adv
২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মূল্যায়নে না আসলে পোশাক কারখানায় উতপাদন বন্ধ !

1433919333garment_industry_mtnews24ডেস্ক রিপোর্ট : যে পোশাক কারখানা মূল্যায়ন কার্যক্রমের আওতায় আসবে না তাদের উতপাদন বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। শ্রম আইন অনুযায়ী, শ্রম মন্ত্রণালয়ের অধীন কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদফতর এ শাস্তিমূলক পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করবে। এরই মধ্যে এ বিষয়ে অধিদফতর একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে।
দুই বছর ধরে দেশের পোশাক খাতের কারখানাগুলোর মূল্যায়ন চলছে। এ কার্যক্রমে বিভিন্ন সময়ে কারখানা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ উঠেছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে ১ জুন কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতর কারখানার উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ ও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করে।
অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় উদ্যোগের আওতায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) সহযোগিতায় চলমান মূল্যায়ন কার্যক্রম আগামী ৩০ জুলাই শেষ হবে। তালিকাভুক্ত সব পোশাক কারখানা কর্তৃপক্ষকে ভবনের স্থাপত্য, অগ্নি ও বৈদ্যুতিক নিরাপত্তার জন্য নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মূল্যায়ন কার্যক্রম শেষ করতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।
নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মূল্যায়নের ব্যয় বহন করা হবে জাতীয় উদ্যোগের আওতায়। এর পর মূল্যায়নের ব্যয় সংশ্লিষ্ট কারখানা কর্তৃপক্ষকে বহন করতে হবে। মূল্যায়নে ব্যর্থ কারখানা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ভবন নিরাপত্তার বিষয় বিবেচনায় বাংলাদেশ শ্রম আইন অনুযায়ী কারখানার উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ করাসহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।
জানা যায়, আইএলওর তালিকাভুক্ত কারখানার সংখ্যা প্রায় আড়াই হাজার, যার ৭৩৩টিতে প্রাথমিক পরিদর্শন কার্যক্রম শেষ করেছে বুয়েট ও বেসরকারি দুই প্রকৌশল প্রতিষ্ঠান। সংস্থাটির হিসাবে এখনো ১ হাজার ৭০০ কারখানায় পরিদর্শন কার্যক্রম বাকি রয়েছে। এর মধ্যে ৮০০ কারখানার ঠিকানা এবং বর্তমান অবস্থান যাচাই-বাছাই বাকি রয়েছে। আইএলওর আওতায় থাকা কারখানাগুলোর মধ্যে ৮০০টিতে পরিদর্শনের উদ্যোগ নিলেও বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ প্রদত্ত ঠিকানায় কারখানাগুলোর সন্ধান পাওয়া যায়নি। এর মধ্যে ৫০৮টি কারখানা কর্তৃপক্ষ পরিদর্শকদের জানিয়েছেন, কারখানাগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। আরো ৬২টি কারখানা রয়েছে, যেগুলো পরিদর্শনের জন্য পরিদর্শকদের সাক্ষাতের সুযোগ দেয়নি কর্তৃপক্ষ।
এ বিষয়ে অধিদফতরের মহাপরিদর্শক সৈয়দ আহমেদ বলেন, জাতীয় উদ্যোগে চলমান মূল্যায়ন কার্যক্রমে মালিকদের সহযোগিতা পাওয়ার লক্ষ্যেই এমন ঘোষণা দেয়া হয়েছে। যদি তারা সাড়া না দেন তবে ভবন নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে কারখানার উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ করাসহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে
আন্তর্জাতিক দাতাগোষ্ঠীর অর্থসহায়তায় বিনামূল্যে কারখানায় পরিদর্শন চালাচ্ছে আইএলওর নিয়োগ করা বেসরকারি প্রকৌশল প্রতিষ্ঠান। কিন্তু কারখানার ভুল ঠিকানা ও মালিকদের অসহযোগিতাসহ নানা জটিলতায় নির্ধারিত সময় এপ্রিলের মধ্যে এ কার্যক্রম শেষ হয়নি। সম্প্রতি এ কার্যক্রমের মেয়াদ জুলাই পর্যন্ত   বৃদ্ধি করে আইএলও। গত ৩০ এপ্রিল বিজিএমইএ সভাপতিকে এ-সংক্রান্ত একটি চিঠি দেয় আইএলও। বর্ধিত সময়ের মধ্যে মূল্যায়নের আওতায় না এলে পরিদর্শন কার্যক্রম কারখানা ও ভবন মালিকদেরই করতে হবে বলে উল্লেখ করেছে সংস্থাটি। এ পদক্ষেপের জন্য শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের পরামর্শ নেয়া হয়েছে বলেও বিজিএমইএকে জানিয়েছে আইএলও। এর পরই শ্রম মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে চলতি মাসে মূল্যায়নে ব্যর্থ কারখানার উৎপাদন বন্ধ ও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে।
পোশাক শিল্প মূল্যায়নে আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় পর্যায়ে মোট তিনটি কার্যক্রম চলছে। তিনটি উদ্যোগে দেশের প্রায় সাড়ে চার হাজার পোশাক কারখানা পরিদর্শনের কথা। কিন্তু সরকারের উদ্যোগে আইএলওর সমন্বয়ে পরিচালিত পরিদর্শনে কারখানা নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যে অনেক কারখানার ঠিকানা ভুল, আবার বেশকিছু কারখানা বন্ধ বলে আইএলও পরিদর্শকদের জানিয়েছে মালিকপক্ষ।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া