজার অনেক দিন অবহেলিত ছিল। আর তা হতে দেবো না। ১৯৯৬ সাল থেকে আওয়ামী লীগ সরকার কক্সবাজারের উন্নয়নে যে রূপরেখা তৈরি করেছে তার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন হবে। তার অধিকাংশই ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। ঘুমধুম-দোহাজারী রেললাইন প্রকল্পও অচিরেই বাস্তবায়ন হবে। এর জন্য আনুষঙ্গিক কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে। এখন শুধু শুরু করা।’

কক্সবাজার বিমানবন্দর সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করার মধ্যে দিয়ে এখানকার উন্নতির ধারা আরো একধাপ এগিয়ে দেয়া হলো। জয় হওয়া সমুদ্র সীমা, মাতারবাড়ি কয়লাবিদ্যুৎকেন্দ্র, সাবরাং এক্সক্লুসিভ ট্যুরিস্টজোনসহ কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প সম্ভাবনাকে আরো সম্প্রসারিত করবে এই বিমানবন্দর।’

ঘুমধুম-দোহাজারী রেললাইন নিয়ে তিনি বলেন, ‘ঘুমধুম-দোহাজারী রেললাইন স্থাপন হলে বাংলাদেশের সঙ্গে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর যোগযোগের অপার সম্ভবনা সৃষ্টি হবে। আর কক্সবাজার হবে এর সংযোগস্থল। একই সঙ্গে কক্সবাজার দিয়ে মায়ানমার, ভারত ও চীনের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগও স্থাপন হবে।’ বক্তব্যের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি কক্সবাজারে বয়ে যাওয়া ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের প্রতি সমবেদনা জানান এবং নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করেন।
বর্ষা শেষ হলেই রাস্তাঘাটসহ ক্ষতিগ্রস্ত সব অবকাঠামো মেরামত করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘কক্সবাজারের বন্যা নিয়ে আমরা আলাদা গুরুত্বসহকারে কাজ করছি। বন্যা কবলিত এলাকাকে সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণের রাখা হয়েছে। সরবাহ করা হচ্ছে ত্রাণসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী।’
বিমানবন্দর চত্বরে আয়োজিত সম্প্রসারণ কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান ও পরিবহন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, কক্সবাজার-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ, উখিয়া-টেকনাফ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদি, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আলী হোসাইন, পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথসহ জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।
প্রধানমন্ত্রী বক্তব্যের শেষে উদ্বোধন ঘোষণা করেন এবং বেসামরিক বিমান ও পরিবহন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন ফলক উšে§াচন করেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া