adv
২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জয় পেলো ব্রাজিল- পুর্তুগালে হেরে গেলো আর্জেন্টিনা

স্পোর্টস ডেস্ক : মঙ্গলবার রাতে কোটি দর্শকের চোখ ছিলো দুই ধারায় বিভক্ত। একদল ব্রাজিলপন্থী আর অপরদল আর্জেন্টিনাপন্থী। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দলের মুখোমুখি লড়াই না হলেও যে স্টেডিয়ামে ছিল শ্রেষ্ঠত্ব দেখানোর লড়াই। আর সে লড়াইয়ে আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ ছিল পর্তুগাল, অপরদিকে তার প্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ ছিল অস্ট্রিয়া।
হার-জিতের মহারণে ব্রাজিল টপকে গেলেও আটকে গেছে আর্জেন্টিনা। ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যফোর্ড স্টেডিয়ামে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনাকে ১-০ গোলে হারিয়ে দিয়েছে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল। অন্যদিকে আর্নেস্ট হ্যাপেল স্টেডিয়ামে স্বগাতিক অস্ট্রিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে টানা ষষ্ঠ জয়ের দেখা পেল নেইমারের ব্রাজিল বাহিনী।

জাতীয় দলের জার্সি গায়ে বিশ্ব প্রথম দেখলো লিওনেল মেসি আর ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর লড়াই। মঙ্গলবার রাতে ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যফোর্ড স্টেডিয়াম ভরে উঠেছিল রোনালদোর পর্তুগাল আর মেসির আর্জেন্টিনার প্রীতি ম্যাচের মহারণ দেখার জন্য। তবে ওল্ড ট্র্যাফোর্ড কেমন যেন বেইমানি করেনি। সম্মান রেখেছে তার পুরনো ছেলে রোনালদোর। এই মাঠই তো রোনালদোর ক্যারিয়ারের উত্থান পর্বের সব গল্প-গাথা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। ম্যাচের একমাত্র জয়সূচক গোলটি এসেছে রাফায়েল গুয়েরেইরো হেড থেকে। ইনজুরি সময়ে (৯০+১ মিনিটে)।
ম্যাচ শুরুর আগেই রোনালদো ম্যানচেস্টারবাসীর কাছে আহ্বান করেছিলেন, মাঠে যেন তিনি ওল্ড ট্র্যাফোর্ডকে পাশে পান। পেয়েছিলেনও। গ্যালারির অধিকাংশ জায়গাই ভরে উঠেছিল সিআর সেভেনের জার্সিতে। বাকিটা এলএম টেনের।

দর্শকদের মন ভরিয়ে দিয়েছেন দু’জন। যদিও তা মাত্র ম্যাচের অর্ধেক সময় পর্যন্ত। কারণ, ম্যাচের অর্ধেক শেষ হওয়ার পরই মেসি-রোনালদোকে তুলে নিয়েছিলেন তাদের কোচরা। যতক্ষণ মাঠে ছিলেন, ততক্ষণ মেসি আর রোনালদো ছিলেন আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে।
শেষ পর্যন্ত, বল পজেসনের পরিমানে অনেক এগিয়েছিল আর্জেন্টিনা, প্রায় ৬৯ ভাগ। আর পর্তুগালের মাত্র ৩১ ভাগ।
পর্তুগালের জয়ের নায়ক ২০ বছর বয়সী রাফায়েল গুয়েরেইরো। মাত্র দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নেমেছেন তিনি। অভিষেক হয়েছে গত শুক্রবা ইউরো বাছাই পর্বে আরমেনিয়ার বিপক্ষে জয়ী ম্যাচে। আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ম্যাচটি যখন গোলশুন্য সমতায় শেষ হতে যা”িছল, তখনই রিকার্ডো কাওয়ারিশমার দার“ণ এক ক্রস থেকে হেড করেন রাফায়েল।

এ নিয়ে টানা চার জয় পেলো পর্তুগাল। আর রিকার্ডো কাওয়ারিশমা টানা তিন জয়ের নায়ক। আগের দুই ম্যাচেও শেষ মুহূর্তে তার সহযোগিতায় গোল পেয়েছে পর্তুগিজরা।
অপরদিকে আর্নেস্ট হ্যাপেল স্টেডিয়ামে স্বগাতিক অস্ট্রিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে টানা ষষ্ঠ জয়ের দেখা পেল দুঙ্গার ব্রাজিল। গোল করেছেন ডেভিড লুইজ এবং রবার্তো ফারমিনো।
জিলেট ওয়ার্ল্ড ট্যুরের অংশ হিসেবে ইউরোপ সফর করছে এখন দুঙ্গার ব্রাজিল। সপ্তাহ দুয়েক আগে তুরস্ককে হারানোর ৪-০ গোলে হারানোর পর ইউরোপের দ্বিতীয় দল হিসেবে অস্ট্রিয়ার মুখোমখি হল নেইমার অ্যান্ড কোং।
তবে স্বাগতিকদের বিপক্ষে সেলেসাওদের লড়াইটা খুব সহজ ছিল না। প্রথমার্ধে দু’দলের কেউ কারও জাল খুঁজে না পাওয়াতেই এটা প্রমান হয়। দ্বিতীয়ার্ধের প্রায় ২০ মিনিট অতিক্রান্ত হতে চলছিল, কেউ গোলের দেখা পা”িছল না। শেষ পর্যন্ত ডেভিড লুইজের গোলে তা খোলে অস্ট্রিয়া গোলমুখের।
৬৪ মিনিটে অস্কারের কর্নার কিক থেকে ভেসে আসা বলে দুর্দান্ত এক হেডে জাল ভেদ করে স্বাগতিক অস্ট্রিয়ানদের। এরপর ৭৫ মিনিটে অবশ্য অস্কারের অমার্জনীয় এক ভূলে সমতায় ফেরে স্বাগতিকরা। ডি বক্সের মধ্যেই ফাউল করে বসেন অস্কার। যার ফলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।
স্পট কিক নেন আলেকজান্ডার দ্রাগোভিক। ১-১ সমতায় যখন ম্যাচটি শেষ হতে যাচ্ছিল, তখন ব্রাজিলের জয়সূচক গোলটি এনে দেন বদলি খেলোয়াড় ফারমিনো।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া