adv
৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

উত্তেজনার ম্যাচে জিতল বাংলাদেশ- এবার বাংলাওয়াশের স্বপ্ন

হুমায়ুন সম্রাট,মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়াম থেকে : বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ের মধ্যকার চলমান ওয়ানডে সিরিজের ৪র্থ ম্যাচে জিম্বাবুয়ে যদি জিততে চায় তাহলে তাদের করতে হবে ২৫৭রান। দ্বিতীয় ইনিংস শুরুর পর থেকে জয়ের ভাগ্য দুলতে থাকে। কখন তা ভারী হয় বাংলাদেশের পক্ষে। কখন তা জিম্বাবুয়ের পক্ষে। টান টান উত্তেজনা। কে জিতবে কে জিতবে। ক্রিকেট যে রোমাঞ্চকর খেলা তারই আরেকবার প্রমাণ মিললো মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। শেষ পযন্ত বাংলাদেশই জয় পায় ২১রানে। জিম্বাবুয়ে সংগ্রহ করে ৮উইকেটে ২৩৫রান। এই জয়ের ফলে সিরিজে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশ এগিয়ে গেল ৪-০তে। জয়ের জন্য বাংলাদেশের দেয়া ২৫৭ রানের লক্ষে ক্রিজে আসেন জিম্বাবুয়ের দুই ওপেনার ব্যাটসম্যান হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ও সিবান্দা। দু’জনে বেশ ভালো ভাবেই মোকাবেলা করেন মাশরাফি-সাকিবদের। রান তুলতে থাকেন বেশ ভালোভাবে। প্রথম উইকেট জুটিতে তারা সংগ্রহ করেন ১০ওভার ১বলে ৪৮রান। এমন সময় সাকিব তাদের মধ্যে ফাটল ধরান। সিবান্দাকে ১৭রানে এলবিডাব্লিউ ফাদে ফেলে আউট করেন সাকিব। আনন্দে ভাসেন দর্শকরা। এরপর ১২ওভার ২বলে দলীয় ৫১রানের মাথায় হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকে ২৮রানে আউট করেন সাকিব। উল্লেখ্য, এই দুই উইকেট স্বীকার করে ৪১ ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সব দেশের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৬০উইকেট স্বীকারের রেকর্ড গড়েন সাকিব আল হাসান। তার পরে আছেন শ্রীলংকার গ্রেট স্পিনার মুরালি ধরন। তিনি ৩১ ম্যাচে ৫৯উইকেট স্বীকার করেছেন। জিম্বাবুয়ের দুই ওপেনার আউট হওয়ার পর দলীয় ৬০ রানে ব্যক্তিগত ৬রান করা মারুমাকে সাজঘরে পাঠান লেগ স্পিনার জুবায়ের হোসেন। এই উইকেট পতনের সাথে সাথে বাংলাদেশী ভক্তরা আনন্দের সাথে নড়ে চড়ে বসেন। ভাবেন এবার তাদের প্রিয় ক্রিকেটাররা দূত উইকেট তুলে দিবেন জিম্বাবুয়ের। কিন্তু সেভাবনা সত্য হলো না। বাংলাদেশী বোলারদের মোকাবেলা করে ৪র্থ উইকেট জুটিতে ১০৬ রানের পার্টনারশীপ গড়ে তোলের মিরে ও টেইলর। ভয় ধরিয়ে দেয় বাংলাদেশীদের মনে এই দুজন। দ্বিতীয় অর্ধশতকের পাশপাশি ওয়ানডেতে ক্যারীয়ার সেরা ৫২ রান করে জুবায়ের স্বীকার হন মিরে দলীয় ১৬৬ রানের সময়। এরপর দলীয় ১৭২ রানের সময় ৫ম উইকেট টেইলরকে ৬৩ রানে আউট করেন রুবেল হোসেন। জমে উঠে ম্যাচ । এটি টেইলরের ৩১তম হাফ সেঞ্চুরী। দারুন জমে উঠে দুদলের মধ্যকার ৪র্থ ওয়ানডে ম্যাচ। পরের ব্যাটসম্যানরা আর সুবিধা করতে পারেনি বাংলাদেশী বোলারদের বিপক্ষে। শেষ পর্যন্ত জিম্বাবুয়ে থেমে যায় ৮উইকেটে ২৩৫রান করে। বাংলাদেশের পক্ষে সাকিব, রুবেল ও জুবায়ের প্রত্যেকে নেন ২টি করে উইকেট। মাশরাফি পান ১টি উইকেট। এর অগে, ম্যাচ শুরুর আগে দুই দলের সকল খেলোয়াড় ও গ্যালারীর দর্শকরা দাঁড়িয়ে ১মিনিট নিরবতা পালন করেন প্রয়াত অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ফিল হিউস এর জন্য। এর আগে, শুক্রবার দুপুরে মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস করতে নামেন দুই অধিনায়ক। এবার টস ভাগ্যে জয়লাভ করেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি। সিদ্ধান্তু নেন প্রথমে ব্যাট করার।  বাংলাদেশ দলের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও এনামুল হক ফুরফুরে মেজাজে আসেন ক্রিজে।  বড় পার্টনারশীপ গড়ার চিন্তা করেন দুই স্বাগতিক ব্যাটসম্যান। কিন্তু তাদের সেই আশায় জল ঢেলে দেন জিম্বাবুয়ে দুই বোলার নিভেল মাদজিভা ও সলোমন মিরে। এই দুই বোলার দলীয় ৩২রানে বাংলাদেশী ৪জন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফেরত পাঠান। তামিম ইকবাল ১৬, এনামুল হক ৫, ইমরুল কায়েস ৫ এবং সাকিব ১রানে আউট হন। দূত ৪উইকেট হারিয়ে চাপের মধ্যে পরে স্বাগতিকরা। অন্যদিকে কিছুটা আত্ববিশ্বাষী হয়ে উঠে জিম্বাবুয়ে দল। জিম্বাবুয়ে হয়তো চেয়েছিলো এভাবেই একের পর এক উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশকে অল্প রানে বেধে ফেলতে। কিন্তু তা কি এতই সহজ! দলীয় বিপর্যয়ের মুখে ৫ম উইকেট জুটিতে দলের হাল ধরেন মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ। এই জুটি বাংলাদেশ দলের খাতায় যোগ করেন ১৩৪রান। ৭৮ বলে ৭৭রান করে আউট হন মুশফিকুর রহিম। এটি ওয়ানডে ক্যারীয়ারে তার ১৮তম হাফ সেঞ্চুরী। অন্যদিকে ২০০০ রানের ক্লাবে প্রবেশ করেন মাহমুদুল্লাহ। এক প্রান্ত মাহমুদুল্লাহ ধরে রাখলেও ক্রিজে এসে দূত আউট হন সাব্বির রহমান ৪রান এবং আবুল হাসান ১রানে। এরপর ক্রিজে আসেন বাংলাদেশ দলপতি মাশরাফি। শেষ দিকে গ্যালারী ভর্তি দর্শকদের ক্রিকেট বিনোদনে মাতান এই অধিনায়ক। মাশরাফি ও মাহমুদুল্লাহ ৮ম জুটিতে ৪২বলে ৫০রান যোগ করেন বাংলাদেশের খাতায়। ২৫বলে দর্শক মাতিয়ে ৩৯রান করে আউট হন মাশরাফি। তবে ওয়ানডে ক্যারীয়ারে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৮মার্চ ২০১৩ সালে বুলাওয়েতে করা অপরাজিত সেরা ৭৫ রানের ইনিংস ছাড়িয়ে যান মাহমুদুল্লাহ। এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষেই আবার ঢাকার মাঠে খেলেন আরেক নতুন অপরাজিত ৮২ রানের সেরা ইনিংস। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের রান সংগ্রহ দাঁড়ায় ৮উইকেটে ২৫৬রান। জিম্বাবুয়ের পক্ষে ৩টি করে উইকেট নেন নিভেল মাদজিভা ও সলোমন মিরে। দুই দলের মধ্যকার ৫ম ও শেষ ওয়ানডে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১ডিসেম্বর। মিরপুর ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুপুর ১২.৩০মিনিটে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া