adv
৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লতিফ সিদ্দিকী ২ বছর জেলে থাকতে পারেন

lotif-siddikiডেস্ক রিপোর্ট : বহিষ্কৃতমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে আনা ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ দুই বছর সাজা হতে পারে তার। দণ্ডবিধির ২৯৫ক, ২৯৮ ও ৫০০ ধারায় ঢাকা মহানগর মূখ্য হাকিম আদালতে এ পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে মোট ৭টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসব ধারায় সর্বোচ্চ সাজা দুই বছর।  তিনটি ধারার মধ্যে ২৯৮ ও ৫০০ ধারায় অপরাধ জামিনযোগ্য। তবে ২৯৫ক ধারাটি জামিন অযোগ্য।
২৯৮ ধারায় বলা হয়েছে, যে ব্যক্তি স্বেচ্ছায় কোনো ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত হানার অভিপ্রায়ে উক্ত ব্যক্তির শ্র“তিগোচর কোনো শব্দ উচ্চারণ করে বা আওয়াজ দেন বা উক্ত ব্যক্তির দৃষ্টিগোচর কোনো অঙ্গভঙ্গি করে বা উক্ত ব্যক্তির দৃষ্টিগোচরে কোনো বস্তু রাখে সে ব্যক্তি এক বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড বা অর্থদণ্ড বা উভয়বিধ দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। ৫০০ ধারায় বলা হয়েছে, যে ব্যক্তি অন্য কোনো ব্যক্তির মানহানি করে সে ব্যক্তি দুই বছর পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ড বা অর্থদণ্ড বা উভয়বিধ দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। উপরোক্ত দুটি ধারা জামিনযোগ্য হলেও ফৌজদারী কার্যবিধির ২য় তফসিলে দণ্ডবিধির ২৯৫ক ধারাটি জামিন অযোগ্য বলে বর্ণিত আছে। এতে বলা হয়েছে, যে ব্যক্তি কোনো ধর্মীয় অনুভূতিতে কঠোর আঘাত হানার অভিপ্রায়ে স্বেচ্ছা ও বিদ্বেষাত্মক কথা কিংবা লিখিত শব্দাবলির দ্বারা উক্ত ধর্ম বা ধর্ম বিশ্বাসকে অবমাননা করে বা উদ্যোগ নেয় তাহলে তিনি দুই বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড বা অর্থদণ্ড বা উভয়বিধ দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।
ফৌজদারি আইন বিশেষজ্ঞ ও ঢাকা মহানগরের সাবেক পিপি এহসানুল হক সমাজি বলেন, ‘ভিন্ন ভিন্ন ধারায় সাজার মেয়াদ ভিন্ন হলেও একই সঙ্গে সাজা চলমান থাকে বিধায় আসামির বির“দ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাকে সর্বোচ্চ দুই বছরই সাজা খাঁটতে হবে। তবে আদালতে একটির পর একটি সাজা কার্যকর হবে মর্মে রায় প্রদান করলে তাকে অতিরিক্ত সাজা খাঁটতে হবে।’ সমাজি আরও বলেন, ‘মহিলা, শিশু, প্রতিবন্ধী ও বয়স্ক ব্যক্তির ক্ষেত্রে জামিন অযোগ্য ধারায়ও আদালত জামিন দিতে পারেন। এটি আদালতের এখতিয়ার।’
গত ২৮ সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্কের একটি অনুষ্ঠানে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.), হজ, তাবলিগ ও জয়কে নিয়ে বক্তব্য দেন লতিফ সিদ্দিকী। বক্তব্যের মাধ্যমে দেশে-বিদেশে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় ওঠে। তারই পরিপ্রেক্ষিতে তাকে মন্ত্রিসভা থেকে অপসারণ ও পরে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। তবে একনো তার সংসদ সদস্যপদ বহাল আছে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া