adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ক্ষমতার অহংকারই পতনের কারণ হতে পারে

mahfuz-anam-45মাহফুজ আনাম : রাজনীতি এবং রাজনৈতিকদের অবমাননাকর অবস্থা থেকে স্পষ্টতই বুঝা যায় আমাদের দেশে গণতন্ত্র বর্তমানে অকার্যকর। দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর উপযুক্ততা এবং নূন্যতম সৌজন্যতাবোধ দেখে খুব সহজেই বোঝা যায় গণতন্ত্র কিভাবে লাঞ্ছিত হচ্ছে। গত দুই দশকে আ.লীগ-বিএনপির সংঘাতময় রাজনীতি এবং সংসদে দুই দলের কতিপয় নারী সদস্যের অশ্লীল অকথ্য ভাষার ব্যবহার আমাদের রাজনৈতিক দলগুলোর যোগ্যতার দিকে আঙ্গুলি নির্দেশ করে। বিদেশি কূটনীতিকদের সাথে অপমানজনক ভাষার চর্চা স্বভাবতই মনে প্রশ্ন জাগায় । এটা কি আমাদের অজ্ঞতা, অপরিপক্কতা নয়, আমরা কি ভূল করছি না, এটা কি নিছক আমাদের অহংকার নয় ? এই ক্ষমতার অহংকারই পতনের কারণ হতে পারে।
 
বাংলাদেশ স্বাধীনতার কয়েক যুগ পার করে এসেছে অথচ এ দেশের কর্তাব্যক্তিরা এখনো কূটনৈতিক আদব কায়দা শিখতে পারেনি। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং এলজিআরডি মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফ মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনা এবং নিশা দেশাই বিশওয়ালকে যে ভাষায় গালমন্দ করেছে তা আমাদের জন্য খুবই লজ্জাজনক। আর এই সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে তার দল আ. লীগ। জোর করে ক্ষমতায় আসলে এরকমই হয়ে থাকে। তখন তাদের কোন হুশ থাকে না, বিকেব, বিবেচনাবোধ বলতে কিছু থাকে না। বিনয়ের সাথে কাউকে অনেক কটু কথা বলা যায় কিন্তু একজন কূটনীতিকে জনসমুক্ষে এভাবে গাল দেয়ার অধিকার অন্তত পক্ষে একটি দেশের মন্ত্রী কিংবা একজন রাজনীতিকের নেই। আমরা বিশ্বাস করি বাংলাদেশ অবশ্যই যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ভালো একটি সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করতে চায়। কিন্তু সৈয়দ আশরাফ এবং এলজিআরডি মন্ত্রীর বক্তব্য সম্পূর্ণ তার বিরুদ্ধে।
 
মন্ত্রীর হয়তো জানা নেই নিশা দেশাইয়ের কতটা বছর কেটেছে ইংল্যাণ্ডে এবং সে কতটা আধুনিক। এ রকম আচরণের পরও কি আশা করা যায় যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আমাদের সম্পর্ক ভালো হবে। নিশা দেশাই বিসওয়াল বাংলাদেশের ভালোর জন্যই এসেছিল উল্টো তাকে গাল মন্দ করে, তার ব্যক্তিগত ব্যাপারে কটু মন্তব্য করে, তার জাতিগত সত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে যথেষ্ট অপমান করা হয়েছে তাকে। তারপরও কি এই দেশ, জাতি আশা করতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক ভালো হবে। নিশা দেশাই বিশওয়াল যা বলেছেন, যার সাথে দেখা করেছেন সবই তার দেশের পক্ষে করেছেন তার ব্যক্তিগত নয়। সৈয়দ আশরাফ মার্কিন রাষ্ট্রদূত ডেন মজিনাকে কাজের মেয়ে ‘মর্জিনা’ বলে উল্লেখ করে এবং বলেন, ডেন মজিনা আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা থেকে অপসারণ করতে চাইছে। সৈয়দ আশরাফের এ কথা শুনলে যে করোর মনেই সায় দিবে যে, এটা আসলে ইচ্ছাকৃতভাবেই বলেছেন। এখন পর্যন্ত যা বোঝা যায় সমাধানের কোন পথ খোলা নেই, এবং অবশ্যই তা আমাদের বৈদেশিক সম্পর্কের উপর প্রভাব ফেলবে এবং দই দেশের সম্পর্ক জটিল করবে। সৈয়দ আশরাফের মুখ লুকানো বক্তব্য তারই পরিচয় দেয়।
ভবিষ্যতে এ নিয়ে কোন ইস্যু দাঁড়ালে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে জবাব দেয়ার মতো কোন ভাষা বাংলাদেশ সরকারের আর থাকলো না। শুধু তাই নয় এই ইস্যু ভবিষ্যতে কোনদিন কোন বিপদ ডেকে আনলেও আ.লীগ কিংবা সরকারের কিছুই করার থাকবে না। তারা তো এ দেশের রাজনীতিক ছিলেন না। তারা শুধুই রাষ্ট্রীয় অতিথি ছিলেন, প্রতিনিধিত্ব করছিলেন তার দেশের। তাকে অপমান করা আর তার দেশকে অপমান করার কোন তফাত নেই। -দি ডেইলি স্টার থেকে 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
December 2014
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া