adv
২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

২ মাসে সহিংসতায় ১২শ’ গাড়িতে আগুন – নিহত ৬৪

vwsomdoaডেস্ক রিপোর্ট : টানা অবরোধ-হরতালে গাড়ি ভাঙচুর, বাস-ট্রাকে অগ্নি সংযোগ ও পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ অব্যাহত রয়েছে। তবে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি পর থেকে পরিবহন সেক্টরে নাশকতার মাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে।
বিএনপি-জামায়াত জোটের ৬০ দিনের অবরোধ ও হরতালে রাজধানীসহ সারাদেশে পেট্রলবোমা হামলা, আগুন, গণপিটুনি ও বন্দুকযুদ্ধে ১১৫ জন নিহত হয়েছে। আহত ও দগ্ধ হয়েছে ১ হাজারেরও বেশি। পুলিশ আহত হয়েছে তিনশ’র বেশি। অন্যদিকে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের এক তথ্যে জানা গেছে, ৫ জানুয়ারি থেকে ৪ মার্চ (দুপুর ১ টা পর্যন্ত) পেট্রলবোমা, আগুন ও নাশকতায় মোট ৬৪ জন নিহত হয়েছে। এর মধ্যে একজন পুলিশও রয়েছে।
অপরদিকে অবরোধ ও হরতালকারীরা ১২শ’র বেশি গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নি সংযোগ করেছে। ।
বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির হিসাবে, অব্যাহত নাশকতায় পরিবহন খাতে প্রতিদিন ৩০০ কোটি টাকা ক্ষতি হচ্ছে। এছাড়া পণ্য পরিবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও পিকআপ মালিক-শ্রমিকদের ক্ষতি প্রায় ১০০ কোটি টাকা। এ হিসাবে এ পর্যন্ত পরিবহন খাতে ক্ষতি হয়েছে মোট ৯ হাজার কোটি টাকা। ২০ লাখ পরিবহন শ্রমিকের অর্ধেক, অর্থাৎ ১০ লাখ হয়েছেন কর্মহীন। দেশে ২ লাখ ৪০ হাজার ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও পিকআপ রয়েছে। বর্তমানে যার মাত্র এক-তৃতীয়াংশ চলছে বলে সমিতির নেতারা দাবি করেন।
হরতাল-অবরোধে কোনো যানবাহন ক্ষতিগ্রস্ত হলে ওই গাড়ির মালিককে দেয়া হচ্ছে ক্ষতিপূরণের টাকা। ড্রাইভার, সুপারভাইজার, হেলপার বা কোন পরিবহনের শ্রমিক মারা গেলেও দেয়া হচ্ছে ক্ষতিপূরণ। কিন্তু যাত্রী মারা গেলে কী দেয়া হবে? এমন প্রশ্নই এখন সাধারণ মানুষের মধ্যে নাড়া দিচ্ছে।
অবরোধ নাশকতায় কোনো পরিবহনের শ্রমিক মারা গেলে সরকার বা মালিক পক্ষ থেকে ৫০ হাজার থেকে ৩ লাখ টাকা পর্যন্ত অনুদান দেয়া হয়। কিন্তু কোন পরিবহনের যাত্রী মারা গেলে সরকার বা পরিবহন মালিক পক্ষ থেকে কোন অনুদান দেয়া হয় না। পরিবহন মালিকরা ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ির ক্ষতিপূরণ বাবদ সিটি এলাকায় গাড়িপ্রতি ১ লাখ টাকা, আর দূরপাল্লার গাড়ির জন্য ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত দাবি করেছেন। সরকারও ক্ষতিপূরণ দেয়ার আশ্বাস দিয়েছে।
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চলমান হরতাল-অবরোধে শিশু, নারীসহ সাধারণ যাত্রীদের হতাহতের ঘটনা ঘটলেও তাদের ক্ষতিপূরণ প্রদানে সরকারের কোনো ঘোষণা নেই। যাত্রীদের ক্ষয়ক্ষতির তালিকাও করা হচ্ছে না সংশ্লিষ্ট কোনো সংস্থার পক্ষ থেকে। এ জন্য সরাসরি কোনো সংস্থা নেই।
গত ২০১৩ সালের ১৮ ডিসেম্বর থেকে ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত পরিবহন সেক্টরের ড্রাইভার, সুপারভাইজার, হেলপার থেকে শুরু করে ৫৮ জন মারা যাওয়া স্বজন প্রতি পরিবারকে ৫০ হাজার থেকে আড়াই লাখ পর্যন্ত মোট ১ কোটি ৪২ লাখ টাকার অনুদান দেয়া হয়েছে। কিন্তু কোন যাত্রী পরিবার পরিজনদেরকে কোন অনুদান দেয়া হয়নি।
তবে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা জানান, যাত্রীদের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে আবেদন করলে অনুদান দেয়া হবে। এ পর্যন্ত কোন মারা যাওয়া যাত্রী স্বজনদের পক্ষ থেকে কোন আবেদন করা হয়নি। ২০ দলীয় জোটের ৫ জানুয়ারি থেকে চলা টানা অবরোধ-হরতালে গাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিকাণ্ড এবং পরিবহন কর্মীদের হতাহতের তালিকা করছে পরিবহন মালিক-শ্রমিক সংগঠন। পরিবহন ক্ষতিগ্রস্থ হলে তালিকা করছে সড়ক পরিবহন সমিতি আর শ্রমিকদের জন্য তালিকা করছে শ্রমিক ফেডারেশন।
এ তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জমা দেয়া হবে। পরিবহন নেতারা বলছেন, সরকারের তরফ থেকে যে ক্ষতিপূরণের ঘোষণা দেয়া হয়েছে, তা পর্যাপ্ত নয়। পরিবহন মালিক সমিতির নেতারা দাবি করেছেন, একদিন গাড়ি বন্ধ থাকলে ৩শ কোটি টাকার ক্ষতি হয়। এ পর্যন্ত ১২’শ গাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।
সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালের সহিংসতায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ১ কোটি ৬৫ লাখ টাকা পাওয়া গেছে। ঢাকাসহ সারা দেশের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবহন মালিকরা এ অর্থ পেয়েছেন। আর ঢাকার পরিবহন মালিকদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা সড়ক পরিবহন ফেডারেশন দেড় কোটি টাকা দিয়েছে ক্ষতিগ্রস্তদের। নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, ২০ দলীয় জোট আন্দোলনের নামে সারাদেশে তান্ডব চালিয়ে যাচ্ছে। একের পর নাশকতার কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। নাশকতায় কেবল পরিবহন কর্মীরাই নন, যাত্রীরাও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। আর্থিকভাবে তা পূরণ করা কঠিন।
স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদ্দুজ্জামান কামাল বলেন, হরতাল-অবরোধের সময় কলকারখানা, স্কুল, কলেজ, হাট-বাজার ঠিক ঠাক চলছে। কিন্তু পরিবহনের ওপর কেন এই হামলা। হুমকি দিয়ে ঘরে বসে থাকবেন (বিএনপি নেত্রী) আর টোকাই দিয়ে গাড়ি জ্বালিয়ে দেবেন, এটা আর হতে দেয়া হবে না।
ঢাকা সড়ক পরিবহন সমিতির সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, ব্যবসায়ীরা ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে প্রতিটি গাড়ি কেনেন ৮০ লাখ থেকে ১ কোটি টাকায়। মুহূর্তেই তা পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। গাড়ির মূল্য ধরে ক্ষতিপূরণ পাওয়া যায় না। তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে ক্ষতিপূরণ কোনো সমাধান নয়। সহিংসতা বন্ধ হয়ে যাবে এটাই প্রত্যাশা।
বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী বলেন, সহিংসতায় নিহত পরিবহন শ্রমিকরা কিছু অর্থ পান। তাও অপর্যাপ্ত। তাদের পরিবার দুর্বিষহ জীবনযাপন করতে বাধ্য হয়। এছাড়া আহত হয়ে পঙ্গু হওয়া ব্যক্তিরা কোনো ক্ষতিপূরণই পান না। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গত ৫ জানুয়ারি দেশব্যাপী অনির্দিষ্টকালের জন্য অবরোধের ডাক দেন। এ ঘোষণার পরপর সারাদেশে বিএনপি-জামায়াত জোটের অবরোধ সফল করার প্রক্রিয়া হিসেবে যানবাহনে হামলা, ভাঙচুর ও নাশকতা শুরু করা হয়। যাত্রাবাড়ী, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, বগুড়া, রংপুর, গাইবান্ধা, চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাটসহ দেশের ১২ হাজার কিলোমিটার মহাসড়কে বাসে পেট্রলবোমা, আগুন, রেললাইন উপড়ে ফেলা, বিভিন্ন স্থাপনায় হামলা ও ভাঙচুর চালানো হয়।
সড়ক পরিবহন শ্রমিক অফিস থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, গত ৭ জানুয়ারি অবরোধকারীরা গণহারে যানবাহনের ওপর তাণ্ডব চালিয়েছে। এতে ২ জন পরিবহন শ্রমিক নিহত হয়েছে। একই দিন পুরান ঢাকার লালবাগে অবরোধকারীদের পেট্রোলবোমায় পিকআপ চালক নিহত হয়েছে। এর আগে গত ৬ জানুয়ারি ময়মনসিংহ জেলা স্কুলের সামনে অবরোধকারীদের পেট্রোলবোমায় একজন অটোরিকশা চালক গুরুতর আহত হয়।
এর আগের দিন, গত ৮ জানুয়ারি উল্লাপাড়ায় অবরোধকারীদের হামলায় অটোরিকশা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একজন শ্রমিক নিহত হয়েছে। গত ৯ জানুয়ারি অবরোধকারীরা দেশের বিভিন্ন স্বানে বেপরোয়া যানবাহনে হামলা ও তাণ্ডব চালিয়েছে। একই দিন বগুড়ায় অবরোধকারীরা ট্রাকে পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ করলে চালক আহত হয়। ৯ জানুয়ারি দোহারে দাঁড়িয়ে থাকা বাসে আগুন লাগালে ঘুমন্ত অবস্থায় চালক ও হেলপার দগ্ধ হয়।

১০ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জে দাঁড়িয়ে থাকা বাসে আগুন দিলে চালক আহত হয়। সিদ্ধিরগঞ্জে অবরোধকারীদের পেট্রোলবোমায় ট্রাকের হেলপারসহ ২জন দগ্ধ হয়। গত ১১ জানুয়ারি সিরাজগঞ্জে ট্রাকে পেটোলবোমায় চালক ও হেলপার দগ্ধ হয়। গত ১৪ জানুয়ারি নোয়াখালীতে অবরোধকারীদের ইটের আঘাতে অটোরিকশা (সিএনজি) উল্টে চালক নিহত হয়েছে। একই দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জে ট্রাকে পেট্রোলবোমায় চালক দগ্ধ হয়।
একইভাবে মীরসরাই, নোয়াখালী, ফেনী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, গাইবান্ধা, গাজীপুর, সীতাকুণ্ড, লক্ষ্মীপুর, বরিশাল, কিশোরগঞ্জ, চুয়াডাঙ্গা, রাজশাহী, দিনাজপুর, দেশের বিভিন্ন স্থানে বাস, ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, অটোরিকশা, হিউম্যান হলার, মাইক্রেবাস, পিকআপ ৫শ’র বেশি যানবাহনে হামলা, ভাঙচুর, পেট্রোলবোমা, আগুন, দাঁড়িয়ে থাকা বাস ও ট্রাকের ঘুমন্ত শ্রমিকদের পেট্রোলবোমা ও আগুন লাগানোর ঘটনা ঘটে। প্রতিদিন পরিবহন শ্রমিকদের ওপর দেশের কোন না কোন স্থানে হামলা ও তাণ্ডব চালানো হয়েছে।
গত ২২শে ফেব্রুয়ারি রামপুরা বনশ্রী এলাকায় পেট্রোলবোমায় দগ্ধ বাসের হেলপার মো. বাপ্পি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিতসাধীন অবস্থায় মারা গেছে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া