adv
২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রচারণা এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার

hqdefaultমাহফুজ আনাম : যুদ্ধাপরাধী কামারুজ্জামান সর্বশেষ সাক্ষাতে তার স্ত্রীকে জানান, তাকে মেরে ফেলা হবে কারণ তিনি দেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করছিলেন। বিভিন্ন গণমাধ্যমে তার দেয়া ভাষ্য অনুযায়ী, তিনি ইসলামের জন্য জীবন দিচ্ছেন এবং ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য তার মতো আরো অনেককেই হয়তো জীবন দিতে হবে। এই মৃত্যুর সারিতে নিজেকে সমর্পণ করতে তার কোন আপত্তি নেই কারণ যে জন্য তাকে মেরে ফেলা হবে তার ব্যাখা অনেক বেশি সম্মানজনক এটি খুব সহজেই বুঝা যায়।
তারা বিশ্বাস করেন এই বিচারের কোন দরকার ছিল না। এটা একটা প্রসহসন মাত্র যা কি না ইসলাম বিরোধী। এই বিচারের কিছু গোপন এজেন্ডা আছে যার এক চতুর্থাংশ ইসলামের ক্ষতি করবে। এই বিচার শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বিচার যা বিএনপি-জামায়াতের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিনষ্ট করার প্রচেষ্টা মাত্র।
অন্য কথায় এই বিচারের অন্য কোন প্রধান কারণ নেই, ন্যায় বিচার নেই, ঐতিহাসিক ভুল সংশোধনের কোন সুযোগ নেই, এই বিচার মানবিক মুল্যবোধের পক্ষাবলম্বী নয়। রাজনৈতিক প্রতিহিংসা পরায়নতা ব্যতিত কিছুই নেই এখানে। মোদ্দা কথা এই বিচারের পিছনে কোন সত্য আছে যা সাধারণ মানুষের সম্মুখে উšে§াচন করা দরকার। এখনো পর্যন্ত কেউই জামায়াতের কার্যক্রমের প্রচারণা ও সমর্থকদের সামনে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে নি। একটি বিষয় ঠিক আছে, ’৭১ সালে জামায়াত ইসলামের কর্মকাণ্ডের জন্য তাদের উপর মাঝে মধ্যে হামলা হয়েছে কিš‘ বিষয় এটি নয়, বিষয় হলো, বিচারিক স্বাধীনতা এবং ন্যায় বিচার। তার চেয়েও বড় কথা হলো ’৭১ সালের সঠিক সত্য যা এখানে দরকার কিন্তু মোটেও ঐতিহাসিক সত্যের কোন ধার ধারে না এই বিচার ব্যবস্থা।
আমাদের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতার কারণ হলো রাজনৈতিক আধিপত্য। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর খন্দকার মোস্তাকের ক্ষমতা দখলের পরই আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের ঐতিহাসিক গল্প পুরো বদলে গেছে। এ দেশের সচেতন মহলের প্রায় সকলেই জানি যে আওয়ামীলীগ সহ দেশের বড় বড় রাজনৈতিক দলগুলো বিভিন্ন সময় বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিয়ে যুদ্ধাপরাধী এবং তাদের দল জামায়াতে ইসলামকে পুনর্বাসিত করেছে। যাদেরকে পুষতে পারব তাদের বিরুদ্ধে এত বড় অভিযোগ তবে কেন ? সে ইতিহাস আমাদের জানা দরকার। আমাদের ইতিহাস বিকৃতি শুরু হয়েছে সে খুব বেশি দূরের কথা নয়। নিঃসন্দেহে এটা সত্য যে, আওয়ামীলীগ মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী দল। কিš‘ তাদের ভুল হচ্ছে, তারা একাই এর সবটুকু কৃতিত্ব দাবি করে। এই যুদ্ধ ছিল গণমানুষের যুদ্ধ। প্রত্যেক মানুষ তখন একে অন্যকে সহযোগিতা করেছিল। বামপন্থী নেতা মাওলানা ভাসানী, মণি সিং সহ সকল ছোট ছোট দল মত নির্বেশেষে সর্বস্তরের নেতাদের ছোট ছোট অবদান অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ অবদানও এই যুদ্ধে ছিল। পাকিস্তানিদের প্রতিহত করার জন্য আমাদের জাতীয় ঐক্যই ছিল সবচেয়ে বড় শক্তি কিন্তু আওয়ামীলীগ দাবি করছে ভারতীয়দের হস্তক্ষেপেই এ যুদ্ধে জয় হয়েছে। স্বাধীনতার পরে আওয়ামীলীগ একজন নেতাকেই প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টায় লিপ্ত। খুব সাধারণভাবে চিন্তা করলেও বুঝা যায় জাতীয় কোন গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার কৃতিত্ব একনায়ক হিসেবে কেড়ে নেয়া কতটা ছোট মানের কাজ। দেশের এই অবস্থায় সামরিক একনায়ক জিয়াউর রহমান এবং  হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বিপ্লব ঘটায় এবং এটা তাদের জন্য খুব সহজ ছিল। কারণ তারা মনে করত বঙ্গবন্ধুর সাথের সবাই যেহেতু আগেই মাঠের বাইরে চলে গেছে তাহলে এখন শুধু বঙ্গবন্ধুকে সরাতে পারলেই হয়।

যখন আওয়ামীলীগ-বিএনপি জোরে সোরে তাদের প্রচার চালাচ্ছিল তখনই জামায়াত ইসলামের জš§, যারা মুক্তিযুদ্ধের সময় সম্পূর্ণই বিরোধী ছিল। তারা একই বোল নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল আর তা হলো, বাংলাদেশ মুসলিম দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়নি। পাকিস্তানিরা এ দেশ থেকে চলে যাওয়ার পর খুব বেশি পরের কথা নয় তারা দেশে কোরআনের আলোকে বাংলাদেশ গড়ার ব্রত নিয়ে মাঠে নামে। তারা সাধারণ মানুষের মানুষের ধর্মীয় অনুভূতি ও আবেগ নিয়ে এক ধরণের রাজনৈতিক খেলা শুরু করে। আর এটিই মূলত বর্তমান চলমান যুদ্ধাপরাধের বিচারের পেক্ষাপট। তাই কামারুজ্জামান তার পরিবারকে বলছিলেন, তারা যেন অন্য জামাত নেতা, তার এবং তাদের অনুসারীদের সাথে কাজ করেন। এখানে প্রশ্ন আসতে পারে তবে এর জন্য আমাদের প্রতিবাদ করা উচিত নয় কি? তবে চলুন ব্যাখ্যা করি কি করা উচিত।
আমরা কি মনে করতে পারি কিভাবে হঠাত একদিন ঢাকা শহরে হেফাজতে ইসলামের জমায়েতের কথা এবং গত বছর ৫ মে’র কথা। মনে হলে আপাত দৃষ্টিতে তা কেবল সামরিক পদক্ষেপই মনে হবে। প্রায় এক লাখ (কারো করো মতে আরো বেশি) মানুষকে বলপূর্বক ঢাকা শহরের বাইরে বের করে দেয়া হয়েছিল এবং ডজন খানেক (মে মাসের ৫ এবং ২৭ তারিখ) বিক্ষোভকারীকে হত্যা করা হয়েছিল। আমরা কি চিন্তা করতে পারি হেফাজতের লক্ষ লক্ষ কর্মীদের, তাদের পরিবারের সদস্যদের, প্রতিবেশিদের এবং আশেপাশের গ্রামবাসীদের কি গল্প শোনানো হয়েছিল।
সহজ সরল গ্রামবাসীদের বলা হয়েছি ঐ রাতে ৩ হাজার কর্মীকে হত্যা করা হয়েছে। এই ঘটনাকে বিএনপি ’৭১ এর গণহত্যার সাথেও তুলনা করেছে। হেফাজত তাদের লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হলেও সরকারকে অস্থিতিশীল করেছিল এবং তাদের আন্দোলনের প্রচার করতে পেরেছিল যার দরুণ সরকার তাদের সন্ত্রাসী রাজত্ব বিস্তারের অপবাদে উৎখাত করে। একইভাবে আমরা যখন যুদ্ধাপরাধীদের বিচারিক কার্যক্রমে সফল হতে যাচ্ছি তখন জামায়াত ইসলাম এই বিচারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী এই বিচার থেকে নিজেকে রক্ষা করার জন্য লক্ষ লক্ষ ডলার খরচ করে যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক সংস্থার সাথে অবৈধ চুক্তি তো তারাই করেছে। এই বিচারে খ্যাতি-অখ্যাতি কিংবা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পূর্ণই এখন দোদুল্যমান অবস্থায় বিরাজমান।
আমরা মনে করি সত্য ভিত্তিক, গণমানুষের সামনে প্রচারযোগ্য, যুক্তি নির্ভর, সহজ এবং সহজবোধ্য সত্যকে সামনে তুলে ধরতে হবে এবং জনস্বার্থে প্রচার করতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে এই তথ্যভিত্তিক প্রচারণা যেন কোন সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বৃদ্ধি কিংবা ধর্মীয় অনুভূতিতে যেন আঘাত না হানে। আ’লীগের মতো এক পাক্ষিক প্রচারণা করে দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করা যাবে না।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া