adv
২৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিটি নির্বাচন এবং বিএনপির অপরিপক্ক সিদ্ধান্ত

mahfuz-anam-44_56105_64342মাহফুজ আনাম : সদ্য সমাপ্ত ঢাকা ও চট্টগ্রামে তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তিনটি উপসংহার টানা যেতে পারে:
আমাদের নির্বাচন কমিশন জনগণের কাছে আস্থাভাজন হতে এখনও অনেক দূরে। তারা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের কাছে বিশ্বাসযোগ্য হতে পারে। কিন্তু বিষয়টি হলো, এটি তা করার জন্যে চেষ্টাও করছে না।

 ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ কখনোই অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনে আগ্রহী ছিল না। তারা ফলাফল নিজেদের দিকে নিতে রাষ্ট্রীয় যন্ত্র বিশেষ করে পুলিশ, আনসার ও তাদের পেশী শক্তি ব্যবহার করেছে।

বিএনপির নির্বাচন যুদ্ধে প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে আন্তরিকতার ঘাটতি ছিল। যদি আগে থেকে নির্ধারিত করা না থাকে তাহলে মাঝ পথে এসে তাদের নির্বাচন বর্জন করার সিদ্ধান্ত ছিল অপরিণত বা অবুদ্ধিমানের কাজ। মেয়র পদে জেতার চেয়ে শেখ হাসিনার সরকারের অধীনে যে বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন সম্ভব নয় এটি প্রমাণ করাই তাদের মূল উদ্দেশ্য ছিল।       
নির্বাচন কমিশনও জনগণের আস্থা অর্জন করতে চেষ্টা করেনি। জনগণের বিশ্বাস অর্জন করতে যেভাবে কাজ করার দরকার সেভাবে তারা করেনি। তারা যান্ত্রিক উপায়ে কাজ করেছে। তারা হয়তো বুঝতে পারেনি যে আস্থা তৈরি করা সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কারণ, এর আগে কেউ এটি করতে পারেনি।
মাঠ পর্যায় থেকে কোনও অভিযোগ গুরুত্বের সাথে নেয়া হয়নি। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেয়াও ছিল আনুষ্ঠানিকতা মাত্র। এটি এমন ছিল যে, রিটার্নিং অফিসাররা তাদের নির্দিষ্ট এলাকার অভিযোগ তদন্ত করে দেখবে।
সত্য ব্যাপারটা হলো, রিটার্নিং অফিসাররা ডেপুটি সেক্রেটারি লেভেলের আমলা। তারা বিরোধী দলের অভিযোগ গুরুত্বের সাথে খুব কমই নেয়।
ক্ষমতাসীন দলের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা ও মন্ত্রীদের ইলেক্টোরাল কোড অব কন্ডাক্ট ভঙ্গের ক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ার সাহস রিটার্নিং অফিসারদের নেই।
আমাদের কাছে যে তথ্য আছে তা অনুযায়ী, নির্বাচনের দিন বিএনপিপন্থি ও অন্যান্য প্রার্থীরা নির্বাচন কমিশনের কাছে মোট ৩২টি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
নির্বাচন পরবর্তী দুইদিনে আরও ১২টি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এগুলো যেভাবে দেয়া হয়েছে সেভাবেই ফাইলবন্দি হয়ে পড়ে আছে।
খালেদা জিয়ার গাড়ি বহরে হামলা ও নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নির্বাচন কমিশনের বিশ্বাসযোগ্যতা হরণ করেছে।
খালেদা জিয়ার গাড়ি বহরে গাড়ির সংখ্যা উল্লেখ করে খালেদা জিয়াকে নির্বাচনের আচরণ বিধি ভঙ্গ করার বিষয়ে নোটিশ পাঠানো ও তার গাড়ি বহরে হামলার বিষয়টি উপেক্ষা করা ছিল একপেশে সিদ্ধান্ত।
যদিও খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলার বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে সাজানো নাটক বলা হয়েছে তারপরও নির্বাচন কমিশনের উচিৎ ছিল এটি তদন্ত করা এবং বিএনপি চেয়ারপার্সনকে সেটি করার জন্যে বিএনপি চেয়ারপার্সনকে তিরস্কার জানানো।
গণমাধ্যমে ব্যাপকভাবে এ বিষয়টি আসার পরও সেটিকে উপেক্ষা করা নির্বাচন কমিশনের বিশ্বাসযোগ্যতাকে খাদের মধ্যে ফেলেছে।
সেনা মোতায়েনের ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত আরও বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। কারণ, ইতোপূর্বে নির্বাচনে সেনা ব্যবহার করা হয়েছে। আমরা দেখেছি নির্বাচনের দিন কয়েকটি সহিংসতার ঘটনা ঘটলেও সেনাবাহিনীকে ডাকা হয়নি।
সবকিছুই পুলিশের উপর ছেড়ে দেয়া হয়েছিল। নির্বাচনী অসদাচারণে তাদের ভূমিকা ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে প্রচার করা হয়েছে।
মূল বিষয় হলো, আওয়ামী লীগ কখনও সত্যিকারের অবাধ, সুষ্ঠু ও প্রতিযোগিতাপূর্ণ নির্বাচন করতে আগ্রহী ছিল না। এর প্রমাণ আগেই পাওয়া গিয়েছিল। পুলিশ দিয়ে বিরোধী দলের প্রার্থীদের সম্ভাব্য সকল উপায়ে হেনস্থা করা হয়েছে।
বিরোধী দলের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাতে আওয়ামী লীগের হাতে বড় একটি হাতিয়ার ছিল। গত জানুয়ারি-মার্চ পর্যন্ত সময়ে বিএনপির চালানো সরকার বিরোধী আন্দোলনের সময়ে চলা সহিংসতাকে প্রচারণায় কাজে লাগানো হয়েছে।
বিএনপির আন্দোলনের সময়ে পেট্রল বোমা দিয়ে মানুষ মারার বিষয়টি গণতান্ত্রিক দল হিসেবে তাদের খ্যাতি নষ্ট করেছে।
বিএনপির নেতাকর্মীদের আইনি প্রক্রিয়ায় গ্রেপ্তার করতে ও নির্বাচনী প্রচারণা থেকে তাদের দূরে সরিয়ে রাখতে এটি ক্ষমতাসীন দলকে ভালো একটি সুযোগ তৈরি করে দিয়েছিল। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের বিএনপিপন্থী প্রার্থী গ্রেপ্তারের ভয়ে একদিনও নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারেননি।
মামলার ক্ষেত্রে ‘অজ্ঞাতনামা হামলাকারী’ বিধানটি পুলিশকে যে কাউকে পেট্রল বোমা ছোঁড়া বা অন্যান্য সহিংসতার মামলায় আটক করার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। বিএনপি নেতাকর্মী ও এর সমর্থকদের ভয় দেখাতে এটি যথাযথবাবে ব্যবহার করা হয়েছে।
বিএনপির মুখপাত্র সালাহউদ্দীন আহমেদকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া ও পরে তার কোনও খোঁজ না পাওয়া অন্যান্য বিএনপি নেতাকর্মীদের মাঝে শিহরণ তৈরি করেছে।
লখেক: মাহফুজ আনাম, ডইেলি স্টার সম্পাদক

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া