adv
১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

অভিজিত রায় স্মরণে

1013057_192026950956767_21567881_n-400x225নির্মলেন্দু গুণ : আমার ওপেন হার্ট সার্জারির কারণে এবার বইমেলায় মাত্র দুদিন গিয়েছি। ১৮ ও ২৫ ফেব্র“য়ারি।
মেলার শেষ দিনেও যাবো মনে করেছিলাম।
কিন্তু ২৬ ফেব্র“য়ারির রাতে বইমেলা থেকে বাসায় ফেরার পথে, টিএসসির মোড়ে বিজ্ঞান-লেখক ও মমুক্তমনা-র প্রতিষ্ঠাতা
অভিজিত রায়ের নৃসংশভাবে নিহত হওয়া এবং ওর স্ত্রী বন্যার অস্ত্রাঘাতে আহত হওয়ার ঘটনাটি সব ভন্ডল করে দিলো।
আগের রাতে ঠিক এই গেইট দিয়েই আমি মেলাশেষে তরুণদের সংগে বসে চা খেয়ে, গান শুনে, আড্ডা মেরে বেরিয়ে এসেছিলাম।
কোনো আততায়ীর আনাগোনা অনুভব করিনি। ভাবতেও পারিনি, কাল রাতে এই টিএসসির চত্বরে রাজু ভাস্কর্যের পাশে অভিজিত রায়কে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হবে। স্বামীকে বাঁচানোর নিষ্ফল প্রয়াসে ক্ষতবিক্ষত হবে বন্যা। ওর রক্তমাখা মুখের দিকে তাকিয়ে অক্ষম লজ্জায় মুখ লুকাবে বাংলাদেশ।
ভাগ্যিস, ঘটনাটি আগের রাতে ঘটেনি, এরকম একটি নৃসংশ হত্যাকাণ্ডের অসহায় দর্শক হতে হয়নি আমাকে।
অভিজিতকে আমি নামে জানি, মুক্তমনায় দু’একটা লেখা পড়েছি। লিখেছিও কিছুদিন।
মুক্তমনার সংগে আমার সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। ভুলে গিয়েছিলাম মুক্তমনা ও অভিজিত রায়কে। ওঁর নিষ্ঠুরভাবে টিএসসির সামনে নিহত হওয়ার খবরটি টিভির স্ক্রলে দেখে বুঝলাম, অভিজিত বইমেলায় সস্ত্রীক ঢাকায় এসেছিল। শুধু আসেনি, হত্যার হুমকি থাকার পরও শুধুমাত্র স্ত্রীর ওপর ভরসা রেখে গিয়েছিল বইমেলায়, অটোগ্রাফ দিয়েছিল তাঁর নতুন বইযে, তারপর নির্বোধসরল বিশ্বাসে স্ত্রীর হাত ধরে মেলা থেকে বেরিয়ে এসেছিল পিতা ডক্টর অজয় রায়ের বিশ্ববিদ্যালয়ের কোয়ার্টারে ফিরবে বলে।
কিন্তু ঘরে ফেরা হলো না ওদের। অভিজত ফিরল ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে,ওর স্ত্রী বন্যা ফিরলো ডিএমসি হয়ে অ্যাপোল হাসপাতালে।
আর আমাদের জন্য রেখে গেলো পথের ওপর বাংলাদেশর মাটি আঁকড়ে ধরে উবু হয়ে শুয়ে থাকা লাল পাঞ্জাবি পরা অভিজিতের মরদেহের একটি চোখকাঁপানো ছবি। আর স্বামীর মৃতদেহ আগলে সারা গায়ে, চোখে-মুখে রক্ত মেখে বসে থাকা বেহুলার মতো হতবিহ্বল বন্যা।
আহা! কী কষ্টই না হলো আমার এই ছবিটি দেখে।
বন্যা হয়তো সেরে উঠবে, কিন্তু এই ছবিটিকে সে কি পারবে চোখ থেকে তাড়াতে কোনোদিন? পারবে না। আমরাও কি পারবো?
মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা ঋইও-এর তদন্ত প্রস্তাব গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ সরকার।
এই সরকারী সিদ্ধান্তকে আমি স্বাগত জানাই। মৃত্যুর কিছুক্ষণ আগে নিজের নতুন বইয়ে ভক্ত ক্রেতাকে অটোগ্রাফ দিচ্ছের অভিজিত রায়। তার পাশে দাঁড়িয়ে দৃশ্যটি উপভোগ করছেন বন্যা। সম্ভবতযা এটাই ওদের শেষ ছবি। ফেইসবুক থেকে

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া