adv
২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ছিটমহলের জমিতে স্কুল মাদরাসা ও সমিতির সাইন বোর্ড তোলার হিড়িক

kuriডেস্ক রিপোর্ট : কুড়িগ্রামের বড় ছিটমহলগুলোর জমিতে সাইনবোর্ড তোলার হিড়িক পড়েছে। ডজন ডজন সাইনবোর্ড তোলা হয়েছে প্রস্তাবিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে।

গত তিন দিনে কুড়িগ্রাম জেলার সদর উপজেলার দাশিয়ারছড়া, ভূরুঙ্গামারী উপজেলার সেউতি কুর্শা, গাউচুলকা, সাহেবগঞ্জ, কালামাটিসহ বেশ কয়েকটি ছিটমহলে গিয়ে দেখা গেছে, স্থানীয় বাসিন্দারা বিভিন্ন শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের নাম প্রস্তাব করে ছিটমহলের জমিতে সাইনবোর্ড তুলেছে। এর মধ্যে দেশের সবচেয়ে বড় ছিটমহল দাশিয়ারছড়াতেই সাইনবোর্ড উঠেছে সবচেয়ে বেশি। গত ৩১ মে পর্যন্ত এখানে প্রস্তাবিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড ছিল ২২টি। এর মধ্যে আছে মহাবিদ্যালয়, বালক ও বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, মাদ্রাসা ও প্রাথমিক বিদ্যালয়। এ ছাড়া ছিল একটি মসজিদের সাইনবোর্ড। মসজিদটির নির্মাণকাজও শুরু হয়ে গেছে।

দাশিয়ারছড়া ছিটমহলের বিভিন্ন অংশ ঘুরে যে সাইনবোর্ডগুলো চোখে পড়েছে, সেগুলোর কয়েকটি এমন ইন্দিরা-মুজিব মহাবিদ্যালয়, ইন্দিরা-মুজিব বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয়, দাশিয়ারছড়া দাখিল মাদ্রাসা, বালাটারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্যপাড়া সমন্বয় উচ্চবিদ্যালয়, দাশিয়ারছড়া মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়, বটতলা প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিমপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, কামালপুর বড় কামাত প্রাথমিক বিদ্যালয়, ছোট কামাত প্রাথমিক বিদ্যালয়, ছোট কামাত বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, ছোলাটারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বানিয়াটারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

এ ছাড়াও জেলার ১২টি ছিটমহলের মধ্যে আরেকটি বড় ছিটমহল ভূরুঙ্গামারীর সেউতি কুর্শা। এখানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড উঠেছে দুটি। একটি সেউতি কুর্শা ইন্দিরা-মুজিব স্মৃতি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও অন্যটি সেউতি কুর্শা মাধ্যমিক বিদ্যালয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেল, এই প্রস্তাবিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর অধিকাংশেরই উদ্যোক্তা বাংলাদেশ-ভারত ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির বাংলাদেশ অংশের নেতারা ও তাঁদের লোকেরা।

দাশিয়ারছড়ার একমাত্র প্রাচীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ স্বাধীনের পর থেকেই বন্ধ। ছিটমহলটির কালিহাট বাজারের পাশেই প্রকান্ডএক পাকুড় গাছের পাশে প্রতিষ্ঠানটির টিনের বেড়া ও ছাউনি দেওয়া খান তিনেক জরাজীর্ণ পরিত্যক্ত ঘর। জানালা-কপাট নেই। মরচে ধরা টিনের সাইনবোর্ড ঝুলছে একটি ঘরের সামনে। তাতে লেখা: ‘কলিহাট প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কোচিং সেন্টার’। প্রতিষ্ঠা ১৯৩৮। পুননির্মাণ ২০০৮ সাল।

অদূরেই সমন্বয় কমিটির বাংলাদেশে অংশের কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যালয়। সেখানেই নানা প্রসঙ্গে কথা হলো কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তাফা, দাশিয়ারছড়া শাখার সভাপতি আলতাফ হোসেন ও সম্পাদক মোজাফফর হোসেনের সঙ্গে।

এসব প্রস্তাবিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সম্পর্কে এই নেতারা জানালেন, তাঁদের অন্যতম প্রধান সমস্যা হলো শিক্ষা। কালিহাট প্রাথমিক বিদ্যালয়টি তাঁরা চালু করার চেষ্টা করেও চালাতে পারেননি। ছিটের জন্য সরকারি পাঠ্যপুস্তক বরাদ্দ নেই। উপরন্তু শিক্ষকদের বেতন কোথা থেকে আসবে, সে ব্যবস্থা নেই। এ কারণে তাঁরা শিক্ষার বিষয়টিকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে প্রথমেই ছিটে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছেন।

ছিটমহলগুলোয় শিক্ষার হার তুলনামূলক কম। বিশেষ করে উচ্চশিক্ষায় ব্যাপকভাবে পিছিয়ে। এ-সংক্রান্ত কোনো জরিপ অবশ্য নেই। সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ছিটে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না থাকা, ছিটের বাইরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে জন্মনিবন্ধন সনদ সংগ্রহসহ বিভিন্ন জটিলতা ও শিক্ষা শেষে কোনো চাকরির সুযোগ না থাকায় ছিটমহলবাসী শিক্ষায় পিছিয়ে আছে। সেউতি কুর্শার ভূমিহীন কৃষিশ্রমিক খলিল শেখের স্ত্রী ফাতেমা জানালেন, তাঁর আট বছরের এক ছেলে ও ছোট দুই মেয়ে। কেউ স্কুলে যায় না। ছিটের নিম্ন আয়ের এমন অনেক পরিবারের শিশুরা স্কুল থেকে দূরে।

দাশিয়ারছড়ার নুর ইসলাম বাংলাদেশের ভুয়া ঠিকানা দিয়ে কারমাইকেল কলেজ থেকে ইসলামের ইতিহাসে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়ে বেকার। ‘ছিটের লোকের চাকরি নাই। বাংলাদেশে নাই, ভারতেও নাই,’ বলছিলেন তিনি। এভাবে হাতে গোনা কয়েকজন যদিও-বা উচ্চশিক্ষা নেন, কিন্তু সাধারণত চাকরি হয় না। কেউ কেউ এই ভুয়া ঠিকানা দিয়ে গোপনে বাংলাদেশের সরকারি-বেসরকারি চাকরি করছেন। ‘ছিটের লোকের শত্রু অনেক। তারা কর্তৃপক্ষের কাছে জানিয়ে দেয়। তখন মিথ্যা তথ্য দেওয়ায় চাকরি চলে যায়। অনেকের জেলও হয়’ জানিয়ে আবদুল মান্নান নামের একজন বললেন, তিনি বাংলাদেশ সরকারের একটি নিরাপত্তা বাহিনীতে চাকরি করছিলেন। পরে ছিটমহলের বাসিন্দা পরিচয় প্রকাশ পাওয়ায় ২০১১ সালে চাকরি চলে যায়।

দাশিয়ারছড়ার প্রায় ১৭ হাজার বাসিন্দার মধ্যে এখন স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে শিক্ষা গ্রহণকারী আছেন ৪৮ জন। সবাই বেকার। এত সমস্যা পেরিয়ে ও টাকা খরচ করে উচ্চশিক্ষা নেওয়ার পরেও চাকরির সুযোগ না থাকায় ছিটের অভিভাবকেরা যেমন তাঁদের সন্তানদের উচ্চশিক্ষা দিতে আগ্রহ পান না। তেমনি শিক্ষার্থীরাও হতাশ হয়ে এসএসসি পাসের পর আর কলেজে যেতে উৎসাহ হারিয়ে ফেলেন। বড় গাউচুলকার তরুণ শাহজাহান আলী বললেন, ‘চাকরি-বাকরি নাই। এত পড়ালেখা করি লাভ কী?’

এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতেই ছিটের মানুষ প্রথমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানালেন সমন্বয়ের নেতারা। তাঁদের কথা, দেশের মূল ভূখন্ডে যেমন সাইনবোর্ড তুলে ভূমি দখল করা হয়, ছিটের ঘটনা তা নয়। কারও দখলি জমিতে বা ছিটের বাইরের জমিতে এসব সাইনবোর্ড তোলা হয়নি। আজ হোক বা দুই দিন পরে হোক ছিটমহল হস্তান্তর হবে, তা এখন নিশ্চিত। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও হবে। নিয়ম মেনেই তাঁরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করতে সরকারি পর্যায়ে আবেদন জানাবেন। তখন যেন জায়গাজমি নিয়ে সমস্যা না হয়, তাই আগে থেকেই জমি নির্ধারণ করে রাখার জন্য প্রাথমিকভাবে এসব সাইনবোর্ড তোলা হয়েছে। এর সবই যে অনুমোদন পাবে, তা নয়। তবে আপাতত তাদের দাবি, অন্তত একটি মহাবিদ্যালয়, একটি করে বালক ও বালিকা উচ্চবিদ্যালয় এবং মাদ্রাসা ও নয়টি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করা হোক। আর ছিটমহলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হলে তাতে শিক্ষক নিয়োগের সময় ছিটের শিক্ষিত বেকারদের অগ্রাধিকার ও বসয়সীমা শিথিল করে নিয়োগ দেওয়ারও দাবি করেছেন তাঁরা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া