adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মাজারের দানের টাকা খাদেমের পেটে (ভিডিও)

majahaডেস্ক রিপোর্ট : ধর্মের মত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়েও আজ ব্যবসা হচ্ছে। দুনিয়ার সবচেয়ে সহজ ও পুঁজি ছাড়া ব্যবসা হলো ধর্ম কেন্দ্রিক ব্যবসা বা ধর্ম কে নিয়ে ব্যবসা করা । এই ব্যবসা করতে চান ? তাহলে একটা মাজার বানিয়ে ফেলুন।  নো টেনশন কোন পুঁজি লাগবেনা, শুধু  একটু চাপার জোর থাকলেই হয় । বিশ্বাস হলনা ?  তাহলে নিচে দেওয়া ভিডিও ক্লিপটি দেখুন ।
মাজার শব্দটির সঙ্গে বাংলাদেশের মানুষ মাত্রাধিক পরিচিত। মাজার আছে নানা রকমের। ওলি দরবেশ পীর বুজুর্গদের মাজার। সাধক ফকির বাউলদের মাজার। পাগল দিওয়ানাদের মাজার। ভন্ড পীর ফকিরের মাজার। সমপূর্ণ ভুয়া মাজার। মাজার মানে সমাধি। এদেশের প্রতিটি কবরই একেকটি মাজার। কিš‘ সাধারণ মানুষদের কবরকে মানুষ কবর বা গোরস্তান নামেই জানে। আর অসাধারণ মানুষদের কবরকে বাড়তি শ্রদ্ধা ও গুর“ত্বের সঙ্গে মাজার বলে সম্বোধন করে। সাধারণ কবর¯’ানে মৃত মানুষদের আৱীয়রাই শুধু জিয়ারত করতে যান। সে মানুষটির প্রতি দোয়া পৌঁছানোর জন্য। আর বিখ্যাত মানুষ বা মহামানবদের মাজারে হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন ছুটে আসেন সে মানুষটির দোয়া ও দয়া নেবার জন্য। প্রেরণা ও শক্তি সংগ্রহের জন্য। এখানইতো গলদ। বিখ্যাত ওলি দরবেশ বুজুর্গদের মাজারে সালাম ও দোয়া-দরুদ পাঠ ভালো কাজ। আল্লাহর নিকটতম প্রিয় বান্দাদের ভালোবাসা অন-রে লালন করা প্রতিটি মুসলমানের জন্যই শ্রেয়। তাই সুযোগ হলে তাদের মাজার বা কবর জিয়ারত করাও উত্তম।
এ সূত্র থেকেই এদেশের অগণিত ধর্মপ্রাণ সাধারণ মানুষ ভীড় করেন বিখ্যাত ওলি দরবেশের মাজারে। আমাদের এই দেশে পৃথিবীর নানা প্রান্ত থেকে হাজারও আউলিয়ায়ে কেরামের আগমন ঘটেছে যুগে যুগে। তাদের মধ্যে জানা অজানা অনেকের কবর ও মাজার ছড়িয়ে আছে এ দেশের জমিনজুড়ে। হজরত শাহজালাল ইয়েমেনি রহ.-এর আধ্যাতিœক কাফেলার সদস্যই ছিলেন তিন শতাধিক ওলি। তারাও ঘুমিয়ে আছেন এদেশেরই প্রত্যন- অঞ্চলজুড়ে। আর এসব মাজারকে পুঁজি করে চলছে সুবিধাভোগী অসজ্জনদের নানামুখী বাণিজ্য। চলছে শিরক ও বিদআতের অবাধ চর্চা। সাধারণ মানুষ তো বটেই, দেশের শীর্ষ রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীরাও তাদের ভাগ্য পরিবর্তনের আকাঙ্খা নিয়ে বড় বড় বজুর্গদের মাজারে ছুটে যান। জড়িয়ে পড়েন মাজার পূজারীদের ইন্দ্রজালে। 
আল্লাহর কাছে সর্বাধিক অপ্রিয় ঘৃণিত এবং অভিশপ্ত অপরাধ হচ্ছে শিরক বা তাঁর সঙ্গে অন্য কিছুকে শরিক করা। অন্য কিছুকে তাঁর মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করে সে আচরণ করা যা কেবল আল্লাহর সঙ্গেই করতে বান্দাদের নির্দেশ করা হয়েছে। সৃষ্টজীবের সকল কল্যাণ অকল্যাণের নির্ধারক, সকল আকাঙ্খার দাতা এবং ত্রাতা একচ্ছত্রভাবে আল্লাহ। আর কেউ নন বা কিছু নয়। এটিই আল্লাহর বিধান ও ফায়সালা। কিন্তু আল্লাহর এ বিধানের সর্বাধিক লঙ্ঘন চোখে পড়ে তাঁরই প্রিয় বান্দাদের মাজারগুলোতে। দ্বীন সমপর্কে অজ্ঞ, শরিয়া সম্বন্ধে মূর্খ, ব্যক্তি ও গোষ্ঠীগত স্বার্থে অন্ধ, ভন্ড প্রকৃতির অসত ও লোভী চক্রের খপ্পরে উপযুক্ত ভাব-গাম্ভীর্য ও পবিত্রতা হারাচ্ছে অসংখ্য ওলি দরবেশের মাজার। ধনী-গরিব, শিক্ষিত-মূর্খ অগণিত মানুষ পরম বিশ্বাস ও ভক্তির আতিশয্যে সেজদায় মাথা নোয়া”েছ এসব মাজারকে উদ্দেশ্য করে। মহাপুণ্যের কাজ ভেবে আল্লাহর কাছে চির অমার্জনীয় শিরক ও কুফরের পাপে জড়িয়ে পড়ছে ভণ্ডদের প্রতারণা ও প্ররোচনায়।

পীরদের মাজারে রুকু সেজদা এবং পীরের কাছে হাত তুলে প্রার্থনা এখন নিত্য নৈমিত্যিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে যেন। যারা করছেন তারাও এর ভয়াবহ পরিণতি বুঝতে পারছেন না, যারা দেখছেন তারাও এসব প্রতিরোধ করার দায়িত্ব অনুভব করছেন বলে মনে হয় না। যেন এটা খুব স্বাভাবিক কাজ, এমনটা হওয়া অবৈধ বা অনুচিত কিছু নয়। সচেতনদের আরও কিছু বিষয়ে সতর্ক থাকা উচিত, এসব মাজারে আরও কিছু রেওয়াজ বেশ জোর দিয়ে পালন করা হয় যার কোনো ধর্মীয় ভিত্তি নেই। বড় ওলিদের মাজারে জিয়ারত শেষে পিছু হটে হটে প্রস্থান করে আসার নিয়ম দেখানো হয়। এটি সমপূর্ণ বানোয়াট রীতি। অর্থাত ওলির কবরের দিকে পিঠ দেওয়া ভীষণরকম অন্যায় ও বেয়াদবি মনে করা এবং করানো হয়। অথচ স্বয়ং রাসুলের সা.-এর রওজা মুবারক থেকে প্রস্থানের সময়ও এ নিয়ম মানতে হয় না। এ নিয়ম নেই আল্লাহর ঘর কাবা শরিফ থেকে ফিরে আসার বেলায়ও। পীরদের মাজারে শিশুদের কোলে কাঁধে তুলে নিয়ে জিয়ারতে নিষেধ করা হয়। এতে শিশুদের পা মাজারের চেয়ে উচুঁতে থাকে বলে বেয়াদবি হয় এবং এতে শিশুটির মারাত্মক ক্ষতি ঘটতে পারে বলেও ভয় দেখানো হয়। অথচ মক্কা-মদিনা, কাবা-রওজা, সাফা-মারওয়া কোথাও এ ধরনের ব্যাখ্যা গ্রহণযোগ্য বা এ ধরনের নিয়ম পালনযোগ্য নয়।
 
ওলিদের মাজার তো আল্লাহর ঘর বা নবীর রওজা থেকে অধিক সম্মানিত স্থান নয়। এসব রীতিনীতি ভন্ড মাজার-মোতাওয়াল্লিদের বানানো ভং-চং ছাড়া আর কিছু নয়। মাজারের ইট-সুরকী, লোহা-লক্কর, কাঠ-বাঁশ, ধূলি-মাটি, গাছ-পালা, ডাল-পাতা, মশা-পিঁপড়া, টিকটিকি-তেলাপোকা, ইদুঁর-চিকা নিয়েও পর্যন্ত ব্যাবসায়িক ধান্ধা চলে। মাজারের শিরনীর কাহিনী সবারই জানা। সেই শিরনী রান্নার ছাই-কয়লাও প্যাকেটে করে শিশিতে ভরে চড়াদামে বিক্রি হয় নানা ফজিলতের বয়ান করে। হায়রে মানুষ! জীবন-যাপন ও জগত-সংসারের নানা বিপদাপদ আর সংকট-শঙ্কা থেকে মুক্তি পেতে অন্ধবিশ্বাস আর অজ্ঞ আকাঙ্খায় ঝাঁপিয়ে পড়ে মাজারপূজারী ভন্ড ধান্ধাবাজদের পাতা জালে। হাঁড়ির চাল, গাছের ফল, মাঠের ফসল, গাঁটের পয়সা, গায়ের গয়না সব বিলিয়ে দেয় মাজারের চৌকাঠে সিড়িতে আঙ্গিনায়। আর লালসালুওয়ালা ভন্ডরা সব লুফে নেয় ত্রানকর্তার ভান ধরে। টাকা গুনে গুনে বস্তাবন্দি করে শেষ করতে পারে না লোকগুলো। অসহায় গরিব বিপদগ্রস্ত মানুষের টাকা। আফসোস ও অভিশাপের টাকা।
একশ্রেণির ফকির ও বাউলদের দেখা মেলে মাজারের আশেপাশে। তারা দর্শনার্থীদের সাহায্য গ্রহণ করে। ঢোল তবলা বাজিয়ে গান-কাওয়ালি করে। আজব লীলা দেইখা আইলাম শাহজালালের মাজারে/ ও-বাবা শাহো জালাল, দয়া কর আমারে/ বড় বড় গজাল মাছে, আল্লাহ আল্লাহ জপতে আছে/ বাবা কইয়া ডাক দিলে ভাইসা ওঠে ওপরে/ ও-বাবা শাহো জালাল দয়া কর আমারে অথবা হায় বড় পীর আব্দুল কাদের, জিলানের জিলানি/ তোমারই নামেরও গুণে আগুন হয়ে যায় পানি/ তরিকতে কাদেরিয়া, আশেকে রব্বানি এজাতীয় আরও অনেক উর্দু ও বাংলা গান তারা মহাসমারোহে গেয়ে শোনায়। এসব গানে এমন অনেক বাক্য ও বক্তব্যও থাকে যা সপষ্টতই শিরক ও কুফরের সংজ্ঞায় পড়ে যায়। এরপরও এসব গানকে ভক্তিমূলক নামে চালানো হয়। বুজুর্গদের মাজারকে কেন্দ্র করে যেসব উপস্থিত পীর ফকির ও বাউলরা সাধারণ মানুষের ভক্তি ও বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে নিজেদের স্বার্থোদ্ধারে ব্যস- থাকে তাদের অধিকাংশই বেনামাজি, নেশাখোর, অপবিত্র, অপরিছন্ন, দুর্গন্ধযুক্ত ও দুশ্চরিত্রের হয়ে থাকে। মানুষ এখন মাজারের এতোই অন্ধপূজারী যে এসব তাদের চোখে লাগে না। ইসলামের সুমহান সাধকদের মাজারকে কেন্দ্র করে কিছু ভন্ড পাপাচারীদের তত্ত্বাবধানে যেন ভিন্ন কোনো ধর্মের অগ্রযাত্রা চলছে- যা কিছুতেই সে ওলিদের সাধনার ইসলাম নয়। শুধু ইসলামের সঠিক চর্চাকারী দ্বীনের আলেমরা কিছুতেই এসব পাপাদর্শের সমর্থন করেন না। তারা মনে করেন- যদি এসব মাজারে শায়িত ওলিরা এখনও জেগে উঠতে পারতেন, তবে সবার আগে মাজারকেন্দ্রিক এ দ্বীনধ্বংসী সুন্নত ও শরিয়াবিরোধী ভন্ড শয়তানদের পিটিয়ে তাড়াতেন। আজীবন শিরক ও বিদআতের বির“দ্ধে দ্বীনের ওলি দরবেশদের সংগ্রাম, তাদের মাজারেই আজ শিরকের শিকড় বিস্তত হয়ে চলেছে, যার প্রতিকার ও প্রতিরোধের উদ্যোগ সমাজ বা সরকার কেউই নি”েছন না। একমাত্র আল্লাহ ছাড়া কারও কাছে কিছু প্রার্থনা করার বিধান না থাকা সত্ত্বেও এখন পীরের কাছে বা কোনো ওলির মাজারে সেজদায় পড়ে সস্তান, সমপদ, আয়, রোগমুক্তি ও বিপদমুক্তির জন্য প্রার্থনা করছে মানুষ।
https://www.youtube.com/watch?v=R339Uwr6CKE

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2014
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া