adv
২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কী দারুণ দেখতে!

Children21430885823ডেস্ক রিপোর্ট : এটি রাজশাহী নগরীর সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিত্যদিনের দৃশ্য। বিড়ি-সিগারেট দিয়ে শুরু করে ক্রমান্বয়ে সর্বনাশা মাদকে আসক্ত হয়ে পড়ছে তারা। অনেকেই মন্তব্য করেছেন, বাহ কী দারুণ দেখতে। প্রশাসন যেনো থেকেও নেই। ওদেও উদ্ধাওে কেউই এগিয়ে আসে না।
এরা নগরীর বিভিন্ন বস্তি এলাকায় বসবাস করে, অনেকে ভাসমান। আর্থিক অসচ্ছলতা, বিভিন্ন প্রতিকূলতার মাঝে জীবনযাপন, বাবা-মায়ের বিচ্ছেদ-অভিভাবকহীনতা, পারিবারিক অশান্তি, কুসঙ্গের প্রভাবে মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে এসব সুবিধাবঞ্চিত শিশু। ফলে সমাজে বাড়ছে অপরাধ। এ ছাড়া মাদকাসক্ত হওয়ার কারণে বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ও মানসিক সমস্যায় ভুগছে শিশুরা। হারিয়ে ফেলছে জীবনীশক্তি।
 
মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে স্কুল-কলেজগামী শিশুরাও। নগরীর বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীরাও মাদকে আসক্ত হয়ে পড়ছে। মাদকে আসক্ত এসব শিশুর মধ্যে ছেলেদের হার সবচেয়ে বেশি। কুসঙ্গের প্রভাবেই শিশুরা জড়িয়ে পড়ছে মাদকে। প্রধানত বন্ধুদের প্ররোচনা ও পাড়ার ছেলেদের প্ররোচনায় জড়িয়ে পড়ছে মাদকে তারা। সিগারেট দিয়ে শুরু হলেও ক্রমান্বয়ে তারা ফেনসিডিল, গাঁজা, ইয়াবা, পেথিডিন ও ড্যান্ডির মতো মাদকে আসক্ত হচ্ছে। স্কুল চলাকালীন ক্লাস ফাঁকি দিয়ে দলবদ্ধভাবে এসব শিশু মাদক সেবন করে।
 
কিন্তু এ বিষয়ে সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নেই সঠিক পরিসংখ্যান ও যথাযথ উদ্যোগ। এ ছাড়া মাদকাসক্ত শিশুদের পুনর্বাসনের জন্য নেই পর্যাপ্ত সুবিধা। রাজশাহী মাদক নিরাময় ও চিকিৎসাকেন্দ্রে শয্যা আছে মাত্র পাঁচটি। কিন্তু সেখানে শিশুদের চিকিতসা হয় না।
 
একটি সংস্থার মতে, রাজশাহী জেলায় প্রায় ৩০ হাজার শিশুশ্রমিক রয়েছে। এরা কেউ কুলিগিরি করে, কেউ ফুটপাতে পলিথিন ও কাগজ কুড়ায়, কেউ চা স্টলে, রেস্টুরেন্ট বয়ের কাজ করে, কেউ রিকশা, ভ্যান চালায়, কেউ বিভিন্ন ভটভটি ও মাহিন্দ্র গাড়ির হেলপারি করে। এসব করে যা টাকা পায় তা দিয়ে মাদক সেবন করে। অনেক সময় মাদকের টাকা সংগ্রহের জন্য এরা চুরি ও ছিনতাই করে। এই শিশুদের অনেকে যুক্ত আছে মাদক ব্যবসার সঙ্গেও। বড়রা এদের ব্যবহার করে।
 
সরেজমিনে দেখা গেছে, ড্যান্ডি নামে নতুন ও সহজলভ্য মাদকে আসক্ত হয়ে পড়ছে সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা। ড্যান্ডি এক ধরনের আঠা, যা মূলত সলিউশন নামে পরিচিত। এতে টলুইন নামে একটি উপাদান আছে। টলুইন মাদকদ্রব্যের তালিকায় আছে। এটি জুতা তৈরি ও রিকশা-সাইকেলের টায়ার টিউবের ছিদ্র বা জোড়া লাগানোর কাছে ব্যবহৃত হয়। এটি খেলে ক্ষুধা ও ব্যথা লাগে না। দীর্ঘ মেয়াদে খেলে মস্তিষ্ক, যকৃৎ ও কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।
 
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, নগরীর গুড়িপাড়া এলাকা হচ্ছে মাদকের ঘাঁটি। বিভিন্ন দলের রাজনৈতিক নেতা-কর্মী থেকে শুরু করে এলাকার প্রভাবশালী মধ্যস্বত্বভোগীরা এ পেশার সঙ্গে যুক্ত। এরা শিশুদের ব্যবহার করে। এতে তাদের লাভ অনেক বেশি হয়।
 
নগরীর মধ্যে গড়ে ওঠা বস্তি, বিশেষ করে বহরমপুর থেকে কাশিয়াডাঙ্গা মোড় পর্যন্ত, তালাইমারী, ভদ্রা, বুলনপুর, বিনোদপুর, বিশ্ববিদ্যালয়ের বুধপাড়া রেল বস্তি ও খড়খড়ি এলাকার শিশুশ্রমিকরা মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। অনেকে ভাসমান মাদকাসক্ত। তারা রেলস্টেশন ও বাস টার্মিনাল এলাকায় থাকে। এসব শিশু প্রধানত গাঁজা ও ফেনসিডিলে  আসক্ত। বিভিন্ন সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এদের ধরলেও শিশু হওয়ার কারণে কাউন্সেলিং করে ছেড়ে দেওয়া হয়।
 
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ফজলুর রহমান জানান, বস্তি এলাকার শিশুরা মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। বিভিন্ন চক্র মাদক ব্যবসার সঙ্গে এসব শিশুকে ব্যবহারও করছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে অনেকে ধরাও পড়ছে। সে ক্ষেত্রে শিশু বিবেচনা করে কাউন্সেলিং দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। অনেক মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত পরিবারের শিশুরাও মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। এসব ক্ষেত্রে পরিবারের সদস্যরা অস্বীকৃতি জানায়। তিনি মাদকাসক্তের মূল ঘাঁটিগুলো বন্ধ করা উচিত বলে মনে করেন। এ ক্ষেত্রে সর্বস্তরের মানুষকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা উচিত।
 
মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রকাশনা ও মেডিক্যাল জার্নাল থেকে জানা যায়, মাদক হচ্ছে উচ্চমাত্রার নিকোটিন।  যা শরীরে প্রবেশ করানোর পর উত্তেজনা বেড়ে যায়। বুকের মধ্যে আনন্দ অনুভূত হয়। উৎফুল্ল লাগে। মনে হয়, পৃথিবীটা অনেক আনন্দের। দুঃখ, হতাশা, কষ্ট বলে কোনো কিছু নেই। কিন্তু মাদকের ক্রিয়া শেষ হওয়ার পর শরীর ভয়ানক দুর্বল হয়ে পড়ে। সেই দুর্বলতা কাটানোর জন্য আবার মাদক সেবনের আকাঙ্ক্ষা জাগে।
 
এভাবে ক্রমান্বয়ে মাদকের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়েছে সংশ্লিষ্টরা। তারা হারিয়ে ফেলে জীবনের সুস্থতা। অনিদ্রা, দুর্বলতা গ্রাস করে তাদের জীবন। কোনো কাজে আগ্রহ পায় না। ধীরে ধীরে অন্ধকার জগতের বাসিন্দা হয়ে পড়ে তারা। সমাজে বেড়ে যায় অপরাধ। মাদকের টাকা সংগ্রহের জন্য চুরি, ছিনতাই, এমনকি হত্যাকাণ্ড পর্যন্ত সংঘটিত হয়।
 
রেলস্টেশনে কাগজ সংগ্রহের কাজ করে মাইনুল ইসলাম (ছদ্মনাম)। তার বয়স ১০ বছর। কাগজ সংগ্রহ করে দেওয়ার বিনিময়ে প্রতিদিন ৬০ টাকা পায় সে। বাবা-মাকে দেখেনি। এক দূরসম্পর্কের ফুফুর কাছে বড় হয়েছে। পরে সেই ফুফুও তাকে ছেড়ে চলে যায়। প্রথমে বন্ধুদের সঙ্গে পাল্লায় পড়ে বিড়ি খেতে শুরু করে। এভাবে চলে কিছুদিন। তারপর একদিন ওর বন্ধুরা বিড়িতে গাঁজা ভরে দেয়। নিজের অজান্তে গাঁজাতে টান দেয়। মাইনুল জানায়, ‘প্রথমে টান দিয়ে চোখমুখ আন্ধার (অন্ধকার) হয়ে যায়।  মাথা ঘুরতে লাগে। এখন স্বাভাবিক হয়ে গেছে।’ প্রতিদিন দুই তিন পুরিয়া গাঁজা টানে সে।
 
বিশ্ববিদ্যালয়ের বুধপাড়া বস্তি এলাকায় বসবাস করে খবিরুল ইসলাম (ছদ্মনাম)। বয়স ১৮ বছর। এবার এইচএসসি পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বন্ধুদের পাল্লায় পড়ে সিগারেট খেতে শুরু করে। পরে গাঁজা। এখন ফেনসিডিলে আসক্ত। ভাড়ায়চালিত অটোরিকশা চালায়। যা টাকা পায়, তার বেশির ভাগই মাদক সেবনে শেষ করে। পড়ালেখাও ছেড়ে দিয়েছে।
 
ভদ্রা বস্তিতে বাস করে আমিনুর ইসলাম (ছদ্মনাম)। বয়স ১৫ বছর। সে মাহেন্দ্র গাড়ির হেলপার। বাবা ছেড়ে দেওয়ার পর মা-ও অন্য জায়গায় আবার বিয়ে করে। এখন সে একা হয়ে গেছে। হেলপারি করে সেই টাকা দিয়ে কোনোরকমে কষ্টেসৃষ্টে জীবন চালায়। ওখান থেকেই টাকা দিয়ে গাঁজা থেকে শুরু করে মদ খায় পাড়ার ছেলেদের সঙ্গে।
 
আমিনুর বলে, বিড়িতে গাঁজা ভরে প্রতিদিন খাওয়া হয়। মাঝে মাঝে পাড়ার ছেলেদের সঙ্গে মিশে ফেনসিডিল কিনে খাওয়া হয়।
 
‘জীবন চাই’ মাদক পুনর্বাসন কেন্দ্রের নির্বাহী প্রধান ইয়াসিনুল হাবিব বলেন, বস্তির শিশুরা বেশি আসক্ত। এ ছাড়া মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত পরিবারের শিশুরাও মাদকাসক্ত। দরিদ্র পরিবারের শিশুরা টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারে না। মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত পরিবারের লোকেরাও সম্মানহানির ভয়ে চিকিতসা করাতে চায় না। ফলে শিশু মাদকাসক্তের সংখ্যা বাড়ছে। তিনি এ বিষয়ে সরকারে আরো গুরুত্ব দেওয়া উচিত বলে মনে করেন।
 
রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মনোরোগ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দিন আহমদ বলেন, মাদক নার্ভাস সিস্টেমকে স্টিমুলেট করে। উত্তেজনা বাড়িয়ে দেয়। ফলে ধীরে ধীরে মাদকসেবীরা আরো বেশি আসক্ত হয়ে পড়ে। অত্যধিক আসক্ত হওয়ার ফলে স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যাহত হয়। কোনো কাজে আগ্রহ পায় না। বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ও মানসিক রোগে আক্রান্ত হয়। অর্থাৎ জীবনের সুস্থতা হারিয়ে ফেলে তারা।
 
রাজশাহী নগর পুলিশের (আরএমপি) মুখপাত্র সহকারী কমিশনার ইফতে খায়ের আলম বলেন, ‘আমরা সব ধরনের মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করি। মাদকের ঘাঁটিগুলো নির্মূল করার জন্য এ অভিযান অব্যাহত আছে। আর শিশুদের জন্য প্রধানত সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির ওপর জোর দিই। এর পরও কোনো শিশু মাদকসেবী অপরাধ করলে তাকে শিশুদের জন্য যে কিশোর আদালত আছে, সেখানে বিচার করা হয়। ’এ ক্ষেত্রে সমাজের সর্বস্তরের মানুষের এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করেন তিনি। তথ্য সূত্র – রাইজিংবিডি

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া