adv
২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পাখি ও সাপের খেলা দেখুন (ভিডিও)

imagesডেস্ক রিপোর্ট : অ-তে অজগর। অজগর ওই আসছে তেড়ে। অক্ষর পরিচিতির প্রথম পাঠে এভাবেই সাপের সাথে এদেশের শিশুদের প্রথম পরিচয় ঘটে বা বিখ্যাত কবি সুকুমার রায় এর বাপুরাম সাপুড়ে দিয়েও সাপ সম্পর্কে সেই ছোট্টবেলে হতে আমাদের সঙ্গে সাপের পরিচয় ঘটে।
বাবুরাম সাপুড়ে,
(সুকুমার রায়)
বাবুরাম সাপুড়ে,
কোথা যাস্ বাপুরে?
আয় বাবা দেখে যা,
দুটো সাপ রেখে যা—
যে সাপের চোখ্ নেই,
শিং নেই, নোখ্ নেই,
ছোটে না কি হাঁটে না,
কাউকে যে কাটে না,
করে নাকো ফোঁস্ ফাঁস্,
মারে নাকো ঢুঁশ্ ঢাঁশ
নেই কোনো উৎপাত,
খায় শুধু দুধ ভাত,
সেই সাপ জ্যান্ত
গোটা দুই আন্ত!
তেড়ে মেরে ডা-া
ক’রে দিই ঠা-া৷
সাপুড়ে বা বেদেঃ সাপুড়ে একধরণের পেশাভিত্তিক গোষ্ঠী যারা সাপ ধরে ও সাপের খেলা দেখিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। এরা বেদে নামেও পরিচিত। এরা শেকড় বাকড় দিয়ে সর্পাঘাতের হাতুড়ে চিকিৎসাও করে থাকে। এদের ঝাঁপিতে সাপ
নিয়ে ঘুরতে দেখা যায়। পেটমোটা “সাপুড়ে-বাঁশি” বাজিয়ে এরা সাপ নাচায় (আসলে সাপ ভালো শুনতে পায়না, তাই মাটিতে পা ঠুকে ও বাঁশি দুলিয়ে এত কসরত)।মন্ত্রতন্ত্রসিদ্ধ বলে সমীহ করা হলেও এদের প্রধান যাদু হস্তনৈপূণ্য (ও ক্ষিপ্র গতি) এবং সাপেদের সম্বন্ধে অভিজ্ঞতা।সাধারণত এরা পোষা বিষধর সাপের বিষদাঁত
উপড়ে রাখে (এবং ডেন্টাল প্যাপিলা চেঁছে রাখে যাতে আর না গজায়।) বা অন্তত বিষ দুইয়ে রাখে। সর্পবিষ প্রতিষেধক তৈরির জন্য সেই বিষ বিক্রিও করে সাপুড়েরা।
শহরে বন্দরে গ্রামে গঞ্জে সাপুড়ে ও বেদে সম্প্রদায়ের মধ্যে দেখা মেলে এদের। কেউ কাঠের ছোট বাক্সে কেউ ছোট খাঁচার মধ্যে সাপ রেখে জনসমাগম স্থলে মজমা বসিয়ে সাপ বের করে নানা ভঙ্গীর খেলা দেখায়। মুখ্য উদ্দেশ্য কিছু বিক্রি। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই গাছের শিকড় ছাল বাকর বিক্রি করে রোজগার করে। কারও দাঁতের ব্যথা, কারও বাতের ব্যথা, শরীরের বিভিন্ন।
অঙ্গে ব্যথা বেদনা উপশমের জন্য এরা শিকড় ছাল বাকলের বিবিধ ব্যবহারের পরামর্শ দেয়। সাপের কামড়ে (দংশন) এই শিকড় কথিত অব্যর্থ বলে সাফাই গায়। আসলে এই শিকড় কোন কাজেই দেয় না। সাপ সম্পর্কে এমন সব কথা বলে যেন বিষধর সাপ ওদের কাছে কিছুই না। সাপ নিয়ে বিশ্বের সকল দেশের মানুষের কৌতূহলও একই।
বাংলাদেশে সাপঃ বিজ্ঞানীরা বলছেন, সাপ প্রজাতির শতকরা ৯০ ভাগেরও বেশি নিরীহ এবং অবিষধর। বিষধর সাপের প্রজাতি কম। বাংলাদেশে সাপের প্রজাতির সংখ্যা ৯২। এর মধ্যে বিষধর প্রজাতি ২৭টি। যার ১২ প্রজাতির বাস সাগরে।
দেশে বিষধর সাপের মধ্যে কোবরা, গোখরো, কাল কেউটে, চন্দ্রবোরা, শংখিনীসহ কয়েকটি প্রজাতির দেখা মেলে সব জায়গাতেই। বিষধর সাপের সকল প্রজাতিই ইলাপিডি ও ইলাফিনি পরিবারের। গোখরো সাপের বড় প্রজাতির আরেক নাম শঙ্খচূড়। এদের বলা হয় সর্পরাজ, ইংরেজীতে কিং কোবরা। বনাঞ্চলেই এদের বাস বেশি।

https://www.youtube.com/watch?v=lQEe0VlJdH8

 

https://www.youtube.com/watch?v=nUE2OCbdv9k

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
December 2014
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া