adv
২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘যতবার বাংলাদেশে আসবো এই বাড়িটাতে একবার করে আসবো’

mamata2নিজস্ব প্রতিবেদক : বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শনে এসে ঢাকা সফররত পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘একদিকে গুলির দাগ, রক্তের নিশানা, এতগুলো ছবি- জীবন্ত মৃতদেহ, এসব দেখে মনটা খারাপ হয়ে যায়। কিন্তু আবার সেই সময়ের দিনগুলোতে ফিরে আসি, একটা ইতিহাসকে মনে রাখার জন্য। তাই বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে আসলে বার-বার মনটা খারাপ হয়ে যায়। যতবার বাংলাদেশে আসবো এই বাড়িটাতে একবার করে আসবো।’
তিনদিনের সফরে বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় ঢাকা পৌঁছান মমতা ও তার সফরসঙ্গীরা। মমতার এ সফরের মূল উদ্দেশ্য আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে যোগদান হলেও এ সফরের মাধ্যমে দুদেশের অমীমাংসিত অনেক ইস্যুর সমাধান আসবে বলে প্রত্যাশা ঢাকার। শুক্রবার সকালে তেমন ইঙ্গিত দিয়েছেন মমতা নিজেও। তিস্তা ইস্যুতে তিনি বলেছেন, ‘আমার ওপর বিশ্বাস রাখুন, চিন্তা করবেন না। শিগগিরই এর সুরাহা হবে।’

mamata3বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে পরিদর্শনে যাওয়ার আগে মমতা যান বঙ্গভবনে। সেখানে তিনি সাক্ষাৎ করেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে। তার আগে হোটেল সোনারগাঁওয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে একটি মতবিনিময় অনুষ্ঠানে অংশ নেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী।
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর এটিই মমতার প্রথম ঢাকা সফর। এরআগে তিনি সর্বশেষ ঢাকা সফর করেছিলেন ১৯৯৮ সালে। সে সময়ের স্মৃতি রোমন্থন করে মমতা বলেন, ‘১৯৯৮ সালে আওয়ামী লীগের একটি কনফারেন্সে এসেছিলাম। তখন শেখ হাসিনাই প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। আওয়ামী লীগের নেত্রী হিসেবে তিনি আমাকে আমন্ত্রণ করেছিলেন। ১৭ বছর আগে তখন এসেছিলাম। তখন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে এই বাড়িটি দেখে গিয়েছিলাম।’
বাঙালির মুক্তি আন্দোলনের নায়ক বঙ্গবন্ধুর প্রসঙ্গে মমতা বলেন, ‘বাংলাদেশে আসবো, কিন্তু মুক্তি আন্দোলনের পথিকৃৎ বঙ্গবন্ধুর বাড়িটা দেখে যাবো না, তা তো হতে পারে না। এ বাড়ি থেকে আমাদের গণমুক্তির আন্দোলন, বাংলাদেশের মুক্তিকামী মানুষের মুক্তির আন্দোলন, মুক্তির সংগ্রাম এবং বিশেষ করে ভাষা আন্দোলন, স্বাধীনতার যে বীজ রোপন করা হয়েছিল তা এখান থেকেই করা হয়েছে। এখানে বঙ্গবন্ধু শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। সেইদিন বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের সঙ্গে তার পরিবারের অনেকেই খুন হয়েছিলেন। একই পরিবারের এতগুলো মানুষের রক্তমাখা ছবি দেখলে আমার কাছে বিভীষিকা মনে হয়। গা শিউরে ওঠে।
তিনি বলেন, ‘আন্দোলন থেকে আমাদের জন্ম, তাই আন্দোলনের কথাগুলো মনে পড়ে যায়। প্রতিকৃতিও ও স্মরণ করতে হয়, এর প্রতিফলন না করলে আমাদের নতুন প্রজন্ম কী করে জানবে এ মুক্তি আন্দোলনের কথা। ওপার বাংলার সঙ্গে এপার বাংলার একটা ভীষণ মিল রয়েছে। এখানে যখন মুক্তির আন্দোলন চলছে, তখন তাদের প্রত্যেকটা কথা-বার্তা, প্রতিটি গান, বঙ্গবন্ধুর প্রতিটি স্লোগান, তার বক্তৃতা সবই আমাদের আবেগ ঘিরে ছিল। তাই বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে আসলে বার-বার মন খারাপ হয়ে যায়।’
ঢাকা সফরে মমতার সঙ্গে রয়েছেন চলচ্চিত্র নির্মাতা গৌতম ঘোষ, অভিনেত্রী মুনমুন সেন, অভিনেতা প্রসেনজিৎ, দেব, কণ্ঠশিল্পী নচিকেতা ঘোষ। এছাড়া একদল ব্যবসায়ী-সাংবাদিকও এসেছেন তার সঙ্গে। ২১শে ফেব্রুয়ারি রাত পৌনে ১০টার দিকে ঢাকা ছাড়বেন মমতা।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2015
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
232425262728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া