adv
২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাতানো খেলার পাতানো প্রতিবাদ

images (7)যায়নুদ্দিন সানী : তখন সংসদে চলছে বিচারকদের নাকে দড়ি পরাবার আইন নিয়ে আলোচনা। এই ফাঁকে খন্দকার সাহেব বের করলেন ‘জিয়ে পাকিস্তান’। কাজটা ওপর মহলের নির্দেশে না নিজের ইচ্ছায়, খুব ভালো বোঝা গেল না। কারণ এ জাতীয় ঘটনা সাধারণতঃ ইস্যু চাপা দিতে ঘটানো হয়, কিংবা ডিগবাজি দেয়ার আগে। ডিগবাজির সিদ্ধান্ত সম্ভবতঃ নিয়েই ফেলেছেন, কেবল জনসমক্ষে প্রকাশ করার দেরি, এই যা। তবে এই বই দিয়ে বড় কোন ইস্যু ঢাকা যাবে না। তাই মনে হচ্ছিল নতুন কিছু ঘটতে যাচ্ছে।
ইনু সাহেব জানালেন, সরকারের পক্ষে হয়ে লেখালেখি করতে। এটাও বেশ হাল্কা কিসিমের একটা আবদার। মেনন সাহেবের হজ্ব যাত্রা নিয়েও অনেকে বেশ আলাপ করল দেখলাম। এর মাঝে মওদুদ সাহেবও বই লিখে ফেললেন। আওয়ামীদের জন্য উপকারি এক বই। সম্ভবতঃ ডিগবাজি প্রথম ধাপ। এতোসব কিছু ঘটে গেলেও এসব ব্যাপার নিয়ে বিএনপি মোটামুটি নিশ্চুপ। এমনকি তাদের তরফের বুদ্ধিজীবী সাহেবের পিটুনি নিয়েও তেমন কোন কথা তাদের মুখে নেই। অবশ্য বুদ্ধিজীবী মশায় ছিন্ন বস্ত্রে কিঞ্চিৎ সহানুভূতি মিটিং এ গিয়েছিলেন। সেখানে ম্যাডামের সহানুভূতি হ হয়তো পেয়েছেন তবে দেশবাসির অবজ্ঞাও সাথে করে নিয়ে এসেছেন। শুধু তিনি না, পুরো বুদ্ধিজীবী সমাজের জন্যও, বেশ খানিকটা গালি তিনি সাথে করে এনেছেন– ‘রাজনীতিবিদদের ছা পোষা’
এসব ঘটনাই বড় কোন ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য যথেষ্ট না। তাই এসবের কোনটাকে তেমন আমলে নেই নি। এমন সময় যখন দেখলাম রায়ের তারিখ ঘোষণা হল, তখন মনে হল, এবার কিছু একটা হবে। তারিখ ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে ফেসবুক আর ব্লগে, আওয়ামী বাহিনীর যথারীতি ‘চেতনা’ মার্কা ‘ডায়ালগ’ বাজি শুরু হয়ে গেল। কেউ কেউ আবার পরের দিন বিরিয়ানী খাইতে চাইলেন। কেউ জানালেন অপেক্ষার প্রহর কাটছে না। আমি অপেক্ষায় ছিলাম, পেছনের খেলা দেখার।
রায়ে যে চমক আসবে সে নিয়ে সন্দেহ ছিল না। জামায়াত বেশ চুপচাপ দেখেই বোঝা যাচ্ছিল, ‘প্রব্লেম সল্ভড’। এখন ফেসবুক আর ব্লগ ভাসছে, গালিগালাজে। এই গালিগালাজ পার্টি সব সময়েই এমন করে। ৫ই জানুয়ারিকে যারা সমর্থন করে নি, একসময় তারা এদেরকেও গালিগালাজ করেছিল। গণজাগরণকে যারা মৃত ঘোষণা করেছিল, তাদেরকেও এক হাত নিয়েছিল। এরাই এখন বেশ বীরদর্পে ঘোষণা করছে, বিচার করবে বলে তারা ৫ই জানুয়ারির অন্যায়কে সমর্থন দিয়েছিল। সবচেয়ে মজার কথা, এরা এমন ভুল আবারো করবে। অচিরেই নিজামির রায়ের দিনও ঢাকঢোল পেটাবে। সেই রায়ে ফাঁসি হলে উচ্ছ্বাস করবে। আর সুপ্রিম কোর্টে খালাস হলে, আবার ঘ্যান ঘ্যান করবে।
শাহবাগ যে এখন একটা ‘কমেডি শো’ হয়ে গেছে আর বেশ রেটিং ও পরে গেছে, এই কথাটা তারা এখনো বুঝছে না। জলকামান আর টিয়ার গ্যাস খেয়ে নিজেদের সততা প্রমাণের চেষ্টা করছে। শেষরক্ষা হবে কিনা তা এখন দেখার ব্যাপার। বুদ্ধিজীবীদের ব্যাপারটাও এখন দেখবার মত হবে। আওয়ামী ক্যাম্পের মহারথীরা সম্ভবতঃ ‘বিচার তো করেছে অ্যাট লিস্ট’ এই লাইনে এগোবে। আর আওয়ামী পিচ্চি গুলোর ডায়ালগ হবে ‘গাড়িতে পতাকা লাগাতে দেয়ার চেয়ে তো কম অপরাধ’ এটা। এবং অচিরেই ঘটনাগুলো আমরা ভুলে যাব।
এই রায় অনেকগুলো কাজ একসাথে করল। আওয়ামীদের গায়ে ‘আঁতাত’ জাতীয় সিল লাগিয়ে দিয়েছে। কাদের মোল্লার সময়েও লেগেছিল তবে সেবার গণজাগরণকে কব্জা করে, সেটা মিটিয়ে ফেলেছিল। এবার মনে হয় সেই লাইনে আর এগোবে না। এবারের চেষ্টা হবে, ‘যা করেছি, অনেক করেছি। বিএনপি তো তাও করেনি।‘ স্টাব্লিশ করা। ‘ছা পোষা’ বুদ্ধিজীবীরা তো আছেনই এই কাজ করার জন্য। ব্লগ, ফেসবুকেও আছে তাদের দোসররা। তবে এই ফাঁকে আওয়ামী ক্যাম্প ছোট্ট একটা কাজ সেরে ফেলেছে। বিচারকদের সরাবার ক্ষমতা সংসদের কাছে নিয়ে এসেছেন।
কাজটা জরুরি ছিল কি না জানি না। হয়তো ছিল। বিচারক নিয়োগে দলীয়করণ তো অনেক আগেই শুরু হয়েছিল। সেখানে নিজেদের লোক বসানোর প্রক্রিয়াও বেশ ভালোভাবেই এগোচ্ছিল। সেক্ষেত্রে সমস্যা হচ্ছে গণতন্ত্র। অন্য দল আসলে তাদের লোক বসে যাবে। কিংবা যেহেতু ‘আওয়ামী’ দের কেনা যায়, তাই যেকোনো সময়ে যে কেউ বিক্রি হয়ে যেতে পারেন, এই ভয় তার ভিতর কাজ করছিল। তাই বোধহয় পুরোপুরি স্বস্তি পাওয়া যাচ্ছিল না। তাই হুমকি হিসেবেই হোক আর কাজে লাগাবার জন্যই হোক, এই আইনটা হাতে রাখা জরুরি হয়ে গিয়েছিল।
সামনে আর কোন খেলা আছে না আপাততঃ ঈদের ছুটি, ঠিক বোঝা যাচ্ছে না। হরতালগুলোতে মনে হয় না তেমন কোন প্রাণহানি হবে, নির্বিঘেœই কেটে যাবে। হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার মত একটা অসুখ হয়তো সামনে হবে। তারপরের অংশটিও বেশ পরিস্কার। এরপরে আবার নতুন কোন খেলা দেখাবার আগের দিন জানানো হবে, নিজামীর রায়ের দিন। এবং তখন আবার শুরু হবে, পাতানো খেলা, আর পাতানো প্রতিবাদের অভিনয়।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2014
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া