adv
২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে দুর্নীতিবাজচক্রের ‘শিরোমনি’ আফসার

praniদীপক চৌধুরী : প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে একটি চিহ্নিত প্রভাবশালী চক্রের মিথ্যাচার ও দুর্বৃত্তায়নে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ঠিকাদার-ব্যবসায়ীরা অতিষ্ঠ। ওই চক্রটি নিজেদের প্রয়োজনে সন্ত্রাসীদের পোষে, অসত কর্মকর্তাদের আশীর্বাদ গ্রহণ করে। তারা ব্যক্তিগত অপকর্ম ঢাকতে দুর্নীতি দমন কমিশনের একশ্রেণির দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে তোষণ করে। ফলে কখনো প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে তাদের রাজত্ব খর্ব হয় না।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, দুর্নীতি দমন কমিশনে আধাডজন মামলা হয়েছে এ চক্রের কোনো কোনো সদস্যের বিরুদ্ধে। কিন্তু অবস্থার পরিবর্তন হয়নি। শতকোটি টাকার মালিক হওয়ার পরও তাদের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।
যেমনÑ প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের সাবেক কর্মচারী ইউনিয়নের নেতা, বিগত আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে চাকরিচ্যুত, ভুয়া প্রটোকল অফিসার পরিচয়দানকারী, অসীম ক্ষমতার অধিকারী ৩য় শ্রেণির কর্মচারী মো. আফসার আলী। সপ্তাহব্যাপী অনুসন্ধানে জানা গেছে, আফসার আলীর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন ডবিউজেড এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী ওয়াহিদুজ্জামান। আফসার আলী ওয়াহিদুজ্জামানের অন্য একটি ব্যবসা ফেলকন প্রপার্টিজের একজন ব্যবসায়িক পার্টনার। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ১৯৮২ সাল থেকে এই অত্যাচারী আফসার আলী চক্রের কাছ থেকে পরিত্রাণের জন্য বিভিন্ন সময়ে উ”চমহলে বিচার চেয়ে প্রাণিসম্পদের কর্মকর্তা-কর্মচারী, ব্যবসায়ী-ঠিকাদাররা ব্যর্থ হয়েছেন। উ”চমহলে আবেদন করেও কোনো সুরাহা করতে পারেননি তারা। বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তৎকালীন সাহসী, সৎ কিছু অফিসার (অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয়) তার দুর্নীতি ও অপকর্মের কারণে তাকে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণে উদ্যোগী হন এবং এরই ধারাবাহিকতায় গত আওয়ামী লীগ সরকারের তৎকালীন মন্ত্রী, সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আফসার আলীর আর্থিক দুর্নীতির বিষয়ে তদন্তের নির্দেশ দেন। এক পর্যায়ে তার সীমাহীন আর্থিক দুর্নীতি প্রমাণিত হয়। চাকরিচ্যুত হন তিনি। তার সীমাহীন শতকোটি টাকার দুর্নীতি ও অপকর্মের জন্য তৎকালীন মন্ত্রী, সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা একটি তালিকা দুদকে প্রেরণ করেন।
অনুসন্ধান চালিয়ে কয়েকটি মামলার সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া গেছে আফসার আলীর বির“দ্ধে। দুদকসহ বিভিন্ন থানায় ৬টি দুর্নীতি মামলা রয়েছে। মো. আফসার আলী, সহকারী স্টোর অফিসার, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর, ঢাকা। সম্পদের তথ্য গোপনসহ জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে খুলনার সোনাডাঙ্গা থানায় একটি মামলা হয়, মামলা নং-২৩, তাং-২১-০১-২০১০। মামলাটি চলমান। মো. আফসার আলী প্রকৃত পরিচয় গোপন করে বেআইনিভাবে ব্যবসা করার অপরাধে তেজগাঁও থানায় একটি মামলা হয়, মামলা নং-৩৮, তাং-২২-০১-২০১০। দুর্নীতি দমন কমিশনের মামলা নং-১৭৫/২০১১। বিজ্ঞ মহানগর দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন এবং সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। মো. আফসার আলীর বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতির অভিযোগে একটি মামলা হয় তেজগাঁও থানায়, মামলা নং-২২৫, মামলা চলমান।
তার বিরুদ্ধে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের প্রোগ্রাম কোঅর্ডিনেট ডিরেক্টর মো. আইনুল হকের অফিসে সন্ত্রাসীদের নিয়ে কক্ষ ভাঙচুর ও লুটপাট করার অভিযোগে তেজগাঁও থানায় ৪৪৮/৩৫৩ ধারায় একটি মামলা হয়, মামলা নং-৫, তারিখ-০২-০৪-২০০৯। তিনি মামলার সাক্ষীদের ভয়-ভীতি দেখিয়ে সাক্ষ্য গ্রহণে বাধাগ্রস্ত করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, এই আফসার আলীর মূল পেশা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে যারা ঠিকাদারী কাজে নিয়োজিত এবং যারা কার্যাদেশ পান তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের কমিশন হাতিয়ে নেওয়া। যারা তাকে ‘চাহিদামতো’ কমিশন না দেন বা যেসব কর্মকর্তা তাকে এই অবৈধ কাজে সহায়তা না করেন তাদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করা হয়Ñ এমন অসংখ্য নজির আছে। এ ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে অধিদপ্তর পৃথকভাবে তদন্ত করছে। গত ২০১৩-২০১৪ অর্থ বছরে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে পশু-পাখির জন্য ওষুধের টেন্ডার আহবান করা হয়। তিনি মনোনিত ঠিকাদারকে কাজ দেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষকে চাপ দেন। কর্তৃপক্ষ তার চাপ উপেক্ষা করে নিয়ম অনুযায়ী বিভিন্ন ঠিকাদারের মধ্যে কার্যাদেশ প্রদান করে। সে সময় ওই কার্যাদেশ প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান মীর অ্যাসোসিয়েটসের স্বত্বাধিকারী মীর শহিদুল হকের নিকট কমিশন দাবি করেন। আর কমিশন না দিলে তাকে নানাভাবে হয়রানি করা হবে বলে হুমকি দেয়। পরবর্তীতে বাধ্য হয়ে মীর শহিদুল হক তাকে ৪ লাখ টাকা দিয়ে প্রাণে রক্ষা পান।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া