adv
৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কক্সবাজারে ব্যাঙের ছাতার মতো অবৈধ ফার্মেসি

aaaজামাল জাহেদ (কক্সবাজার) : জেলায় ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে ওঠছে দিনে দিনে সহস্র অবৈধ ফার্মেসি, যেগুলোতে সরকারি চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই অহরহ বিক্রি হচ্ছে নানা জীবন রক্ষাকারী ওষুধ। নিয়মনীতি ছাড়া সিভিল সার্জেন কে না জানিয়ে কয়েক হাজার ফার্মেসি পুরো কক্সবাজারের গ্রামে-গঞ্জে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। বৈধ  সনদপ্রাপ্ত ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র ব্যতীত, ওষুধ বিক্রয়ে যেনো প্রতিযোগিতা শুরু করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব ফার্মেসিতে বসে থাকা পঞ্চম শ্রেণী পাস না করা দোকানদারগুলো ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া অভিজ্ঞ ডাক্তারের মতো, হাবভাব ধরে বিভিন্ন কোম্পানির হাইএন্টিবায়েটিকসহ আমদানি নিষিদ্ধ ও সরকারের বাজেয়াপ্ত কোম্পানির ঔষুধ দেদারছে বিক্রি করতেছে এসব ফার্মেসিতে।
মাঝেমধ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে কিছু জেল জরিমানা করলেও কোন কাজ হয় না। পরে ফার্মেসি মালিকেরা স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে রমরমা ঔষুধ বাণিজ্য চালিয়ে যেতে দেখা যাচ্ছে।
স্থানীয়রা জয়পরাজয়কে বলেন, তারা সচেতন হয়েও কি করবে, সরকার যদি প্রতিনিয়ত জেলার প্রশাসন দিয়ে মেডিসিন ব্যবসা তদারকি না করে। অনেক দেশে হেলথ্ কার্ড ছাড়া মেডিসিন দেয় না, চিকিৎসাও করে না, বাংলাদেশেও তারা এ ধরনের সিসটেম চায়।
অধিকাংশ লাইসেন্সবিহীন ফার্মেসিগুলোতে ঘুমের ঔষুধ, মানুষ মোটাতাজাকরণ ঔষুধ হিসাবে ডেক্সামেসন, ইনডিয়ার প্রেকটিন ট্যাবলেট বেচাকেনা করছে এবং ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বেশি মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে। বিভিন্ন ফামের্সি ঘুরে জানা যায়, ওসব ফামের্সিগুলোর অধিকাংশ বিক্রেতা অষ্টম শ্রেণী গন্ডি পেরুতে পারেনি। তারপরেও জ্বর-স্বর্দি থেকে শুরু করে ঘুম, নেশা, পেটব্যথা, জš§ নিয়ন্ত্রণ, কিডনী, হার্টএ্যাটাক, জন্ডিস, ডায়রিয়া, গেস্ট্রিকসহ সব রোগের ঔষুধ দেয় অনুমান করে। কিছু না বুঝে সব সহজ রোগে বেশি টাকার আশায় হাইএন্টিবায়োটিক দিচ্ছে বলে এলাকা সূত্রে জানা যায়।
চিকিতসকের পরার্মশ ছাড়া ওষুধ সেবনে এ্যাজমা, ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন গুরুতর রোগের রোগিদের ক্ষেত্রে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়ার আশংকা রয়েছে। অন্যদিকে গ্রাম এলাকার কয়েকজন ফার্মেসি ব্যবসায়ী জানান, মূলত চিকিৎসা ফি ও পরামর্শপত্রে ডাক্তার নির্দেশিত শারীরিক পরীক্ষার খরচ থেকে বাঁচতেই পরামর্শপত্র ছাড়াই ওষুধ কিনতে আসেন অধিকাংশ রোগী। যদিও গণমাধ্যম আর মিডিয়াপ্লেক্স এ সারা বাংলাদেশে যেসব হত্যাকানড
বাহারছড়ার নুরুল ইসলাম জানান, সরকার যদি এমবিবিএস, এফসিপিএস, গাইনিকোলজিস্ট, ডেন্টাল ইত্যাদি ডাক্তারের ভিজিট ফ্ িনির্ধারিত করতো তাহলে সহজ হতো চিকিৎসা সেবা। কারণ টাকার ভয়ে মানুষ ফার্মেসিতে যায়।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. সাইফুল এর যোগাযোগ করা হলে তিনি জয়পরাজয়কে জানান, ওষুধ কিনা ওষুধ খাওয়া থেকে সবাইকে সতর্ক হতে হবে কারণ হাইএন্টিবায়েটিক ব্যবহারে আশংকাজনকভাবে মানুষের শরীরে নানা সমস্যার সৃষ্টি হয়। ফলে কোন কোন রোগীর মৃত্যুও হচ্ছে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া