adv
২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তিন কোটি টাকা মুয়াজ্জিনের বেডরুমে

hojorডেস্ক রিপোর্ট : জীবনে একসঙ্গে ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত দেখেছি। তা-ও ব্যাংকে। গ্রামে জমিজমা বিক্রির সময় দেখেছিলাম তার চেয়েও কম। কিন্তু একসঙ্গে ২ কোটি টাকা দেখিনি কখনও। আড়াই কোটিরও বেশি বলা যায়। সেদিন এত টাকা দেখে ঢোক গিলতে পারছিলাম না। তবে সত্যি বলছি। আমি এ চুরির বিষয়ে জানলেও নিজে জড়িত নই।
চট্টগ্রামে চাঞ্চল্যকর বেসরকারি নিরাপত্তা সংস্থা গ্র“প ফোরের ৩ কোটি টাকা খোয়া যাওয়ার ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া বশিরুল আলম এভাবেই জানিয়েছেন কথাগুলো। পেশায় তিনি একটি মসজিদের মুয়াজ্জিন। রোববার গভীর রাতে বিপুল অংকের এত টাকা প্রতিষ্ঠানটি থেকে চুরি হওয়ার পর গতকাল তা ওই মুয়াজ্জিনের বাসা থেকে উদ্ধার করে নগর পুলিশ।
এ ঘটনায় চুরির মূল হোতা শহিদুল হক শান্তনু নামের অপর এক ব্যক্তিকে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ। তবে গ্র“প ফোরের কার্যালয়ে এত টাকা কিভাবে এলো তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। যদিও তারা দাবি করেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমতি নিয়েই এসব টাকা তারা অফিসে রেখেছিলেন। অন্যদিকে পুলিশ বলছেন তাদের কখনো এ বিষয়ে আগে অবহিত করা হয়নি।
এ বিষয়ে পুলিশ কমিশনার আবদুল জলিল মণ্ডল  বলেন, ঘটনাটির পর থেকে ভীষণ চাপে ছিলাম। টার্গেট ছিল যতদ্রুত টাকাগুলো উদ্ধার করবো। শেষমেশ আমরা সফল হয়েছি। কিন্তু আসল চোর ওই প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তাকর্মী শান্তনু পালিয়ে গেছে। আশা করছি সে ধরা পড়ে যাবে।
তিনি আরও বলেন, ৩ কোটি টাকা রাখার ব্যাপারে পুলিশ বিভাগ আগে থেকে কিছু জানতো না। এত টাকা রাখার আগে অবশ্যই আইনশৃক্সক্ষলাবাহিনীকে জানিয়ে রাখা ভাল।
পুলিশ জানায়, গত রোববার গভীর রাতে নগরীর খুলশী থানায় নিরাপত্তা সহায়তাদানকারী সেরকারি প্রতিষ্ঠান গ্র“প ফোর সিকিউরিটিজের অফিস থেকে তিন কোটি টাকা চুরি হয়। ঘটনার পরপরই প্রতিষ্ঠানটির সিনিয়র ম্যানেজার তারেক মনসুর বাদী হয়ে মামলা করেন।
এতে তিনি উল্লেখ করেন, রোববার ভোররাতের দিকে নগরীর খুলশীর ৪ নম্বর সড়কের ১৫/২ নম্বর ভবনে প্রতিষ্ঠানটির টাকার ভল্ট খুলে তিন কোটি টাকা চুরি করে কে বা কারা। পরে ভল্টের গোপন ক্যামেরায় ধারণ করা ফুটেজ পর্যবেক্ষণে চুরির বিষয়টি ধরা পড়েছে। মুখোশধারী এক চোর ভল্টের নকল চাবি ব্যবহার করে এই ঘটনা ঘটিয়েছে।
মূলত বিভিন্ন অফিসের টাকা-পয়সা নিরাপদে পরিবহন করার কারণে তাদের ভল্টে এত টাকা রাখা হয়েছিল। ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় ঘেরা পুরো অফিসে সার্বক্ষণিকভাবে একজন ফ্রন্ট ডেস্ক অপারেটর আছেন। তার কাছে ভল্টের চাবি থাকে। ভল্টের সিকিউরিটির জন্য সার্বক্ষণিকভাবে দু’জন নিরাপত্তারক্ষীও থাকেন।
ভল্টে মোট জমা টাকার পরিমাণ ছিল ৫৪ কোটি টাকা। পরে অফিসার নিজাম উদ্দিন ও আবুল আরমান ফজলুল করিম ভল্ট খুলে হিসাব করে তিন কোটি টাকা কম দেখতে পান। বিষয়টি তারা সঙ্গে সঙ্গে উপরের মহলকে জানালে খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। পরে গোপন ক্যামেরায় দেখা যায়, মুখোশধারী এক লোক চাবি দিয়ে ভল্টের দরজা খুলে ভেতরে প্রবেশ করে। সাদা প্লাস্টিকের বস্তায় টাকা ভর্তি করে বের হয়ে যায় দ্রুত।
ঘটনার পরপরই নড়েচড়ে বসে পুলিশ। তারা অভিযান চালাতে শুরু করে। এক পর্যায়ে নিশ্চিত হয় প্রতিষ্ঠানটির নিরাপত্তাকর্মী শান্তনু এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত। সোমবার গোপন রাত ৩টায় পুলিশ প্রথমে হানা দেয় শহরের সদরঘাট থানার সরকারি সিটি কলেজ জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন মো. বশিরুল আলমের বেডরুমে। সেখানেই পাওয়া যায় ২ কোটি ৯৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা।
গ্রেপ্তার করা হয় বশিরুল আলম (২৮)কে। তার পরিচয়ও পাওয়া গেছে। তিনি কক্সবাজারের মহেশখালীর দরিষার পাড়ার বাসিন্দা। তার পিতার নাম মৃত নজির আহমদ। জিজ্ঞাসাবাদে বশিরুল পুলিশকে জানান, মূল হোতা শহিদুল হক ওরফে শান্তনু (২৪) তার পূর্বপরিচিত। সে নরসিংদীর আদিয়াবাদের হোসেন আলী ভূঁইয়ার পুত্র। বেশ কিছুদিন ধরেই শান্তনু এ চুরির ছক আঁকছিল।
গভীর রাতে চুরি করে পরদিন সকাল সাড়ে ৭টায় সে ৩টি চালের বস্তায় চোরাই টাকা নিয়ে তার বাসায় আসে। পরে উভয়ে বসে টাকাগুলো প্যাকেটবদ্ধ করে দু’টি ট্রলিব্যাগে সংরক্ষণ করে রাখে। শান্তনু বর্তমানে পলাতক।
মুয়াজ্জিন বশিরুল আলম বলেন, টাকাগুলো নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। শান্তনু বলেছিল সে ঢাকায় চলে যাবে। কিছুদিন আত্মগোপন করে থাকবে। তারপর সুযোগ বুঝে দেশের বাইরে যাওয়ার চেষ্টা করবে।
নিজেদের আর্থিক অবস্থার বিষয়ে তিনি বলেন, অর্থনৈতিক অবস্থা ভাল থাকলে কি আর এখানে আসতাম। কিন্তু ভাই বিশ্বাস করুন, আমি টাকাগুলো চুরি করতে যাইনি। শান্তনু চুরি করেছে। তবে আমি বিষয়টি জানতাম। প্রথমে বিশ্বাস করতে পারিনি। পরে সে যখন টাকার বস্তা নিয়ে এলো তখন ঘুম থেকে উঠে চোখ কচলাতে কচলাতে মনে হলো স্বপ্ন দেখছি। মাজ

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া