adv
২৭শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রবাসীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান -দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখুন

শেখ হাসিনা {focus_keyword} দেশের অর্থনীতিতে প্রবাসীদের অবদান রাখার আহ্বান hasina 6 e1407913550462ডেস্ক রিপোর্ট : প্রবাসী বাংলাদেশিদের কাছে মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতার চেতনায় উদ্ভুদ্ধ হয়ে দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
শুক্রবার সন্ধ্যায় মিলানের হোটেল মিলানেফিয়োরিতে আওয়ামী লীগ ইতালি ইউনিট আয়োজিত স্থানীয় প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকদের দেয়া এক সংবর্ধনা সভায় এ আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রতি বিশ্বসম্প্রদায়ের কাছে দেশের ভাবমূর্তি ও মর্যাদা তুলে ধরার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স দেশের অর্থনীতিকে সচল রেখেছে। এছাড়াও তারা বহুভাবে দেশের উন্নয়নে অবদান রাখছে। বিভিন্ন সংগ্রাম ও গণতান্ত্রিক আন্দোলন সেই সঙ্গে স্বাধীনতা অর্জনে প্রবাসীদের অবদানের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘প্রবাসীদের অপরিমেয় অবদান দেশের মানুষের অধিকার নিশ্চিত করবে। বাংলাদেশ যখনই কোনো বিপজ্জনক অবস্থায় পড়েছে সেসময় প্রবাসী বাংলাদেশিরা দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।’
তিনি জানান, ১৫ আগস্ট জাতির জনককে হত্যার পর জনমত তৈরিতে এবং সামরিক সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তার (শেখ হাসিনার) দেশে ফিরতে বাধার প্রতিবাদে প্রবাসীদের ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে অবাধ দুর্নীতি, অর্থ পাচার, সন্ত্রাসবাদ ও বাংলাভাইদের মতো জঙ্গিবাদের উত্থান হয়েছে। তারা যখনই ক্ষমতায় এসেছে দেশকে পেছনে ঠেলে দিয়েছে। তারা ক্ষমতার লোভে শাহ এমএস কিবরিয়া, আহসান উল্লা মাস্টার এবং আইভি রহমানসহ অনেক জনপ্রিয় আওয়ামী লীগ নেতাকে হত্যা করেছে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৫ জানুয়ারি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি-জামায়াত ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড চালিয়ে সাধারণ মানুষ, পুলিশ, বিজিবি সদস্য এবং সেনাবাহিনীর সদস্যকে পর্যন্ত হত্যা করেছে। এছাড়াও রেলওয়ের ফিসপ্লেট তুলে ফেলা, বাস ও ট্রেনে অগ্নিসংযোগ, পবিত্র কোরআন পোড়ানো এবং মসজিদে হামলাসহ দেশজুড়ে অরাজকতা তৈরি করেছিল।
তিনি বলেন, ‘পরাজিত শক্তি জাতির পিতার হত্যাকারীদের বিভিন্নভাবে পুরস্কৃত করেছেন। শুধু তাই নয় তাদের পুনর্বাসিতও করেছিলেন। সামরিক একনায়ক জিয়া, পরবর্তীতে এরশাদ এবং খালেদা জিয়া ওই হত্যাকারীদের এমপি বানিয়েছেন এবং দূতাবাসে চাকরিও দিয়েছেন।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ইতোমধ্যেই আমরা ভারত এবং মায়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নিয়ে বিরোধ নিষ্পত্তি করেছি।’ ‘বিশাল সমুদ্রসীমা দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে অবদান রাখবে’ বলে তিনি উল্লেখ করেন।
এতে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের ইতালি ইউনিটের সভাপতি ইদ্রিস ফরায়েজি। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন- সর্ব ইউরোপীয় অনীল দাস গুপ্তা, সাধারণ সম্পাদক এসএ গণি, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান শরিফ, পররাষ্ট্র মন্ত্রী মোহম্মদ আলী এবং প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া