adv
২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দুই কাঠুরিয়া ভাইয়ের কোটিপতি হওয়ার গল্প

Teknaf-pজামাল জাহেদ, কক্সবাজার : কক্সবাজারেরর টেকনাফের হ্নীলার লেদা এলাকার দু’ভাই কাঠুরিয়া এবং রিক্সাচালক থেকে অল্পদিনের মধ্যে কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়ায় জনমনে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনার জন্ম দিয়েছেন। ইয়াবা ও মানবপাচার করে রাতারাতি কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়ায় এদের দেখা দেখিতে অন্যরাও এ ব্যবসায় পা দিয়েছে। ইয়াবা-মানবপাচার করে ‘রকিম মেম্বার’ রাতারাতি দ্রুত ভাগ্য বদল করায় এলাকার লোকজন উতসাহ পাচ্ছে। 

স্থানীয় সুত্র জানায়, এ দু’ভাইয়ের পাতানো ফাঁদে পা দিয়ে ইয়াবা পাচার করতে গিয়ে লেদা এবং দক্ষিণ আলীখালী এলাকার অনেক যুবক-যুবতি জেল খানায় পড়ে আছে। রকিম মেম্বারের উচ্চভিলাষী উতসাহে মাদক ব্যবসার মত অন্ধকার জগতে পা বাড়িয়ে অনেক টাকার মালিক আবার অনেকে সর্বশান্ত হয়ে পড়ে আছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, লেদা এলাকার তাজর মল্লুকের ছেলে আব্দুর রহিম (৩৫) প্রকাশ রহিম মেম্বার ও তার ভাই আবুল মঞ্জুর দ্রুতই কোটিপোতি হয়েছে। এক সময়ে যাদের নুন আনতে পানতা ফুরায় তারা আজ আলদিনের চেরাগের মত কোটি কোটি টাকা, গাড়ী-বাড়ির মালিক। 

নাইক্ষ্যংছড়িতে বিয়ে দেওয়া বোন শামসুন্নাহার, বোন জামাই কামালের নেতৃত্বে এ দু’ভাই সেখানে গড়ে তুলেছে ইয়াবা কারখানা ও প্রচুর ভু-সম্পত্তি। কামাল, জামাল, শাকের আহমদ, নুরুল আলম সহ স্থানীয় অনেকের প্রশ্ন ইয়াবা ও আদমপাচারকারীরা লাপাত্তা হলেও কিসের জোরে রকিম মেম্বার এবং আবুল মঞ্জুররা বীরদর্পে প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করছে। দিন রাত ইয়াবা-আদমপাচার করে যাচ্ছে। প্রশাসন ও স্থানীয় কতিপয় লোকজনকে ম্যানেজ করে এই দু’ভাই এখনও স্রোতের বিপরীতে সাতার কাটছে। রকিম মেম্বার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের যুবতিকে বিয়ে করে সেখানে বসে ইয়াবা এবং মানবপাচার নিয়ন্ত্রণ করছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্প কেন্দ্রীক সমস্ত অপরাধের নিয়ন্তা এদু’ভাই। 

অল্প দিনে সিন্ডিকেট গড়ে তোলে হাতের ইশারায় পুরো লেদা-হ্নীলার ইয়াবা জগত নিয়ন্ত্রণ করছে। স্থানীয়রা বলছেন. অঢেল কালো টাকার মালিক কাঠুরিয়া রকিম মেম্বার এখন স্থানীয় নির্বাচন করার স্বপ্ন দেখছে। এ লক্ষ্যে রকিম মেম্বার ও তার ভাই আবুল মঞ্জুর জোরেশোরে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। লেদা ও তার আশে পাশের এলাকায় রাস্তাঘাট, কালভার্ট এবং ছোট খাট উন্নয়নের কাজ করেছেন। এত টাকা পেলেন কোথায় প্রশ্নের জবাবে রকিম মেম্বার দম্ভোক্তি প্রকাশ করে বলেন “সব টাকা বৈধ” “ভাই লিখে তো কিছু হবে না, পুলিশ ঠিক সব ঠিক, টাকা দিয়ে অনেক পুলিশ অফিসারও কিনতে পাওয়া যায়” এ লেখায় কোন কাজ হবে না। সচেতন মহল জরুরী ভিত্তিতে মাদক ও মানবপাচারকারী রকিম মেম্বার এবং আবুল মঞ্জুরকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান। শত শত অভিভাবক, ৪২ বিজিবির অধিনায়ক এবং টেকনাফ মডেল থানার সুদক্ষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া