adv
২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মানবপচারের নিরাপদ রুট মহেশখালীর সব নৌপদ

imagesজামাল জাহেদ, মহেশখালী (কক্সবাজার) : বাংলাদেশের একমাত্র পাহাড়ঘেরা, সাগরঘেরা উপকূলীয় দ্বীপ কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলার সর্বত্র মালয়েশিয়া আদম পাচারের হিড়িক পড়েছে। মূল ভূ-খণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন মহেশখালী দ্বীপের চারপাশে সাগরবেষ্টিত হওয়ার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সম্প্রতি মালয়েশিয়া আদম পাচারকারী চক্রের একাধিক দালাল ও তাদের গডফাদাররা এসব জনশক্তি ঝুঁকিপূর্ণ সাগরপথে পাচারের জন্য মহেশখালীকে তাদের নিরাপদ টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে বেছে নিয়েছে। নতুন করে পাচারকারীরা এ পথকে বেছে নেওয়ায় স্থানীয় জনসাধারণসহ সচেতন মহলকে চরমভাবে ভাবিয়ে তুলেছে। এসব পাচারের সাথে প্রত্যক্ষ জড়িত জনপ্রতিনিধিসহ সমাজের নামীদামি মানুষ, পাচারকারী দালালচক্ররা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আদম সংগ্রহ করে নামীদামি চাকুরির প্রলোভনে এসব লোকজনদের সাগর পথে মালেশিয়া ও থাইল্যাণ্ড পাচার করছে।
পাচার কাজের সহায়ক হিসাবে বঙ্গোপসাগরের অদূরে ফিশিং ট্রলি ব্যবহার করে জন প্রতি ট্রলার ভাড়া ২০ হাজার টাকা দিয়ে মালয়েশিয়া পৌঁছে দেয়া মাত্র তাদের কাছের স্বজন কর্তৃক জনপ্রতি ২ লক্ষ টাকা করে পরিশোধ করার চুক্তিতে মহেশখালী থেকে মানব পাচার করে সাগর পথে মালেশিয়া নিয়ে যাচ্ছে সিন্ডিকেট সদস্যরা প্রতিনিয়ত। তাদের সাথে চকরিয়া কক্সবাজার, টেকনাফ ও ঢাকার একটি প্রবাভশালী সিন্ডিকেট জড়িত বলে কেহ তাদের বিরুদ্ধে মুখ খোলার সাহস পাচ্ছে না। মালেশিয়ায় নিয়ে যাওয়ার পর পাচার করা সদস্যদের অভিভাবকদেরকে এক প্রকার জিম্মি করে ২ লক্ষ টাকা আদায় করে। ২ লক্ষ টাকা বাংলাদেশে পরিশোধ না করা পর্যন্ত তাদেরকে কাজ কর্ম থেকে বিরত রেখে টাকা  দিতে অপারগ হলে তাদেরকে বিভিন্নভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনসহ মালেশিয়া কারাগারে আটকে দিয়ে  বাংলাদেশে ফেরৎ পাঠানো হবে হুমকি প্রদান করে বলে ভুক্তভোগীরা জানান। ফলে অনেক বাবা-মা তাদের ছেলেদের বাঁচাতে শেষ সম্বল হিসেবে থাকার ঘরটি পর্যন্ত বিক্রি করে দিতে বাধ্য হচ্ছে।
সাগর পথে অবৈধভাবে মালয়েশিয়ায় মানব পাচারের সুযোগে একদিকে যেমন সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে অন্যদিকে বেশি টাকা কামানোর আশায় গভীর বঙ্গেপসাগরে নৌ-দুর্ঘটনার শিকার হয়ে সাগরে সলিল সমাধি হচ্ছে গ্রামের অসংখ্য সহজ সরল ও সাধারণ মানুষ। মালেশিয়ার কারাগারে বন্দি হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে উপজেলার প্রায় দুশতাধিক আদম।
পাচারকারী চক্ররা মালয়েশিয়া যাওয়ার নতুন পাচারের পথ হিসেবে পানি পথকে বেশ গুরুত্ব দিচ্ছে। আর এ জন্য টার্গেট করা হয়েছে সমুদ্র তীরবর্তী এলাকা। এসব এলাকার বাড়ি-ঘরে বিভিন্ন স্থান থেকে অচেনা লোকজনকে মজুদ রেখে গভীর রাতে তাদেরকে ট্রলারে তুলে দেওয়া হয়। আদম পাচারকারী চক্রটি বিভিন্ন কায়দায় প্রশাসনের উচ্চ পর্যায় থেকে ম্যানেজ করে গ্রামের জনপ্রতিনিধিদের কমিশনের মাধ্যমে এ কাজ নিঘির্œনে  চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের রয়েছে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া