adv
৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

এরশাদের রাজনীতি ও দেশ ছেড়ে যাওয়ার চ্যালেঞ্জ

এইচ এম এরশাদডেস্ক রিপোর্ট :  কেউ যদি প্রমাণ করতে পারেন মুক্তিযুদ্ধের সময় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ দেশে এসেছিলেন, তাহলে তিনি রাজনীতি ও দেশ ছেড়ে চলে যাবেন। বৃহস্পতিবার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন।
বিবৃতিতে এইচ এম এরশাদ বলেন, ‘আমি অত্যন্ত বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ্য করছি, কিছু কিছু মহল আমার বিরুদ্ধে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ে আমার ভূমিকা নিয়ে মিথ্যা, বানোয়াট ও কল্পনাপ্রসূত তথ্য প্রচার করে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির চেষ্টা করছে। এই মহলটি কুখ্যাত গোয়েবলসের ফর্মুলা অনুসরণ করে বলতে চায় যে মুক্তিযুদ্ধের সময় সেনাবাহিনীতে থাকাকালে আমি নাকি পাকিস্তান থেকে ছুটিতে বাংলাদেশে এসেছি এবং কোনো এক কল্পিত আদালতের বিচারক ছিলাম।’ আমি এ ধরনের জঘন্য মিথ্যাচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। এই মিথ্যুক মহলটির প্রতি চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলতে চাই যে বর্ণিত এই বানোয়াট তথ্যের যদি কেউ প্রমাণ দিতে পারে, তাহলে আমি রাজনীতি থেকে চিরবিদায় নেব। এমনকি দেশ ছেড়েই চলে যাব। আর যাঁরা এ ধরনের মিথ্যাচার করছেন, তাঁরা প্রমাণ দিতে না পারলে জাতির সামনে তাঁদের ক্ষমা চাইতে হবে।’
এ বিষয়ে জানতে চাইলে এরশাদের গণমাধ্যম ও রাজনৈতিক সচিব সুনীল শুভ রায় বলেন, ‘মোয়াজ্জেম নামের এক লোক টক শোতে বলেছে স্যার নাকি যুদ্ধের সময় দেশে এসেছিল। এ ছাড়া অনেক সময় এ নিয়ে লেখালেখি হয়েছে। এ জন্য এ বিবৃতি দেওয়া হয়েছে।’
বিবৃতিতে এরশাদ আরও বলেন, ‘মহান স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় এবং স্বাধীনতার পরে পাকিস্তানের বন্দিশিবিরে স্ত্রীসহ আমি এবং বাঙালি সৈনিক ও অফিসারগণ অববর্ণনীয় নির্যাতন ও দুর্দশা সহ্য করে বেঁচে ছিলাম। এরপর বঙ্গবন্ধুর কূটনৈতিক সাফল্যে আমরা দেশে ফিরতে পেরেছি। দেশে ফেরার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানই আমাকে পদোন্নতি প্রদান করে আর্মি হেড কোয়ার্টারে অ্যাডজুট্যান্ট জেনারেল হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। তিনিই আমাকে প্রথমবারের মতো এনডিসি কোর্স করাতে ভারতে পাঠিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু আমাকে জানতেন এবং বুঝতেন বলেই তাঁর কাছ থেকে আমি এই পুরস্কার পেয়েছি। পরবর্তীকালে আমি মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের প্রধান উপদেষ্টার দায়িত্ব পেয়েছি। ক্ষমতালাভের পর মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন এবং মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে আমি যা করেছি আর কেউ তা করতে পারেনি। এখন আমাকে নিয়ে যাঁরা বিভ্রান্ত সৃষ্টি করতে চান, তাঁরা কোন পক্ষের হয়ে কাজ করছেন সে ব্যাপারে প্রশ্ন এসে যায়। কেউ যদি বঙ্গবন্ধুর চেয়ে স্বাধীনতার চেতনাপ্রেমী সাজতে চান, সেই সব অতি প্রেমিকদের ব্যাপারে জাতিকে সজাগ থাকতে হবে। প্রআ

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2014
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া