adv
২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিটি নির্বাচন করতে কারাবন্দি মান্না মনোনয়ন কিনবেন মঙ্গলবার

image_191981.manna-05-400x266নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকার উত্তর সিটি কর্পোরেশনে মেয়র পদপ্রার্থী হতে আজ মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র কিনবেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। তবে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় কারাবন্দি থাকায় তার পক্ষে মনোনয়নপত্র কিনবেন পাঁচ সদস্যের একটি দল। যারা নাগরিক ঐক্যের  নেতাকর্মী। মান্নার পরিবারের কেউ যাবেন না। সোমবার রাতে কয়েক ঘণ্টাব্যাপী এক বৈঠকে নাগরিক ঐক্য এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
নাগরিক ঐক্যে কেন্দ্রীয় সদস্য আতিকুর রহমানসহ একাধিক সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বৈঠকের সূত্রগুলো জানায়, মান্নার পক্ষে মনোনয়ন কিনতে যাবেন নাগরিক ঐক্যের কেন্দ্রীয় সদস্য আতিকুর রহমান, হামদে রাব্বি, জিল্লুর রহমান দীপু, ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক শহীদুল্লাহ, দক্ষিণের আহ্বায়ক আবুবকর সিদ্দিকী।
সূত্র আরও জানায়, মনোনয়ন কেনার পর যথাযথ নিয়মানুযায়ী মান্নার সাক্ষর নেয়া হবে কারাগার থেকেই।
বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা ও অজ্ঞাত একজন ব্যক্তির সঙ্গে ফোনালাপে সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার লক্ষ্যে সেনাবাহিনীকে উৎসাহিত করতে উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি সকালে মান্নাকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।
র‌্যাব-২ তাকে আটক করে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)- এর যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলাম।
২৪ ফেব্র“য়ারি তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে গুলশান থানার উপ-পরিদর্শক সোহেল রানা বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।
২৫ ফেব্র“য়ারি এ মামলায় মান্নার ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন আদালত।
৭ মার্চ থেকে দ্বিতীয় দফায় রিমান্ড শুরু হয়েছিল তার।
১০ মার্চ রাতে হঠাৎ অসুস্থ হলে মান্নাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিট (সিসিইউ)তে ভর্তি করে পুলিশ। মান্নার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ উঠেছিল- রিমান্ডে নির্যাতনের ফলে মান্না অসুস্থ হয়েছিলেন। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলাম বিষয়টি অস্বীকার করে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, মান্না উচ্চ রক্তচাপের রোগী ছিলেন তা আগেই আদালতকে জানানো হয়েছিল। তাকে কোনো ধরণের নির্যাতন করা হয়নি।
মান্নার হৃদপি-ের প্রধান শিরায় তিনটি ব্লক ধরা পড়েছিল বলে জানিয়েছিলেন তার চিকিতসার জন্য গঠিত পাঁচ সদস্যের একটি মেডিকেল বোর্ড। ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় সেখানে রিং পরানো সম্ভব হয়নি বলেও চিকিতসকরা জানিয়েছিলেন।
১৯ মার্চ তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র প্রদান করেন চিকিতসকরা। সেদিনই তাকে নেয়া হয় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে।
হাসপাতালে ভর্তি থাকা অবস্থায় আবেদনের প্রেক্ষিতে মান্নার রিমান্ড বাতিল করেছিলেন আদালত।
গত ১৫ মার্চ মান্নার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটির তদন্তভার গুলশান থানা থেকে ডিবি পুলিশের কাছে স্থানান্তর করা হয়।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া