adv
২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রামপুরায় যুবলীগ নেতার টিনসেড বাড়ি দেবে গিয়ে ১১ জনের মৃত্যু

download (1)নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর রামপুরা বউবাজার এলাকায় মজা ঝিলের ওপর নির্মিত ঢাকা মহানগর যুবলীগের (দক্ষিণ) তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মনিরুজ্জামানের টিনশেড বাড়ি দেবে গিয়ে  ১১ জন নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে একই পরিবারের চার সদস্য রয়েছেন।
নিহতরা হলো- নিজাম উদ্দিন (৪৫), মিজানুর (৩০), হারুন অর রশিদ (২৮), সাইফুল ইসলাম (১৪), খাদিজা (১৯), কল্পনা (৪৫), রোকসানা (২২) ও জোছনা (৪০), ফারজানা (১২) জাকির (৩৫) এবং রুনা (১৪)।
টিনশেড থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা ১২ জনকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতদের অধিকাংশই পোশাক শ্রমিক। তা ছাড়া ওই টিনশেডে বসবাসকারী সবাই পোশাক শ্রমিক বলে জানা গেছে।
এ ঘটনায় প্রথমে আহত দুজনকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিতসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।
পরে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে দেবে যাওয়া বাড়ি থেকে পাঁচজনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে আরেকজন এবং এর কিছুক্ষণ পর আরো দুজনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। ৭টা ৫৫ মিনিটের দিকে আরেকটি লাশ উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে নিহতের সংখ্যা দাঁড়াল ১১ জনে।
ওই টিনশেডের নিচতলায় সপরিবারে থাকতেন নার্গিস। তিনি জানান, তিনি বাইরে ছিলেন। খবর পেয়ে ছুটে এসে দেখেন, তাদের ঘর দেবে গেছে। ঘর থেকে তার স্বামী কোনোমতে প্রাণ নিয়ে বের হলেও তার ভাইবোন বের হতে পারেননি।
নার্গিস আরো জানান, এই টিনশেড বাড়ির ২২টি কক্ষে ১৫টি পরিবার বাস করত। পতিত ঝিলের ওপর স্থানীয় কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি বাড়ি নির্মাণ করে ভাড়া দিয়েছে। জায়গাটি সরকারি।
রামপুরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহাবুবুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে মৃতদেহ উদ্ধারের বিষয়টি তিনি নিশ্চিত করেন।
 ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক এ বি এম নুরুল হক জানান, পুরোনো ঝিলের ওপর নির্মিত দুর্বল কাঠামোর টিনশেড বাড়িটি বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে হঠাত কাদা-পানিতে দেবে যায়। এতে ওই হতাহতের ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি উদ্ধারকারী দল দেবে যাওয়া টিনশেড থেকে লোকজনকে উদ্ধারে এখনো ততপরতা চালাচ্ছে। সেই সঙ্গে রেড ক্রিসেন্টের ১২ সদস্যের একটি দল উদ্ধারকাজে অংশ নিয়েছে।
টিনশেড বাড়িটির মালিকের পরিচয় পাওয়া গেছে। তিনি ঢাকা মহানগর যুবলীগের (দক্ষিণ) তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মনিরুজ্জামান।
ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক (অপারেশন) মেজর শাকিল নেওয়াজ জানান, উদ্ধারকাজ শেষ হতে আরো সময় লাগবে। কাঁদা-পানিতে ঘর ডুবে যাওয়ায় উদ্ধারকাজ ব্যাহত হচ্ছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দুটি ক্রেন আনা হয়েছে এবং তা উদ্ধারকাজে ব্যবহার করা হবে। তিনি আরো জানান, ফায়ার সার্ভিসের প্রচেষ্টায় নয়টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তারা আসার আগেই দুজনকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিতসক তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন।

জেলা প্রশাসনের প্রতিনিধি শাকিল আহমেদ জানান, নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা দেওয়া হবে। আহতদের প্রতি পরিবারকে ৫ হাজার টাকা দেওয়া হবে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর সদস্যের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে রামপুরার চৌধুরীপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।
এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে ঢাকার জেলা প্রশাসক এই ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছেন। কমিটির প্রধান করা হয়েছে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট শহিদুল ইসলামকে। তিন থেকে পাঁচ দিনের মধ্যে এই কমিটিকে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া