adv
৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বিশ্বব্যাংক সহায়তা বাড়াচ্ছে শিক্ষা খাতে

worldbank1432044587নিজস্ব প্রতিবেদক : উন্নয়নশীল দেশগুলোতে শিক্ষা খাতে সহায়তা বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে দাতা সংস্থা বিশ্বব্যাংক। সংস্থাটির পরিচালনা পর্ষদ পরবর্তী ৫ বছরে এ খাতে ৫০০ কোটি ডলার অনেুমোদন দিয়েছে।
 
মঙ্গলবার সংস্থাটির এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বিশ্ব শিক্ষা ফোরাম ২০১৫-কে কেন্দ্র করে এই সহায়তার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।
 
এ সহায়তা বিভিন্ন দেশের শিক্ষা খাতের উন্নয়নে ব্যয় হবে। সংস্থাটি বলছে, ‘নিম্নমানের শিক্ষা একটি দেশের দারিদ্র দূরীকরণে ‘মারাত্মক বাধা’ হিসেবে কাজ করে।’
 
সংস্থাটি এর আগে ঘোষণা দিয়েছিল, শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নের মাধ্যমে ২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্র দূর করা হবে। এই প্রতিশ্র“তির অংশ হিসেবে ৫০০ কোটি ডলারের সহায়তার ঘোষণা দেওয়া হয়। সংস্থার পরিচালনা পর্ষদ মনে করে, এর ফলে সকল শিশুর দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে সমৃদ্ধ জীবন নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।
 
এদিকে, আগামী সপ্তাহে দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বিশ্ব শিক্ষা ফোরাম-২০১৫। এতে বিশ্বের ১৬০টি দেশের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন।
 উক্ত ফোরামে সকল প্রতিনিধিদের আলোচনার মাধ্যমে পরবর্তী ১৫ বছরে শিক্ষার উন্নয়নের জন্য একটি লক্ষ্যমাত্রা ও ফ্রেমওয়ার্ক তৈরি করা হবে। এই টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য জাতিসংঘের পরবর্তী অধিবেশনে গৃহীত হবে। যা চলতি বছরের শেষ দিকে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় (এমডিজি) উপস্থাপন করা হবে।
 
সংস্থাটি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছে, ‘এতো অগ্রগতি সত্ত্বেও সারা বিশ্বের ১২ কোটি ১০ লাখ শিশু প্রাথমিক শিক্ষার বাইরে রয়ে গেছে। ২০৩০ সালের লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে শুধু শিশুদের শিক্ষার আওতায় আনা নয়, একই সঙ্গে জীবনমান উন্নয়নের শিক্ষাও দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে তাদের স্বাক্ষরতা, গণিত এবং দক্ষতা উন্নয়নের শিক্ষাও দেওয়া হবে। যাতে তারা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং কর্মসংস্থান তৈরিতে অবদান রাখতে পারে।’
 
এ প্রসঙ্গে বিশ্ব ব্যাংক গ্রুপের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম বলেন, ‘এটি চরম সত্য যে, দরিদ্র শিশুরা শিক্ষার প্রকৃত সুবিধা পায় না। এমনকি এ রকম আড়াই কোটি শিশু অনেকদিন স্কুলে গিয়েও ঠিকমত লিখতে-পড়তে পারে না। এটি চরম দারিদ্র থেকে মুক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে একটি বিয়োগান্ত ঘটনা।’
 
এ ছাড়া দক্ষিণ এশিয়ার দেশসমূহের শিক্ষার মানের ওপর প্রকাশিত এক সমীক্ষা রিপোর্ট থেকে বলা হয়েছে, দক্ষিণ এশিয়ার দেশসমূহে শিক্ষার মান হতাশাজনক। এতে বলা হয়, দক্ষিণ এশিয়ায় শিক্ষার মান খুবই দুর্বল। এর প্রতিফলন বেশি লক্ষ্য করা গেছে প্রাথমিক শিক্ষার ক্ষেত্রে। এখানে অধিকাংশ শিক্ষার্থী দরিদ্র পরিবারের। এ অঞ্চলের শিক্ষার্থীরা শিক্ষা নেয় পদ্ধতিগত। বাস্তবভিত্তিক, সমস্যা সমাধান এবং অর্থবহ লেখা ও ব্যাকরণগতভাবে সঠিক বাক্য চয়নের ক্ষেত্রে খুবই দুর্বল।
 
বিশ্ব ব্যাংকের রিপোর্টে বলা হয়, এ অঞ্চলের অনেক দেশে সরকার ২০১৫ সালের মধ্যে সবার জন্য প্রাথমিক শিক্ষার এমডিজি অর্জনে শিক্ষা খাতে বিশাল বিনিয়োগ করেছে। এই বিনিয়োগের ফলে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির হার ২০০০ থেকে ২০১০ সালে ৭৫ শতাংশ থেকে বেড়ে ৮৯ শতাংশ হয়েছে। ল্যাটিন আমেরিকা ও সার্বিয়া এই হার ৯৪ শতাংশ এবং পূর্ব এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ৯৫ শতাংশ।
 
এখন নতুন বিনিয়োগের মাধ্যমে শিক্ষার পাশাপাশি- জীবনমান উন্নয়ন হবে বলেও আশা করছে সংস্থাটি।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া