adv
৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জুনে বাংলাদেশ-ভারত-ভুটান-নেপাল সড়ক পরিবহণ চুক্তি

Kader1431955096 (1)নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ, ভারত, ভুটান ও নেপালের মধ্যে অচিরেই সড়ক পরিবহণ ব্যবস্থা চালু হতে যাচ্ছে।
এ বিষয়ে আগামী জুনে চার দেশের মধ্যে মন্ত্রী পর্যায়ে ভুটানের রাজধানী থিম্পুতে একটি চুক্তি সই হতে পারে । এ ছাড়া ঢাকা-শিলং-গুয়াহাটি রুটে আগামী ২২ মে পরীক্ষামূলক বাস চলাচল শুরু হতে যাচ্ছে। এ বিষয়ে একটি চুক্তি সই করতে দুই দেশ সম্মত হয়েছে ।
 
সোমবার নয়াদিল্লির পরিবহণ ভবনে সফররত বাংলাদেশের সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সড়ক পরিবহণ, মহাসড়ক ও নৌ-পরিবহণমন্ত্রী নিতীন গড়করির মধ্যে এ দুটি বিষয় ছাড়াও অন্যান্য বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।
 
নয়াদিল্লি থেকে সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মো. আবু নাছের জানান, বৈঠকে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিদ্যমান সড়ক নেটওয়ার্ক আরো জোরদার করণে দুই দেশের মধ্যে প্রস্তাবিত বিবিধ চুক্তি ও প্রকল্পের অগ্রগতি পর্যালোচনা করা হয়।
 
ভারতের সম্ভাব্য দ্বিতীয় ঋণ সহায়তার আওতায় বিআরটিসির জন্য ৫০০ ট্রাক, ৩০০ ডাবলডেকার বাস, ১০০ আর্টিকুলেটেড বাস এবং প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সংগ্রহের বিষয়ে বাংলাদেশের প্রস্তাবে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যায়।
 
এ ছাড়া ভারতের সহায়তায় রামগড়-সাবরুম পয়েন্টে ফেনী নদীর ওপর সেতু নির্মাণ, কলকাতা-ঢাকা-আগরতলা বাস সার্ভিস চালু, আশুগঞ্জ-আখাউড়া সড়ক চার লেনে উন্নীতকরণসহ অন্যান্য বিষয় আলোচনায় স্থান পায়।
 
এ সময় সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দীর্ঘ প্রত্যাশার স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নে সংবিধান সংশোধন বিল ভারতের রাজ্যসভা ও লোকসভায় সর্বসম্মতিক্রমে পাস হওয়ায় নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন সরকার, বিরোধী দলসহ সব রাজনৈতিক দল ও ভারতীয় জনগণকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও জনগণের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানান।
 
মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা দুই দেশের মধ্যে সন্দেহ ও অবিশ্বাসের দেয়াল ভেঙে সৌহার্দ্যের সেতুবন্ধ রচনা করতে চাই। দুই দেশের মধ্যে সড়ক নেটওয়ার্ক জোরদার করার মাধ্যমে অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা, উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হবে।’
 
বৈঠকে সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, সাত সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন। প্রতিনিধিদলে ছিলেন সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী এম ফিরোজ ইকবাল, সড়ক পরিবহণ ও মহাসড়ক বিভাগের যুগ্ম সচিব চন্দন কুমার দে, সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী শিশির কান্তি রাউথ এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মো. আবু নাছের।
 
এ সময় নয়াদিল্লিস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনের ডেপুটি হাইকমিশনার সালাহ উদ্দিন নোমান চৌধুরী, হাইকমিশনের প্রথম সচিব শেখ শাহরিয়ার মোশাররফ প্রতিনিধিদলে ছিলেন।
 
প্রসঙ্গত, ভারতের সড়ক পরিবহণমন্ত্রীর আমন্ত্রণে বাংলাদেশের সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী চার দিনের সফরে বর্তমানে দিল্লিতে অবস্থান করছেন।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া