adv
২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় বিইআরসি

GAS2নিজস্ব প্রতিবেদক : গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। আইন অনুযায়ী বিভিন্ন শর্তপূরণ করতে ব্যর্থ হচ্ছে খাত সংশ্লিষ্ট কোম্পানিগুলো।
কমিশনের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘বিদ্যুত ও জ্বালানি খাতের কোম্পানিগুলো অধিকাংশ লাভজনক। তারপরও তারা দাম বাড়ানোর আবেদন করেছে। এখন কোম্পানিগুলো কমিশনের চাহিদা অনুসারে বিভিন্ন তথ্য সরবরাহ করতে পারছে না। ফলে গণশুনানি হলেও দাম বৃদ্ধির বিষয়ে সহসা কোনো সিদ্ধান্ত জানাতে পারছে না বিইআরসি।
এ প্রসঙ্গে কমিশনের সদস্য ড. সেলিম মাহমুদ বলেন, ‘বিদ্যুত এবং গ্যাসের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে সব বিষয় খতিয়ে দেখতে চায় বিইআরসি। এজন্য বিতরণ কোম্পানির কাছ থেকে বিভিন্ন বিষয়ে তথ্য চাওয়া হয়েছে।’ আইনানুযায়ী শুনানির পরও ৯০ কার্যদিবস সময় পায় কমিশন, এমনটাই জানালেন তিনি।

বিইআরসির সূত্র জানায়, বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমলেও দেশের বাজারে না কমায় বিদ্যুতের উতপাদন ব্যয় কমছে না। তবে অনেক বেসরাকারি বিদ্যুত কোম্পানির সরাসরি তেল আমদানির সুযোগ রয়েছে। তাদের উতপাদন ব্যয় কম হওয়ার কথা। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) কাছে তথ্য চাওয়া হয়েছে। কিন্তু এখনো সে বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।
সূত্র আরো জানায়, গত বছর মার্চে বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানো হয়েছিল। এতেই কোম্পানিগুলো লাভ করছে। চলতি দাম না বাড়ালেও তারা লাভজনক থাকবে। গত মাসে ও চলতি মাসের প্রথম দিকে গ্যাস ও বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলোর প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। গণশুনানির তথ্য থেকে জানা যায়, পিজিসিবির বিদ্যুতের সঞ্চালন মাশুল ইউনিটে ১৬ দশমিক ৭৪ শতাংশ বৃদ্ধির প্রস্তাবের বিপরীতে এক দশমিক ৫৩ শতাংশ বৃদ্ধিকে যুক্তিযুক্ত মনে করছে কমিটি।
অন্যদিকে ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকো) ২১ দশমিক ৩১ শতাংশ বৃদ্ধির প্রস্তাবের স্থলে দুই দশমিক ২৮ শতাংশ, আরইবির ১৫ দশমিক ৬০ শতাংশ বৃদ্ধির প্রস্তাবের স্থলে দশমিক ২৭ শতাংশ এবং পিডিবির ২২ শতাংশের পরিবর্তে তিন দশমিক নয় শতাংশ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন বলে কমিটি মত দিয়েছে। এছাড়া ডিপিডিসি’র ১৭ দশমিক ৮৫ শতাংশ এবং ডেসকোর ১৮ দশমিক ৬২ শতাংশ বৃদ্ধির দু’টি প্রস্তাব নাকোচ করে দিয়েছে কমিটি।
গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলো গড়ে ৪০ শতাংশ দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব করে। এরমধ্যে কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (কেজিডিসিএল), তিতাস গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পনির দুটি প্রস্তাব নাকোচ করে দেয়া হয়েছে। এর বাইরে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (বিজিডিসিএল) প্রস্তাবের বিপরীতে দুই দশমিক ৪৯ শতাংশ পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানি লিমিটেডের (পিজিসিএল) পাঁচ দশমিক ৫৯ শতাংশ এবং জালালাবাদ গ্যাস বিতরণ কোম্পানির চার দশমিক ৯৮ শতাংশ দাম বৃদ্ধির সুপারিশ করে।
এছাড়া সুন্দরবন গ্যাস বিতরণ কোম্পানির প্রস্তাব মূল্যায়নই করেনি কারিগরি কমিটি। অন্যদিকে গ্যাস সঞ্চালন চার্জ নতুন করে বাড়ানোর পরিবর্তে কমানোর পক্ষে মত দেয় মূল্যায়ণ কমিটি। বিদ্যমান সঞ্চালন মূল্য হার ৩২ পয়সা থেকে কমিয়ে ১৩ পয়সা নির্ধারণের কথা বলা হয়েছে।

পাইকারি পর্যায়ে সরকারের গত মেয়াদে ছয় দফায় দুই টাকা ৩৭ পয়সা থেকে ৯৮ দশমিক ৩১ শতাংশ বৃদ্ধি করে চার টাকা ৭০ পয়সা করা হয় বিদ্যুতের দাম। সর্বশেষ বাড়ানো হয় ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে। আর গ্রাহক পর্যায়ে সর্বশেষ বাড়নো হয় গত বছর মার্চে। এছাড়া গ্যাসের মূল্য সর্বশেষ ২০০৯ সালের আগস্টে ১১ দশমিক ২২ শতাংশ বৃদ্ধি করা হয়েছিল।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2015
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
232425262728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া