adv
৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কামারুজ্জামানের জানাযার প্রস্তুতি নিচ্ছে জামায়াত

Zamanডেস্ক রিপোর্ট : জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় খুব দ্রুতই কার্যকর করা হবে বলে মনে করছেন জামায়াত নেতারা। বিশেষ করে কাশিমপুর কারাগার থেকে তাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে আসার পর তাদের মাঝে এই ধারণা আরো স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। ফাঁসি কার্যকর করার পর জানাযায় অংশ নিতে সরকার কোন প্রতিবন্ধকতা তৈরি  করবে না বলে জামায়াত নেতারা আশা করছেন।
গোলাম আজমের জানাযায় অংশ নিতে সরকার বাধা না দেয়ায় কামারুজ্জামানের জানাযাও সরকার একই আচরণ করবে বলে মনে করছেন জামায়াত নেতারা। প্রথমিকভাবে মনে করা হ”েছ কামারুজ্জামানের জানাযা ও দাফন হবে নিজ জেলা শেরপুরে। সেজন্য জানাযায় অংশ নিতে আগ্রহী নেতা-কর্মীদের নিজ নিজ উদ্যোগে শেরপুরে যাওয়ার জন্য বলা হয়েছে। লাশের সাথে কোন নেতা-কর্মীর যাওয়ার ই”ছা থাকলেও তা না দেখানোর জন্যও বলা হয়েছে।
জামায়াত নেতারা বলছেন কামারুজ্জামান পুরোপুরি নির্দোষ, বিধবাপল্লী নামে যে সোহাগপুর গ্রামের কথা বলা হচ্ছে কামারুজ্জামান তার জীবনে কখনো সেখানে যায়নি। শেরপুরে তার নিজ বাড়ি ও গ্রাম ছাড়া অন্য কোন এলাকাকেও তিনি খুব একটা চেনেন না। এমনকি শেরপুরের মানুষজনও তাকে খুব একটা চেনে না। যুদ্ধাপরাধের মামলায় গ্রেফতারের পর শেরপুরের অধিকাংশ মানুষ কামারুজ্জামান সম্পর্কে শুনেছে। তারা প্রশ্ন রাখেন এতবড় আলবদর নেতাকে কেন শেরপুরের সাধারণ মানুষ চিনবে না ? জামায়াত নেতারা আরো বলেন, কামারুজ্জামানের বাড়ি শেরপুর একথা তার নির্বাচনে অংশ নেয়ার আগে স্থানীয় অনেকেই জানতেন না। ৭১ সালে শেরপুর-ময়মনসিংহের এতবড় আলবদর নেতা কিভাবে স্থানীয়ভাবে অপরিচিত ব্যক্তি হলেন সে প্রশ্ন কি আসে না ?
জামায়াতের একটি সূত্র জানিয়েছে, সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে কামারুজ্জামানের ফাঁসি দেয়া হলেও তারা তেমন কোন প্রতিক্রিয়া দেখাবেন না। সরকার বিরোধী আন্দোলন ও অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় জামায়াত-শিবিরের অসংখ্য কর্মী পঙ্গু হয়েছে এবং অনেকে শহীদ হয়েছেন। আর কারাগারে রয়েছেন নীতিনির্ধারকদের অনেকেই। সরকারের  নির্যাতনের প্রতিবাদ করতে গিয়ে জামায়াত আর্থিক, শারীরিকভাবে স্মরণকালে এতো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত কখনো হয়নি। যেহেতু সরকার প্রতিবাদের ভাষার জবাব দি”েছ বুলেটে। তাই দলের কর্মী বাহিনীর যেন আর ক্ষতি না হয় সেদিকেই লক্ষ্য রাখা হচ্ছে।
সূত্রটি আরো জানায়, সত্য, ন্যায় ও ইসলামের আদর্শ প্রতিষ্ঠা করতে জামায়াত দৃঢ়ভাবে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এজন্য জালেম সরকারের বিরুদ্ধে লড়তে আন্দোলনের ধরণও বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকম হবে। এদিকে রাষ্ট্রপতির কাছে কামাররুজ্জামানের প্রাণভিক্ষার কোন আবেদন করা হবে না বলে পরিবারের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। একই সিদ্ধান্ত দলীয়ভাবেও নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া