adv
৯ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

খেলাপি ঋণ ৫৭ হাজার কোটি টাকা

TAKAডেস্ক রিপোর্ট : ঋণখেলাপিতে ছেয়ে গেছে ব্যাংকিং খাত। ব্যাংক ব্যবস্থায়  ধারাবাহিকভাবে এ খেলাপি বাড়ছে। বর্তমানে এ খাতের খেলাপি ৫৭ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। যদিও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত খেলাপি পরিস্থিতি নিয়ে অনেকটা সন্তুষ্ট। যা তার কথায়ও সাক্ষ্য দেয়। গত মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, এখন ব্যাংক খাতের খেলাপি ঋণ ১০ থেকে ১১ শতাংশে নেমে এসেছে। এটা ততটা খারাপ নয়। তিনি আরও বলেন, খেলাপি সংস্কৃতি থেকে পরিত্রাণ পেয়েছি। সংবাদপত্র যদিও মাঝেমধ্যে লেখে খেলাপি ঋণ নিয়ে। তারা অবশ্য দুর্নীতির বিষয়টি তুলে ধরে। খেলাপি হওয়া সম্মানের জন্য হানিকর, এখন ব্যবসায়ীরা এটি মনে করেন বলে মত দেন মন্ত্রী। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে দেখা যায়, সেপ্টেম্বর শেষে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ হয়েছে ৫৭ হাজার কোটি টাকার বেশি। এটি ব্যাংক খাতে মোট বিতরণ করা ঋণের ১১.৬০%। তিন মাস আগে গত জুন শেষে এর পরিমাণ ছিল ৫১ হাজার কোটি টাকা। অর্থাত তিন মাসের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৬ হাজার কোটি টাকা। আর গত ডিসেম্বরের তুলনায় বেড়েছে প্রায় সাড়ে ১৬ হাজার কোটি টাকা। গত ডিসেম্বর শেষে খেলাপি ঋণ ছিল ৪০ হাজার ৫৮৩ কোটি টাকা। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী জানান, রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে যে সব ঋণের সময় বাড়ানো হয়েছে। সেগুলো আবারও খেলাপি হয়েছে। সে কারণে খেলাপি ঋণের পরিমাণ একটু বেড়েছে। তবে সার্বিক বিচারে এটি বেশি নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি। 
এ প্রসঙ্গে একজন অর্থনীতিবিদ বলেন, খেলাপি ঋণের যে হিসাব দেয়া হয়, তা আসলে এক ধরনের প্রতারণা। কারণ এর মধ্যে অবলোপন বা রাইট অফ করা ঋণের হিসাব থাকে না। অথচ অবলোপন করা ঋণের আদায় তেমন নেই এবং আদায়ের চেষ্টা করা হয় না। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুসরণ করলে খেলাপি ঋণের পরিমাণ এর চেয়ে বেশি হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রস্তুত করা ঋণ শ্রেণীকরণ ও প্রভিশনিং প্রতিবেদন অনুসারে, সেপ্টেম্বর শেষে ব্যাংক খাতে মোট ঋণের পরিমাণ হয়েছে চার লাখ ৯৩ হাজার কোটি টাকার বেশি। আগের প্রান্তিকে অর্থাত গত জুন শেষে মোট ঋণের পরিমাণ ছিল চার লাখ ৭৭ হাজার ৪৩৭ কোটি টাকা। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রগুলো বলছে, ২০১৩ সালের দ্বিতীয়ার্ধে দেশে রাজনৈতিক অসন্তোষ হলে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের কেস টু কেস বা প্রতিটি ক্ষেত্রে পৃথক বিশেষণ করে ঋণ পুনঃতফসিলে বিশেষ সুবিধা দেয়া হয়। এ সময় এককালীন জমা বা ডাউনপেমেন্টের শর্ত শিথিল করা হয়েছিল। যদিও কেস টু কেস আর থাকেনি। পুরোনো খেলাপিরাও সুযোগ নিয়ে ঢালাওভাবেই খেলাপি ঋণ পুনঃতফসিল করে। বলা হচ্ছে, এখন আবার সেসব ঋণ খেলাপি হয়ে পড়েছে। খেলাপির শর্ত শিথিল করায় গত ডিসেম্বর শেষে আগের প্রান্তিকের অর্থাত সেপ্টেম্বরের তুলনায় খেলাপি ঋণ ১৬ হাজার ১৩৭ কোটি টাকা কমে যায়। তখন খেলাপি ঋণ নেমে আসে ৪০ হাজার ৫৮৩ কোটি টাকায়। ব্যাংক খাত-সংশ্লিষ্টরা জানান, রাজনৈতিক অস্থিরতার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত উদ্যোক্তাদের ঋণ পুনঃতফসিলে বিশেষ সুবিধা দিয়ে গত ডিসেম্বরে সার্কুলার জারি করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া