adv
২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সত্যের কল বাতাসে নড়ে

kader_siddique_36908বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তম : বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম জিম্বাবুয়ের সাথে বাংলাদেশের ক্রিকেট চলছে। পরপর তিন ম্যাচে বাংলাদেশ জিম্বাবুয়েকে হোয়াইট ওয়াশ করেছে। নিজের দেশে একটা নামকরা দলকে এভাবে হোয়াইট ওয়াশ করা খুবই গৌরবের। অন্য দিকে প্রথম ওয়ানডেতেও দুর্দান্ত জয় লাভ করেছে বাংলাদেশ। কিন্তু এসব জয়ের নায়ক সাকিব আল হাসানকে ক’দিন আগে বরখাস্ত করা হয়েছিল।
কখনো কখনো একজন মানুষ যে একটা দলের জন্য কতটা প্রয়োজনÑ এটা বুঝাই কী করে? তেমন কী ছিল আমাদের, যে পাকিস্তানিদের ওভাবে নাস্তানাবুদ করেছিলাম। আমাদের বুকে ছিল সাহস আর ঈমানি হিম্মত যা তোমার কাছ থেকেই পেয়েছিলাম। আজ সবই আছে বরং হাজার গুণ বেশি আছে। কিন্তু পরপার থেকে তুমি যদি একবার আসতে পারতে তাহলে আমাদের দৈন্য, আমাদের দুর্দশা, আমাদের নীতিহীনতা দেখে বড় বেশি মর্মাহত হতে। আসলে কেন যেন প্রকৃত বীরদের, হিরোদের বড় দুঃসময় চলছে এখন। মনে হয় চারালের হাতে ব্রাহ্মণের বিচারের ভার পড়েছে। দেশবাসীর চিতকার চেঁচামেচিতে যদি সাকিব আল হাসানকে ঠিক সময় ফিরিয়ে নেয়া না হতো তাহলে কি জিম্বাবুয়ের সাথে পরপর এমন গৌরবের বিজয় আমাদের হতো?
একটা মানুষ হয়তো কিছুই না, কিš‘ যাকে অবলম্বন করে অন্যেরা শক্তি সাহস পায় তাকে ক্ষুণœ করা, তাকে অপমান অপদস্ত করা পুরো দলকেই ধ্বংস করার চেষ্টার নামান্তর। বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমের এসব ঐতিহাসিক বিজয়ে আমি তাদের দেশবাসীর পক্ষ থেকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি। গুরুদাসপুর সড়ক দুর্ঘটনার পর তোমাকে আর লেখা হয়নি, জানানো হয়নি এর মধ্যে কত কী ঘটনা ঘটে গেছে। অর্থমন্ত্রী জনাব আবুল মাল আবদুল মুহিত ঘুষ খাওয়া জায়েজ করে ফতোয়া দিয়েছেন। অথচ পবিত্র কুরআন মজিদে সুদ, ঘুষ হারাম। তার গুণের শেষ নেই। সারা জীবন চাকরি করেছেন, তোমার আমল থেকে জিয়া-এরশাদ হয়ে তোমার মেয়ের আমল পর্যন্ত দাপটে আছেন। একেই বলে কপাল। তোমার কথাই ঠিক।
একসময় বলেছিলে, যাদের ত্যাগ করার তারা ত্যাগ করবে, আবার যাদের ভোগ করার তারা ভোগ করবে। তোমার অভিজ্ঞতার কোনো তুলনা নেই। হবেই-বা না কেন? তুমি তো আর অনেকের মতো গুরু ছাড়া রাজনীতি শুরু করোনি। তোমার গুরু ওলি-এ কামেল মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, তোমার গুরু হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। হুজুর মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর রাজনৈতিক গুরু বাংলার বাঘ আসুতোষ মুখার্জি, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস। অন্য দিকে আধ্যাত্মিক গুরু হজরত নাসিরউদ্দিন বোগদাদি। এমন নেতার সান্নিধ্যে তোমার জ্ঞান-গরিমা যে আলাদা হবে তা হলফ করে বলা যায়। সেই ‘৬০ সাল থেকে আমৃত্যু তুমি যা বলেছো এখন তা হাড়ে হাড়ে পদে পদে ঘটে চলেছে। তোমাকে যারা এক সময় আচ্ছা রকম গালাগাল করত তাদের এখন স্বর্ণযুগ। দুর্নীতির অভিশাপ থেকে দেশকে রা করতে জীবন দিলে, আজ দুর্নীতি ওপেন সিক্রেট। যে দেশে চোর চুরি করতে লজ্জা পায় না বরং গর্ববোধ করে সে দেশে ভালো মানুষের স্থান কোথায়? তোমার সময়ের কেবিনেট সেক্রেটারি জনাব এইচ টি ইমাম সেদিন এক মারাত্মক সত্য কথা বলে প্রধান বিরোধী দলের ধন্যবাদ পেয়েছেন। এরাই হলো তোমার মেয়ের বুদ্ধিমান উপদেষ্টা। ছাত্রদের এক সভায় ভদ্রলোক হাততালি পেতে বলেছেন, ‘তোমরা ভালো করে পরীা দাও, ভাইভা আমরা দেখবো’। সেখানেই থামেননি।
ছাত্রলীগের ছাত্রদের নেতা হতে গিয়ে আরো বলেছেন, ‘যখন মাননীয় নেত্রীর হাতে তোমাদের কারো চাকরির জন্য বায়োডাটা দিই তখনই তিনি জিজ্ঞেস করেন, ছেলেটি কি ছাত্রলীগ করেছে?’ ছাত্রলীগ ছাড়া বর্তমান সরকারের কাছে মেধার কোনো মূল্য নেই। এটা সত্য কেয়ামত পর্যন্ত দেশের সব ছাত্র-যুবক ছাত্রলীগ করবে না। এমন দলকানা সরকার, দলকানা কর্মী, দলকানা ক্যাডারÑ মনে হয় পৃথিবীর আর কোথাও নেই। সত্য যখন বের হয় মহাপ্লাবনের মতো বেরিয়ে আসে, তাকে কেউ বাঁধ দিয়ে ফেরাতে পারে না। তেমনটাই হয়েছে এইচ টি ইমামের ক্ষেত্রে। যেখানে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যারপরনাই পেরেশান, এমনকি প্রশ্নের সম্মুখীন হবেন বলে ইদানীং আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যাওয়া কমিয়ে দিয়েছেন। সেই ৫ জানুয়ারি নিয়ে গোপন প্রকাশ্য বা হাটে হাঁড়ি ভেঙে দিয়েছেন।
তিনি বলেছেন, পুলিশ ও অন্যান্য ক্যাডারে ছাত্রলীগের যারা ছিল তাদের সাথে কথাবার্তা বলে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন করিয়ে নিয়েছেন। আমার এক অতি প্রিয় আপনজন ধানগড়ার ডা: নাজির হোসেন নাদু ভাই গত ১১ নভেম্বর পরপারে চলে গেছেন। তার পরলোক গমনে মনটা খুবই ভারাক্রান্ত। কোনোভাবেই নিজেকে স্বাভাবিক করতে পারছি না। এখন বয়স হয়েছে, জন্ম-মৃত্যু সম্পর্কে কিছুটা জ্ঞান হয়েছে। যেকোনো জীবকেই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবেÑ এটা আল্লাহর ইচ্ছা। কোনো প্রকৃত মুমিনের আল্লাহ্র ইচ্ছের বাইরে কোনো কিছু ভাবতে নেই। কিন্তু কেন যেন তারপরও প্রিয়জনের মৃত্যুতে বুকের ভেতর হু হু করে। শত চেষ্টা করেও সে কান্না থামানো যায় না। নাদু ভাই আমার রক্তের কেউ না।
‘৭১-এ স্বাধীনতা যুদ্ধে কত মানুষ কতভাবে পাশে দাঁড়িয়েছে, পর আপন হয়েছে, আপন হয়েছে পরÑ সে রকমই একজন নাদু ভাই। এপ্রিলের প্রথম দিকে হানাদার পাকিস্তানিরা যখন টাঙ্গাইল শহর দখল করে নেয়, শত সহস্র শহরবাসীর সাথে আমার বাবা-মা, ভাই-বোনেরাও গ্রামের বাড়ি চলে যায়। কিš‘ তাদের সেখানে থাকা সম্ভব হয়নি। ছোট চাচা বাবা-মাকে বাড়িতে থাকতে দেননি। তাদের সব জিনিসপত্র দুয়ারে ফেলে দেন। সেই সময় এই নাদু ভাই, সিরাজ, হামিদ এবং নাদু ভাইয়ের ছেলে শাজাহান আমাদের বাড়ি ছাতিহাটিতে এসেছিল। তারাই তাদের পোঁটলা-পুটলি নিয়ে ধানগড়ায় আশ্রয় দিয়েছিল। ধনীরা গরিবের, বড়রা ছোটর আশ্রয়ের মূল্য দিতে চায় না। প্রায় সবেে ত্রই ব্যাপারটা সত্য হয়। নাদু ভাইয়েরা ছিলেন আমাদের চেয়ে আর্থিক-সামাজিক দিক থেকে পেছনের মানুষ। তাই তারা আমাদের দুঃসময়ে আশ্রয় দেয়ার কথা পরিবারের অনেকেই তেমন মনে রাখেনি, কিন্তু বাবা-মা সেই দুঃসময়ে তাদের ভূমিকা কখনো ভুলেননি। কেন যেন আমিও ভুলতে পারিনি। 
১১ তারিখ হঠাতই খবর পেলাম নাদু ভাই মারা গিয়েছেন। তার মারা যাওয়ার মতো বয়স হয়েছিল। বছরখানেক আগে তার স্ত্রী মারা গিয়েছিল। শহর-বন্দরের লোকজনের কথা বলতে পারব না, কিন্তু গ্রামেগঞ্জে দেখেছি, যেসব স্বামী-স্ত্রীর মোটামুটি বোঝাপড়া থাকে, তাদের একজন মারা গেলে অন্যজন বেশি দিন বাঁচে না। ডা: নাজির হোসেন নাদু ভাইরেে ত্রও তাই হয়েছে।
তার মৃত্যু সংবাদ শুনে জানাজায় শরিক হতে ধানগড়ার পথে ছিলাম। বিকেল সাড়ে ৪-৫টা হবে হঠাৎ এক সাংবাদিকের ফোন, কী ভাই, আপনি আবার কার ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করলেন? টিভির পর্দায় আপনার গ্রেফতারি পরোয়ানা দেখছি। বলেছিলাম, জানি না। আসলেই তখনও তেমন কিছু জানতাম না। পরে শুনলাম, বছর দুই আগে ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সম্মেলনে উদ্বোধনী বক্তৃতায় জনাব মহিউদ্দীন খান আলমগীরকে রাজাকার বলে দেশবাসীর সামনে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলাম। সাহস করে কথাটা বলার কারণও ছিল। তুমি তো জানই, তোমার পাগলেরা কখনো সত্য বলতে ভয় পেত না। যারা অন্যের সান্নিধ্যে না গিয়ে এখনো তোমার আদর্শের ছায়াতলে আছে তারা এখনো সত্য বলতে ভয় করে না তাই বলেছিলাম। কারণ সরকার তখন ঘটা করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করেছিল।
আমি ভেবেছিলাম, সরকার কষ্ট করে যুদ্ধাপরাধী খুঁজছে, আমিও দু-একজন যুদ্ধাপরাধীর খবর দিই। কিš‘ তা যে এমন হিতে বিপরীত হবে, প্রকৃত রাজাকারকে রাজাকার বললে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হবেÑ তা আমার জানা ছিল না। তোমায় কী বলব পিতা! তুমি তো জানই সত্যের কল বাতাসে নড়ে। 
একটা মিথ্যাকে সত্য হিসেবে চালাতে গিয়ে আরো শত মিথ্যে বলতে হয়। তারপরও একদিন সব জারিজুরি ফাঁস করে মিথ্যা প্রকাশ পায়। সত্যও তেমনি দার“ণ শক্তিশালী আণবিক বোমার মতো, তাকে যতই চাপা দেয়া হোক। সত্যের ওপর হিমালয় চাপা দিলেও একদিন সে বেরিয়ে আসে। তেমনি এইচ টি ইমামের মুখে ৫ জানুয়ারির ভোট কারচুপির সব জারিজুরি বেরিয়ে এসেছে। অবচেতন মনে সত্য বলে ফেলায় অবশ্যই দেশবাসী তাকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাবে, আমিও জানিয়েছি। মজার ব্যাপার, একসময় যে জাতি ভোটাধিকারের জন্য, স্বাধিকার-স্বাধীনতার জন্য জীবন দিয়েছে সেই জাতি আজ সব হারিয়েও কেমন এক বদহজমের ঢেঁকুর তুলছে। কারো মধ্যে কোনো আকার-বিকার নেই। কেমন যেন সবাই যন্ত্রের মতো নির্বিকার। আগে স্রষ্টা নাচাতেন সৃষ্টিকে, এখন সৃষ্টিই নাচাতে চায় স্রষ্টার সৃষ্টি মানুষকে। বড় অভাবনীয় ব্যাপার!
৫ জানুয়ারি দেড়-দুই শতাংশ ভোটও পড়েনি, সবার ভোটাধিকার হরণ করে বলছে, ভোটাধিকার কায়েম করেছি। প্রধান বিরোধী দল মারাত্মক ভ্রমে আছে, কোনো কিছুতেই তারা কার্যকর জনপ্রিয় পদপে নিতে পারছে না। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে সরকারের চরম ব্যর্থতা তারা তুলে ধরতে ব্যর্থ হয়েছে। ৩০০ আসনের ১৫৪টিতে নির্বাচনই হয়নি, বাকি ১৪৬ আসনে ভোটের সংখ্যা দেড়-দুই শতাংশ, শতাধিক কেন্দ্রে কোনো ভোটই পড়েনি, কেন্দ্রের সামনে কুকুর-বিড়াল ঘুমিয়েছেÑ যার শত শত ছবি আছে, হাজার কেন্দ্রে ২-৪-১০ ভোট পড়েছে এমন এক হাস্যকর নির্বাচনকে বিরোধী দল দেশবাসীর সামনে শক্তপোক্তভাবে তুলে ধরতে পারেনি। অন্য দিকে সরকারের বাইরে কোনো বিরোধী দল এমনকি স্বতন্ত্র প্রার্থীরাও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেনি।
এসবের কিছুই বিরোধী দল বিদেশীদের কাছে তো দূরের কথা, দেশবাসীর কাছেও তুলে ধরতে পারেনি। অন্য দিকে বিএনপির তরুণ নেতা লন্ডনে বসে বিপুল জ্ঞান অর্জন করে মাঝে মাঝে যেসব অছিয়ত করছে, তাতে প্রধান বিরোধী দল বিএনপিকে ডুবাতে অন্য কারো প্রয়োজন হবে না। বিএনপিকে ঘায়েল করতে তারেক রহমান একাই এক শ’। দিন যত যা”েছ অ¯ি’তি ততই বাড়ছে অথচ সরকার নির্বিকার। যেভাবেই হোক সরকারি দায়িত্ব যখন আওয়ামী লীগের তখন মানুষের জানমালের নিরাপত্তা তো তাকেই দিতে হবে। কিন্তু সেদিকে তার কোনো খেয়াল নেই।
ফ্রান্স বিপ্লবের পর বিরোধীদের গিলোটিনে চড়ানো হতো, এখন রাস্তাঘাটে লাখ লাখ গাড়িঘোড়া সেই গিলোটিনের কাজ করছে। কারো কোনো দয়া-মায়া-মমতা নেই। একজন আরেক জনকে হেয় করতে পারলেই যেন বাঁচে। এসব বিশৃঙ্খলা থেকে বেরিয়ে আসা যে খুব একটা সহজ নয়- তা সবাই জানে। তবে সবাই মিলে কিছুটা ছাড়ছুড় দিয়ে দেশ ও দেশবাসীর কথা ভেবে এক-দু’পা এগোলে দেশের অনেক সমস্যার সমাধানই খুব একটা কঠিন না। কারণ আমাদের ভাষা এক, ভালোবাসা এক। আমাদের কামনা-বাসনা, চিন্তা-চেতনা এক। শুধু একটু সহনশীল হলে, অন্যের ব্যথা-বেদনার প্রতি একটু মনযোগী হলেই অনেক সমস্যা আপনা-আপনি সমাধান হয়ে যেতে পারে। আমরা কেন যেন বিবেকের নির্দেশে চলা থেকে দূরে সরে এসেছি। আবার বিবেকের নির্দেশে চলা শুরু করলে আমাদের শত সহস্র সমস্যা খুব সহজেই শূন্যের কোঠায় এসে ঠেকবেÑ এটাই আমার বিশ্বাস। নদি

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া