adv
২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শতবর্ষ পেরিয়ে আজিজার মুন্সি- বাবা বিজলী বাতি দেখতাম চাই

১০৩ বছর বয়সী মো. আজিজার মুন্সী : জীবনের শেষ ইচ্ছা বাড়িতে বিদ্যুতের বিজলী বাতি দেখে যাওয়াডেস্ক রিপোর্ট : বয়স তার শতবর্ষ ছাড়িয়ে গেছে। জাতীয় পরিচয়পত্রে জন্মতারিখ ১৯১১ সালের ২৮ আগস্ট। সে অনুযায়ী চলতি মাসে বয়স দাঁড়ায় প্রায় ১০৩ বছর। শতবর্ষ পেরোনো এই মানুষটির নাম মো. আজিজার মুন্সী। মাগুরা সদরের নিশ্চিন্তপুর গ্রামে তার বাড়ি।
স্ত্রী জুলেখা বেগম ও পরিবারের অন্য সদস্যদের দাবি, তার বয়স আরো বেশি। নিশ্চিন্তপুর গ্রামে একমাত্র শতবর্ষী আজিজার মুন্সীকে ঘিরে সেখানকার মানুষের আগ্রহও খুব। বাইরের যে কেউ এলাকায় এলেই পুরোনো দিনের মানুষ হিসেবে তার কথা প্রসঙ্গক্রমে চলে আসে। এ কারণে অনেকেই তাকে দেখতে আসেন ।
শুক্রবার স্থানীয় ইউপি সদস্য লাল্টু মিয়া অনেক আগ্রহ নিয়ে জানালেন তার কথা। বাড়িতে গিয়ে দেখা গেল নিজ ঘরে বসে পান চিবোচ্ছেন আজিজার মুন্সী। কথা বলার প্রয়োজনে অন্যদের সহযোগিতায় উঠোনে এসে বসলেন তিনি।
বয়স কত জিজ্ঞেস করতেই ফোকলা দাঁতের হাসি দিয়ে ইশারায় কানে কম শোনার কথা বোঝালেন । এবার কানের খুব কাছে মুখ নিয়ে পূর্ববর্তী প্রসঙ্গসহ করা হলো আরো অনেক প্রশ্ন। শুরু হলো আজিজার মুন্সীর কথা বলা।
জানালেন, ১৯৫২ সালে স্ত্রী জুলেখা বেগমের সঙ্গে যখন বিয়ে হয়, তখন তার বয়স ৪০ বছরের বেশি। লেখাপড়া বলতে শৈশবে একই এলাকার কেনু মুন্সীর বাড়ির পাঠশালায় দ্বিতীয় ভাগ পড়া। চাল খেয়েছেন ৩ পয়সা কেজি দরে।
সে সময় যোগাযোগব্যবস্থা ভালো না হওয়ায় অধিকাংশ কাজ করতেন পায়ে হেঁটে। এ কারণে অসুখবিসুখ তেমন দেখা দিত না। যদি কখনো সে রকম সমস্যা হতো তাহলে গাছগাছড়ার কবিরাজি চিকিতসাতেই সেটা ভালো হয়ে যেত। যেটিকে তিনি একসময় একমাত্র পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন।
Azizurএখনো মাঝেমধ্যে গ্রামের মানুষ তার কাছে কবিরাজি চিকিতসা নিতে আসেন। বেশির ভাগ সময় বাড়িতে থাকেন। কোনো কোনো দিন পরিবারের সদস্যদের সহযোগিতায় বাড়ির অদূরে নিশ্চিন্তপুর বাজারে ছেলে জাহাঙ্গীরের দোকানে যান চা খেতে। জীবনে অনেক কিছুই দেখেছেন তিনি। খেয়েছেন ভালো ভালো খাঁটি খাবার। খাঁটি খাবারের কারণেই এত দিন বেঁচে আছেন বলে মনে করেন তিনি।
 
জীবনের শেষ ইচ্ছা বাড়িতে বিদ্যুতের বিজলী বাতি দেখে যাওয়া। দীর্ঘদিন ধরে এলাকার দুই শতাধিক পরিবারের সঙ্গে এটিরই অপেক্ষায় আছেন তিনি।
আজিজার মুন্সীর স্ত্রী জুলেখা বেগম জানান, ছয় ছেলেমেয়ের মধ্যে বছর দশেক আগে মারা গেছেন বড় ছেলে আবু বক্কর। দুই ছেলের একজন কৃষক অন্যজন চায়ের দোকানি। তিন মেয়েরই বিয়ে হয়ে গেছে। নাতিনাতনি, ছেলে-মেয়ে, পুত্রবধূদের নিয়ে সুখেই আছেন তারা।
আজিজার মুন্সী সম্পর্কে নিশ্চিন্তপুরের ৭০ বছর বয়সী আবদুল জলিল, ৬০ বছর বয়সী গোলাম হোসেন, একই বয়সী ঘোড়ামারার আবুল হোসেনসহ আরো অনেকের বক্তব্য এ রকম, ‘হয়ে জন্মেই (জন্ম থেকেই) দেখতিছি আজিজ বেটা এই রহম (এই রকম) । আরো ১০০ বছর বাঁচে থাক আজিজ বেটা’।
    

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2014
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া