adv
৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মূত্রগলির পার্টিশানে জাতির পিতার ব্যানার

ডেস্ক রিপোর্ট : নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দলীয় ইশতেহারে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বিনির্মাণের অঙ্গীকার করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী। দলটি দ্বিতীয় মেয়াদেও সরকার গঠন করে। কিন্তু ঘোষণা অনুযায়ী ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সরকার পুরোপুরি সফল না হলেও-  দলের নেতা-কর্মীরা  অনেকটাই ডিজিটাল হয়ে উঠেছেন। অন্ততপক্ষে প্রচারের ক্ষেত্রে তো বটেই। তাই দলীয় কর্মসূচি বা বিশেষ দিবস এলেই দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানাতে, কিংবা দলীয় পদলাভে নেতা তোষণে তাদের মধ্যে ডিজিটাল ব্যানার-ফেস্টুন টাঙানোর ধুম পড়ে যায়। দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা, রাস্তা সংলগ্ন ভবন এবং  রাস্তার আশপাশ ছেয়ে যায় তাদের ডিজিটাল বিলবোর্ড আর ব্যানার-ফেস্টুনে। আর এ  তৎপরতা বেশি লক্ষ করা যায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ঘিরে।   
 
তবে এর পাশাপাশি, এসবের অপব্যবহারও নেহায়েত কম হয় না। সম্প্রতি এমন একটি দৃশ্যই ফ্রেমবন্দি হয় এ প্রতিবেদকের অনুসন্ধিৎসু-দৃষ্টিতে। তাও আবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ঘিরেই!  
 
মঙ্গলবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের পাশের গলিতে দেখা যায়, অব্যবহৃত ও পরিত্যক্ত ব্যানার-ফেস্টুনের অপব্যবহার।  ‘মূত্র-গলি’ নামে পরিচিত কেন্দ্রীয় কার্যালয় ভবন ঘেঁষা ওই গলিটিতে লোকজনকে মূত্র ত্যাগে বাধা দিতে পার্টিশান হিসেবে দেখা যায় ব্যানারের ব্যবহার। শুধু তাই নয়, মূত্রত্যাগের জায়গাটিতেও স্তূপ করে রাখা হয়েছে অনেকগুলো ব্যানার-ফেস্টুন। উদ্দেশ্য, মূত্রত্যাগ বন্ধ করা।
কিন্তু কাঁটাতারের বেড়া ডিঙানো বাঙালি কি আর ওই বাধা মানে? ফল যা হওয়ার তাই!  স্তূপীকৃত ব্যানারের ওপরই অবলীলায় চলছে মানব-বর্জ্য ত্যাগ!  আর এসব ব্যানার-ফেস্টুনে রয়েছে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুননেসা মুজিব, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও প্রধানমন্ত্রী তনয় সজীব ওয়াজেদ জয়ের প্রতিকৃতি।  
সরেজমিন দেখা যায়, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের ডান পাশের মার্কেট সংলগ্ন এই গলিটির অবস্থান। গলিটির প্রবেশ মুখের একপাশে কাপড়ের দোকান। অন্যপাশে একটু দূরে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিরাপত্তায় নিয়োজিত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর সদস্যদের বসার জায়গা। গলির শেষ মুখের সন্মুখ দেয়ালে বাংলাদেশ আওয়ামী হকার্স লীগ ও বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সাইনবোর্ড। সেখান থেকে একটু দূরেই  আওয়ামী লীগের এ সহযোগী সংগঠন দুটির কার্যালয়।
আরো দেখা যায়, গলির প্রবেশমুখ থেকে শেষ পর্যন্ত এক পাশে পুরনো ভবনের পরিত্যক্ত ঘরগুলোতে রাখা  হয়েছে নোংরা, ময়লা ও আবর্জনা; আর অন্য পাশে বঙ্গবন্ধু, বঙ্গমাতা, প্রধানমন্ত্রী ও তার পুত্রের ছবি-সম্বলিত ব্যানার-ফেস্টুন ব্যবহার করে তৈরি করা কথিত-পার্টিশন। 
Photo-02সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর ৪ক অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার ও প্রধান বিচারপতির কার্যালয় এবং সব সরকারি ও আধাসরকারি অফিস, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষের প্রধান ও শাখা কার্যালয়, সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশের দূতাবাস ও মিশনসমূহে সংরক্ষণ ও প্রদর্শন করিতে হইবে। 
এ দৃশ্য বেশি পীড়া দেয় বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউর আওয়ামী লীগ কার্যালয় কেন্দ্রিক ক্ষুদে ব্যবসায়ীদের। এদেরই একজন চা দোকানি (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) এ প্রতিবেদককে আক্ষেপ করে বলেন, ‘কোনো অনুষ্ঠান অইলে  নেতা-কর্মীরা এহানে বড় বড় কতা কয়; আদর্শের বুলি হুনায়। অথচ দ্যাহেন তাগো নেতাগো ব্যানার দিয়া  পেশাবের ঢাকনা বানাইছে।’
 কারা এ কাজ করেছে?- জানতে চাইলে, ‘আমি জানি না’ বলে, ‘এইডা কবে বন্ধ অইব?’- উল্টো প্রশ্ন করেন তিনি। আর-বি

 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া